বিজিবির শতকোটি টাকার মানহানি মামলায় ব্লাস্ট কর্মীর জামিন

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি কক্সবাজার
প্রকাশিত: ০৪:০৮ পিএম, ১৪ জানুয়ারি ২০২১

বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্লাস্টের এক নারীকর্মীর বিরুদ্ধে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) করা ১০০ কোটি টাকার মানহানি মামলায় জামিন পেয়েছেন অভিযুক্ত তরুণী।

বৃহস্পতিবার (১৪ জানুয়ারি) আদালতে হাজির হয়ে জামিন চাইলে বিচারক তাকে জামিন দেন। এদিকে আজ মামলার শুনানির কথা থাকলেও হয়নি। শুনানির জন্য ১০ মার্চ দিন ধার্য করেছেন আদালত।

কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) অ্যাডভোকেট ফরিদুল আলম এসব তথ্য জানান।

মামলার অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত ৮ অক্টোবর টেকনাফ বিজিবি-২ ব্যাটালিয়নের দমদমিয়া চেকপোস্টে নিয়মমতো অন্যদের সঙ্গে ব্লাস্টের ওই নারী কর্মীকেও তল্লাশি করা হয়। অটোরিকশার যাত্রী ওই নারী পরে বিজিবি সদস্যদের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ করেন। তার বক্তব্য দিয়ে জাতীয় ও স্থানীয় অনেক গণমাধ্যম তাদের অনলাইন ভার্সনে প্রতিবেদনও প্রচার করে। এ নিয়ে হইচই পড়ে যায়। ঘটনার সত্যতা জানতে তৎপর হয়ে ওঠে গোয়েন্দা সংস্থাসহ গণমাধ্যমও।

ওই নারী কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি হন। কিন্তু হাসপাতালে চিকিৎসকরা পরীক্ষা করে ওই নারীকর্মীর ধর্ষণের আলামত পাননি বলে রিপোর্ট দেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে গত ১০ নভেম্বর কক্সবাজার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তামান্না ফারাহর আদালতে ওই নারীর বিরুদ্ধে শতকোটি টাকার মানহানির মামলা করে বিজিবি।

টেকনাফ বিজিবির দমদমিয়া তল্লাশি ফাঁড়ির দায়িত্বপ্রাপ্ত জেসিও নায়েব সুবেদার মোহাম্মদ আলী মোল্লা বাদী হয়ে মামলাটি করেন। আদালত সাত কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করার জন্য টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) নির্দেশ দেন। নির্দেশনামতে গত ২২ নভেম্বর পুলিশ আদালতে প্রতিবেদন জমা দেয় বলে জানিয়েছেন টেকনাফ থানার ওসি হাফিজুর রহমান।

jagonews24

প্রতিবেদন গ্রহণ করে আসামিকে সমন দেন আদালত। সেই সমনে ১৪ জানুয়ারি আসামিকে আদালতে হাজির হতে বলা হয়। আসামি হাজির হওয়ায় জামিন দেন আদালত।

মামলার বাদীপক্ষের আইনজীবী সাজ্জাদুর রহমান বলেন, ‘যে ধারায় মামলা হয়েছে তা জামিনযোগ্য ধারা। তাই আসামি আদালতে হাজির হয়ে জামিন প্রার্থনা করলে আদালত জামিন মঞ্জুর করেন। শুনানিতে অভিযোগ প্রমাণিত হলে আসামি যথাযথ শাস্তি পাবেন বলে আমাদের বিশ্বাস।’

এদিকে আদালতে হাজির হলেও অভিযুক্ত ওই তরুণী গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেননি। মামলার দিন থেকে এ পর্যন্ত তিনি সংবাদকর্মীদের এডিয়ে চলছেন। খুদেবার্তা পাঠানো হলে কোনো উত্তর দেন না। এমনকি এনজিও সংস্থা ব্লাস্টের কোনো কর্মকর্তাও এ বিষয়ে কথা বলতে রাজি হননি।

সায়ীদ আলমগীর/এসআর/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]