রাতে থাকতে দিল পরিবার, অতঃপর স্বর্ণালঙ্কার নিয়ে লাপাত্তা

উপজেলা প্রতিনিধি উপজেলা প্রতিনিধি মোংলা (বাগেরহাট)
প্রকাশিত: ০৪:১৭ পিএম, ০১ মার্চ ২০২১

বাগেরহাটের মোংলায় অপরিচিত দুই ব্যক্তিকে রাতে থাকতে দিলে ঘর বন্ধ করার নাম করে দুধের সঙ্গে চেতনানাশক খাইয়ে বাড়ির সদস্যদের অজ্ঞান করে নগদ টাকা, মোবাইল ফোন, স্বর্ণালঙ্কারসহ অন্যান্য মালামাল নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

সোমবার (১ মার্চ) সকালে ওই বাড়ির তিন সদস্যকে অজ্ঞান অবস্থায় উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করেন প্রতিবেশীরা।

ভুক্তভোগী পরিবারের স্বজনরা জানান, গতকাল রোববার (২৮ ফেব্রুয়ারি) রাত ১০টার দিকে অজ্ঞাত দুই ব্যক্তি সাতঘরিয়া গ্রামের মৃত বিদ্যুতের বাড়ি যান। তারা দুজন রাতে কাটাতে চাইলে বাড়ির লোকজন তাদের থাকার ব্যবস্থা করেন। কিছু সময় পর তারা জানান বাড়িতে ভয়ভীতির আঁচড় রয়েছে, তাই বাড়ি বন্ধ করতে হবে। ওই দুজনের কথা মতো সবকিছুর ব্যবস্থা করেন বাড়ির সদস্যরা।

রাত ১২টার দিকে তারা দুধের সঙ্গে চেতনানাশক খাইয়ে দেন বাড়ির গৃহকর্ত্রী কবিতা মল্লিক (৫২), কবিতার ছেলে আনা বিপ্লব (৩২) ও কবিতার বড় বোন সবিতা মল্লিককে (৫৫)। এরপর তারাও ঘরের বারান্দায় ঘুমানোর ভান করেন। বাড়ির লোকজন অজ্ঞান হয়ে পড়লে ঘরে ঢুকে ৯ থেকে ১০ হাজার নগদ টাকা, দুটি মোবাইল ফোন ও স্বণার্লঙ্কারসহ মালামাল নিয়ে যান। সোমবার সকালে প্রতিবেশীরা তাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান।

হাসপাতালের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. জীবিতেষ বিশ্বাস বলেন, অজ্ঞান অবস্থায় তাদের হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। এখন তাদের শারীরিক অবস্থা ভালো এবং শঙ্কামুক্ত।

মোংলা থানার সেকেন্ড অফিসার জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আমাদের কাছে এমন কোনো অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

মো. এরশাদ হোসেন রনি/এসজে/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]