ফেরিঘাটে ভাঙন, শিমুলিয়ায় ৪ ছোট ফেরিতে চলছে পারাপার

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি মুন্সীগঞ্জ
প্রকাশিত: ১০:১০ এএম, ০৬ আগস্ট ২০২০

মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার শিমুলিয়া ঘাট এলাকায় দ্বিতীয় দফা ভাঙনে বিলীন হয়ে গেছে বিআইডব্লিউটিসির ৪নং ফেরিঘাটের অ্যাপ্রোচ সড়কসহ বেশকিছু এলাকা। বৃহস্পতিবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে ৪নং ভিওআইপি ফেরিঘাটের বিস্তীর্ণ এলাকা নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যায়। বর্তমানে ওই নৌরুটে লঞ্চ চলাচল বন্ধ রয়েছে। সীমিত পরিসরে চলছে স্পিডবোট ও ফেরি।

এর আগে গত ২৮ জুলাই (মঙ্গলবার) শিমুলিয়া প্রান্তের ৩নং রো রো ফেরিঘাটের অ্যাপ্রোচ সড়কসহ বেশ কিছু এলাকা নদীতে তলিয়ে যায়।

Ferighat-1

দুর্ঘটনা এড়াতে বৃহস্পতিবার সকাল ৭টা থেকে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটে ফেরিসহ সকল ধরনের নৌযান চলাচলা বন্ধ করে দেয় ঘাট কর্তৃপক্ষ। পরে ১ ও ২নং ঘাট দিয়ে ৪টি ছোট ফেরি চালু রেখে সীমিত পরিসরে যানবাহন পারাপার অব্যাহত রেখেছে। তবে এ রুটে লঞ্চ চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। সীমিত আকারে চলাচল করছে স্পিডবোট। এছাড়া অপেক্ষায় থাকা যানবাহনগুলোকে বিকল্প পথে যাওয়ার জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে।

বিআইডব্লিউটিসির শিমুলিয়া ঘাটের ব্যবস্থাপক সাফায়েত আহমেদ জানান, রাত আড়াইটার দিকে ভাঙন শুরু হয়। এরমধ্যেই ৪নং ভিওআইপি ফেরিঘাটসহ অ্যাপ্রোচ সড়ক ও ঘাটের কয়েকশ ফিট জায়গা নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। ভাঙন প্রায় ২নং ফেরিঘাটের কাছাকাছি পর্যন্ত চলে গেছে। তাই সকাল ৭টায় সর্বশেষ ফেরি কাঁঠালবাড়ীর উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়ার পর এই রুটে ফেরি সার্ভিস বন্ধ করে দেয়া হয়। পরে আবার ৪টি ছোট ফেরি দিয়ে ১ ও ২নং ঘাট দিয়ে যানবাহন পারাপার শুরু করা হয়।

ভবতোষ চৌধুরী নুপুর/এফএ/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]