গর্ত খুঁড়ে জায়গা দখলের চেষ্টা!

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ব্রাহ্মণবাড়িয়া
প্রকাশিত: ০৫:৪৩ পিএম, ২৫ নভেম্বর ২০২০

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলায় অভিনব পন্থায় জায়গা দখলের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে একটি চক্রের বিরুদ্ধে। ৬০ শতাংশের ওই জায়গায় বড় বড় গর্ত খুঁড়েছে চক্রটি। এ নিয়ে জায়গার মালিক ফরিদা ইয়াসমিন মুন্নী থানায় অভিযোগ দিয়েছেন। 

অভিযোগের তদন্ত প্রতিবেদনের প্রেক্ষিতে আদালত জায়গাটিতে ১৪৪ ধারা জারি করেছেন। কিন্তু অভিযুক্তরা ১৪৪ ধারা অমান্য করে ওই জায়গায় ঘর নির্মাণ করেছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, বিজয়নগর উপজেলায় সিঙ্গারবিল ইউনিয়নের উথারিয়াপাড়ার মৃত আবদুস সাত্তার ভূঁইয়ার সিঙ্গারবিল মৌজায় ৬০ শতাংশ জায়গাটি তার মৃত্যুর পর ওয়ারিশরা ভোগদখল করছেন। সম্প্রতি জায়গাটি দখলে নেয়ার জন্য স্থানীয় বাসিন্দা আবদুল বাছিরের নেতৃত্বে একটি চক্র সক্রিয় হয়ে উঠেছে। এর অংশ হিসেবে ওই জায়গায় বড় বড় গর্ত খুঁড়েছে চক্রটি।

অভিযোগ তদন্ত করে গত ২৭ অক্টোবর আদালতে প্রতিবেদন জমা দেয় পুলিশ। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে আদালতের বিচারক জায়গাটিতে ১৪৪ ধারা জারি করেন। কিন্তু আদালতের আদেশ অমান্য করে চক্রটি রাতের আঁধারে জায়গাটিতে ঘর নির্মাণ করে। ইতিমধ্যে পিলার ও চালা বসিয়েছে চক্রটি।

এদিকে, চক্রের সদস্যরা অভিযোগ প্রত্যাহার করে নিতে ক্রমাগত হুমকি দিচ্ছেন বলে অভিযোগ করেন ভুক্তভোগীরা। যে কোনো মুহূর্তে হামলার আশঙ্কায় নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন তারা।

জায়গার মালিক ফরিদা ইয়াসমিন মুন্নি বলেন, ‘ভূমিদস্যু চক্রটি আমাদের পৈতৃক জায়গা দখলে নেয়ার চেষ্টা করছে। আমরা নিরূপায় হয়ে আদালতের স্মরণাপন্ন হয়েছি। এখন ভূমিদস্যুরা আমাদের হুমকি-ধামকি দিচ্ছে। যে কোনো সময় তারা হামলা করতে পারে। আমরা জীবনের নিরাপত্তা চাই’।

মুন্নির ভাই শাহজাহান ভূঁইয়া বলেন, ‘আদালতের আদেশের পরও ভূমিদস্যুরা জায়গায় ঘর নির্মাণ করেছে। আমরা শান্তিতে থাকতেই চাই, জীবনের নিরাপত্তা চাই।’

জায়গা দখলের চেষ্টার অভিযোগ অস্বীকার করে অভিযুক্ত আবদুল বাছির বলেন, ‘জায়গা দখলে নেয়ার অভিযোগটি মিথ্যা। জায়গাটি মাদরাসার জন্য বরাদ্দ।’

এ ব্যাপারে বিজয়নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আতিকুর রহমান বলেন, বিষয়টি আমরা পর্যবেক্ষণ করছি। হুমকির বিষয়ে কেউ কোনো অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আজিজুল সঞ্চয়/এএইচ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]