১৩ লাখ টাকায় বাঘের চামড়া বেচতে এসে শিকারি ধরা

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি বাগেরহাট
প্রকাশিত: ০৮:৪৩ এএম, ২০ জানুয়ারি ২০২১
ফাইল ছবি

ক্রেতা সেজে সুন্দরবনের একটি রয়েল বেঙ্গল টাইগারের চামড়াসহ এক চোরা শিকারিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবন বিভাগ ও র‍্যাব- ৮ সদস্যরা মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে শরণখোলার রায়েন্দা বাস স্ট্যান্ড এলাকা থেকে একটি বাঘের চামড়াসহ মো. গাউস ফকির নামে এই চোরা শিকারিকে গ্রেফতার করে।

গ্রেফতার গাউস বাগেরহাটের শরণখোলা উপজেলার দক্ষিণ সাউথখালী গ্রামের রশিদ ফকিরের ছেলে।

বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মুহাম্মদ বেলায়েত হোসেন জানান, পেশাদার চোরা শিকারি গাউস ফকির সুন্দরবন থেকে একটি রয়েল বেঙ্গল বাঘ হত্যা করে চামড়া নিয়ে তা বিক্রির জন্য ক্রেতার অপেক্ষায় রয়েছে বলে খবর আসে বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের কাছে।

বিশ্বস্ত সূত্রের এ খবর নিশ্চিত হওয়ার পর র‍্যাব- ৮ এর সহযোগিতায় ক্রেতা সেজে গোপনে চোরা শিকারি গাউস ফকিরের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। বাঘের চামড়াটির দাম ১৭ লাখ থেকে দরদাম করে ১৩ লাখ টাকা ঠিক হয়।

এরপর ফাঁদ পাতে সুন্দরবন বিভাগ ও র‍্যাব সদস্যরা। বাঘের চামড়া হস্তান্তরের সময় পুরো টাকা পরিশোধ করা হবে বলে গাউস ফকিরকে আশ্বস্ত করা হয়।

সেই মতে গাউস ফকির রাত ৮টার দিকে একটি বস্তায় ভরে বাঘের চামড়াসহ শরণখোলা বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন তেলের পাম্পের কাছে জলিলের ব্রিজের নিচে আসেন। এ সময় সুন্দরবন বিভাগ ও র্যাবের যৌথ টিমের সদস্যরা চারদিক থেকে ঘিরে ফেলে বাঘের চামড়াসহ চোরা শিকারি গাউস ফকিরকে গ্রেফতার করে।

উদ্ধার হওয়া বাঘের চামড়াটি ৮ ফুট ১ ইঞ্চি লম্বা ও ৩ ফুট ১ ইঞ্চি চওড়া চওড়া বলে নিশ্চিত করেছে সুন্দরবন বিভাগ।

এ বিষয়ে বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টায় বাগেরহাটের সুন্দরবন পূর্ব বিভাগীয় বন কর্মকর্তার কার্যালয়ে র্যাব ও সুন্দরবন বিভাগ ও র‍্যাব-৮ যৌথভাবে আনুষ্ঠানিক সাংবাদ সম্মেলন করে বিস্তারিত অবহিত করবে জানিয়েছে।

শওকত আলী বাবু/এফএ/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]