ত্রাণের জন্য সরকারি কর্মকর্তাকে মারধর, ভাইস চেয়ারম্যান বরখাস্ত

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি টাঙ্গাইল
প্রকাশিত: ০৯:১১ পিএম, ২৯ মে ২০২০

প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাকে (পিআইও) মারধরের ঘটনায় টাঙ্গাইল সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যানের পদ থেকে নাজমুল হুদা নবীনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

শুক্রবার (২৯ মে) টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, গতকাল স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের উপসচিব জহুরুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে তাকে বিষয়টি জানানো হয়েছে।

গত ২২ মে টাঙ্গাইল সদর থানায় নবীনকে আসামি করে মামলা করেন পিআইও মমিনুল। এরপর গ্রেফতার এড়াতে গা ঢাকা দেন নাজমুল হুদা।

জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলাম বলেন, ২১ মে নাজমুল হুদা নবীন অফিস কক্ষে ঢুকে পিআইও মমিনুলকে মারধর করেন। এ ব্যাপারে পিআইও মমিনুল বাদী হয়ে ২২ মে সদর থানায় মামলা করেন।

মামলার এজাহারে পিআইও মমিনুল অভিযোগ করেন, ২১ মে বিকেল ৫টার দিকে আমার অফিস কক্ষে আসেন নাজমুল হুদা। তার সঙ্গে আরও চার-পাঁচজন অনুসারী ছিলেন। নাজমুল হুদা আমার কাছে অবৈধভাবে ত্রাণ চান। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার অনুমতি ছাড়া ত্রাণ দেয়া যাবে না জানালে নাজমুল হুদা ক্ষিপ্ত হয়ে আমাকে মারধর করে আহত করেন। আমার চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এলে নাজমুল তাদের ভয়ভীতি দেখিয়ে চলে যান। পরে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি হই আমি। নাজমুল হুদা নবীন টাঙ্গাইল শহর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। এর আগে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন তিনি।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, তার এসব কর্মকাণ্ড উপজেলা পরিষদে কর্মরত কর্মচারীদের মধ্যে হতাশা ও ক্ষোভের সৃষ্টি করতে পারে, যা সার্বিকভাবে উপজেলা পরিষদের কার্যক্রম বাস্তবায়নে অচলাবস্থার সৃষ্টি ও জনস্বার্থ মারাত্মকভাবে বিঘ্নিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। তিনি নিজ পদে বহাল থাকলে উপজেলা পরিষদের কার্যক্রম পরিচালনা করা রাষ্ট্র বা পরিষদের স্বার্থের হানিকর হতে পারে। তাই জনস্বার্থে তাকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হলো।

আরিফ উর রহমান টগর/এএম/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]