ট্রাকচালক-হেলপারকে মারধরের অভিযোগে দু’দফায় মহাসড়ক অবরোধ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক বগুড়া
প্রকাশিত: ০৬:৩০ পিএম, ০৭ মার্চ ২০২১

বগুড়ার আদমদীঘিতে পাম্প মালিকের বিরুদ্ধে ট্রাক চালক ও হেলপারকে আটকে রেখে লাঞ্ছিত এবং মারধরের অভিযোগে মহাসড়কে যান ফেলে সড়ক অবরোধ করেন শ্রমিকরা। এতে বগুড়া-নওগাঁ মহাসড়কের সান্তাহার বশিপুর বাইপাস মোড় এলাকায় দু’দফায় ২ ঘণ্টাব্যাপী যান চলাচল বন্ধ থাকে।
রোববার (৭ মার্চ) দুপুর আড়াইটা থেকে ৪টা এবং সাড়ে ৪টা থেকে ৫টা পর্যন্ত সড়ক অবরোধ করা হলে মহাসড়কের দু’পাশে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

ট্রাক শ্রমিকদের অভিযোগ, দুপুরে উপজেলার সান্তাহার পৌর শহরের বশিপুর বাইপাস মোড়ে হা-মীম ফিলিং স্টেশনের সামনে ট্রাক রেখে তেলের বকেয়া টাকা দিতে আসেন চালক শহিদুল ইসলাম। এরপর পাম্প মালিকের কাছে বকেয়া ১৯ হাজার ৩১৯ টাকা পরিশোধ করে রশিদ বুঝিয়ে নিয়ে বের হচ্ছিলেন ট্রাক চালক। কিন্তু টাকাটি বুঝিয়ে পেয়েই পাম্প মালিক ডায়মন্ড, তার ছেলে রাহি ও ম্যানেজার আরিফ হোসেন ওই চালক এবং চালকের সঙ্গে থাকা হেলপার সুমনকে লাঞ্ছিত করেন। এক পর্যায়ে অফিস রুমে আটকে তাকে মারধরও করেন। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে মুহূর্তেই অর্ধশত শ্রমিক পাম্পের পাশে মহাসড়কে যান ফেলে রেখে সড়ক অবরোধ করেন।

jagonews24

তবে পাম্প মালিক ডায়মন্ড হোসেন মারধরের কথা অস্বীকার করে বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে চালক শহিদুল তাদের সঙ্গে লেনদেন করতেন। কিন্তু গত ৬মাস যাবত তিনি পাম্পে আসা বন্ধ করে দেন। পাওনা টাকা না দেয়ার জন্য তিনি নানা ধরনের তালবাহানা শুরু করেন। তবে রোববার দুপুরে তিনি টাকা পরিশোধ করতে আসেন। টাকা পরিশোধ শেষে পাম্পের কয়েকজনের সঙ্গে তার কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে উত্তেজনা সৃষ্টি হলে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে এবং দু’পক্ষকে নিয়ে মীমাংসার চেষ্টা চালায়। কিন্তু শ্রমিকরা কিছুতেই তা মানছিলেন না। বিকেল সাড়ে ৪টায় ফের তারা রাস্তায় যানবাহন দিয়ে বেরিকেট দেন।’

সান্তাহার পুলিশ ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক আব্দুল ওয়াদুদ জানান, ঘটনাস্থলে এসে শ্রমিকদের শান্ত করা হয়েছে। কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে এবং মীমাংসার জন্য দু’পক্ষকে নিয়ে বসা হয়েছে। তাদের বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।’

এসজে/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]