আবাসন প্রকল্পে ঠাঁই হলো ৩০ তৃতীয় লিঙ্গের মানুষেরও

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি সিরাজগঞ্জ
প্রকাশিত: ০৯:৪০ এএম, ২৫ জানুয়ারি ২০২১

প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ প্রকল্পের আওতায় সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় ৩০ জন তৃতীয় লিঙ্গের মানুষের আশ্রয় মিলেছে ‘প্রিয় নীড় আশ্রায়ন প্রকল্পে’। সমাজে অবহেলিত মানুষগুলো এখন নিজেদের ঘরে শান্তিতে থাকার পাশাপাশি স্বাবলম্বী হতে শুরু করেছেন সবজি চাষ আর গো-খামার করে।

উপজলো প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা জানান, তৃতীয় লিঙ্গের আশ্রায়নের জন্য এটিই প্রথম প্রকল্প। ক্রমান্বয়ে অন্যান্যদেরও এই প্রকল্পের আওতায় আনা হবে।

আর নিজেদের নিরাপদ আশ্রয়স্থল পেয়ে অনেক খুশি তৃতীয় লিঙ্গের মানুষেরা।

এখানে বসবাস করা মানুষেরা জানান, ছোটবেলা থেকেই সকল ক্ষেত্রেই শুধু অবহেলায়ই মিলেছে। স্কুলে শিক্ষক পড়াতে চাননি তৃতীয় লিঙ্গের মানুষ বলে। পড়শীরা হাসাহাসি করেছে তাদের চলাচল দেখে। এক সময় বাধ্য হয়েই সমাজ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে এসব তৃতীয় লিঙ্গের মানুষ।

সবশেষ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ প্রকল্পের মাধ্যমের ৩০ জন তৃতীয় লিঙ্গের মানুষের জন্য নিরাপদ আশ্রয় হয়েছে উল্লাপাড়া উপজেলার স্বরস্বতী নদীর পাড়ে। প্রকল্পের মাধ্যমে টিনশেড বিল্ডিং আলাদা ওয়াসরুম আর নিজেদের আলোচনা আর অনুষ্ঠান করার জন্য তৈরি হয়েছে কমিউনিটি সেন্টার।

এসব স্থাপনা নিজেদের জন্য পেয়ে খুশী তৃতীয় লিঙ্গের মানুষ। এখন নিজেদেরকে তৈরি করতে চান স্বাবলম্বী মানুষ হিসেবে।

প্রকল্পে বসবাসকারীরা নিজেদের স্বাবলম্বী করতে ইতোমধ্যে বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছেন। আর তা দেখে নতুন আরো কিছু পরিকল্পনা নেয়ার জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে প্রস্তাব করবেন বলে জানালেন উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা।

সরকারের উদ্যোগকে স্থায়ী রূপ দিতে জেলায় আরও যত তৃতীয় লিঙ্গের মানুষ আছে তাদেরও এমন প্রকল্পের আওতায় আনার উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে বলেও জানান জেলা প্রশাসক। পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রীর এমন উদ্যোগের প্রশংসাও করেন তিনি।

অনেক অভাব থাকলেও নিরাপদ আশ্রয় মেলায় এখন অনেকটাই স্বস্তিতে তৃতীয় লিঙ্গের মানুষ। নিজেদেরকে অনন্য উচ্চতায় নিতে নিজেরাই এখন তৈরি করছেন নিজেদের।

ইউসুফ দেওয়ান রাজু/এফএ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]