প্রাইভেট শিক্ষার্থীদের আগেই প্রশ্ন দেন শিক্ষক, ইউএনও বক্সে অভিযোগ

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ব্রাহ্মণবাড়িয়া
প্রকাশিত: ০৫:১২ পিএম, ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০

শিক্ষার্থীদের মনের না বলা কথাগুলো জানতে ব্যতিক্রমী উদ্যোগ হিসেবে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ উপজেলার দুটি বিদ্যালয়ে ‘ইউএনও বক্স’ বসানো হয়েছিল। সেই বক্সের মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা তাদের অভিযোগ ও পরামর্শের কথা জানাতে শুরু করেছে।

বুধবার (০৫ ফেব্রুয়ারি) আশুগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. নাজিমুল হায়দার বক্স দুটি খুলেছেন। ইউএনওকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সুনির্দিষ্ট কয়েকটি অভিযোগ ও পরামর্শের কথা জানিয়েছে শিক্ষার্থীরা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, পরিবার ও স্কুল শিক্ষকদের কাছে মন খুলে বলতে না পারা শিক্ষার্থীদের কথাগুলো জানতে ইউএনও বক্স বসানোর উদ্যোগ নেন আশুগঞ্জের ইউএনও। প্রাথমিকভাবে গত ২৭ জানুয়ারি আশুগঞ্জের রওশন আরা জলিল বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও সরকারি হাজি আব্দুল জলিল উচ্চ বিদ্যালয়ে কাঠ ও স্বচ্ছ কাচের তৈরি ইউএনও বক্স।বসানো হয়।

প্রতি সপ্তাহে একবার করে খোলা হয় বক্সটি। সে অনুযায়ী বুধবার বেলা ১১টার দিকে ইউএনও নাজিমুল বক্স দুটি খুলে শিক্ষার্থীদের অভিযোগ ও পরামর্শের চিঠিগুলো গ্রহণ করেন। দুটি বিদ্যালয়ের মোট ১৬ জন শিক্ষার্থী চিঠির মাধ্যমে তাদের অভিযোগ ও পরামর্শের কথা জানিয়েছে।

অভিযোগগুলো হলো শিক্ষক কর্তৃক প্রাইভেট পড়ানো শিক্ষার্থীদের মাঝে অগ্রিম পরীক্ষার প্রশ্ন সরবরাহ, শিক্ষার্থীদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার, বিভিন্নভাবে বাড়তি ফি আদায় উল্লেখযোগ্য।

পাশাপাশি পরামর্শ হিসেবে বিদ্যালয়ের সামনের সড়কে ফুটওভার ব্রিজ ও স্পিড ব্রেকার, বিশুদ্ধ খাবার পানির ব্যবস্থা, বাল্যবিয়ের কুফল সম্পর্কে মা সমাবেশ, উন্নত টয়লেট এবং স্মৃতিসৌধের পুনর্নিমাণের বিষয়টি প্রাধান্য পেয়েছে।

রওশন আরা জলিল বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রেজাউল আজাদ বলেন, শিক্ষার্থীদের অভিযোগ সম্পর্কে আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করব। পাশাপাশি তাদের পরামর্শগুলোও আমরা গ্রহণ করব।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে আশুগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. নাজিমুল হায়দার বলেন, গুরুতর তেমন কোনো অভিযোগ আমরা পাইনি। তবে প্রাইভেট পড়া শিক্ষার্থীদের মাঝে অগ্রিম প্রশ্ন সরবরাহের বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে দেখা হবে। পাশাপাশি অন্য অভিযোগগুলোও খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করব। শিক্ষার্থীদের দেয়া পরামর্শগুলো আমরা গুরুত্ব দিয়ে দেখব।

আজিজুল সঞ্চয়/এএম/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]