ছেলেদের পছন্দ সুতি পাঞ্জাবি আর মেয়েদের সালোয়ার কামিজ

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি মেহেরপুর
প্রকাশিত: ০২:১৩ পিএম, ০৯ মে ২০২১

সংযম শেষে আসে আনন্দের ঈদ। এ ঈদকে বিশেষ করে তুলতে চারিদিকে কত আয়োজন। বিপনীবিতান থেকে শুরু করে ফুটপাত সবখানেই মানুষের ব্যস্ততা। এবার আবহাওয়ার কারণে সবাই সুতি কাপড়ে আগ্রহী বেশি।

বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, সুন্দর কারুকাজের পাঞ্জাবি ও সাদামাটা নকশার পাঞ্জাবির সঙ্গে মিলিয়ে অনেক ক্রেতা কিনছেন পছন্দের কটি। শর্ট পাঞ্জাবিও বিক্রি হচ্ছে বাজারে তবে তুলনামূলক কম।

আবার কিছু ক্রেতা কিনছেন কারুকাজ খচিত ফতুয়া। দামও রয়েছে সাধ্যের নাগালে। ফতুয়া পাওয়া যাচ্ছে ৩০০-৪০০ টাকায়।

jagonews24

মেহেরপুর বড়বাজার ও গাংনীর এস এম প্লাজা, আমিরুল মার্কেট, স্মরণীকা ও বামন্দি বাজার ঘুরে দেখা যায়, পাঞ্জাবির গলা, কলার, হাতা বা বুকের সামনে রয়েছে নানা নকশা। লম্বা পাঞ্জাবিতে কলার ও বুকের দিকে থাকছে পুঁতি বা সুতার কাজ।

কাটছাঁট রঙ আর বৈচিত্র্যে এসব পাঞ্জাবিতে আছে নতুনত্বের ছোঁয়া। এছাড়া পাঞ্জাবিতে জুড়ে দেয়া হয়েছে বাড়তি পকেট।

মেয়েদের পোশাকে এবার পাথরের কাজের তুলনায় সুতার কাজের কামিজ ভালো চলছে।

বিভিন দোকান ঘুরে দোকানি ও ক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ভারতীয় কাপড়ে জরি, সুতা, পুঁতি, চুমকি, কুন্দন দিয়ে নকশা করা সালোয়ার-কামিজের চাহিদা আছে বেশ। এছাড়া সুতি কাপড়ের চাহিদা একটু বেশি। তবে গরমে হালকা রঙের প্রাধান্য থাকলেও উৎসবে গাঢ় রঙের পোশাকও বিক্রি হতে দেখা গেছে।

jagonews24

কাজভেদে এসব পোশাকের দাম পড়ছে আড়াই থেকে সাত হাজার টাকা। আরো বেশি দামের পোশাকও আছে।

এদিকে পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে জুতা আর হাল্কা প্রসাধনী কেনা হচ্ছে। স্বল্পদামে টেকসই জুতা চাচ্ছেন ক্রেতারা।

দোকানিরা জানালেন, ক্রেতারা পাথরের তৈরি গয়নার সেট বেশি পছন্দ করেন। তাই এবার ঈদে আমদানি করা হয়েছে বিদেশি সিটি গোল্ড ও পাথরের মালা, কানের দুল, চুড়িসহ অন্যান্য জিনিস। এখানে ১০ টাকা থেকে শুরু করে এক হাজার টাকার সেট পাওয়া যাচ্ছে।

দোকানিরা আরো জানান, মেহেদি কেনারও ধুম পড়েছে বাজারে। বিভিন্ন কোম্পানির তৈরি মেহেদি বাজারে পাওয়া গেলেও বেশি বিক্রি হচ্ছে রাঙাপরী মেহেদি।

তবে বেচাকেনা যাই হোক, কেউই মানছেন না স্বাস্থ্যবিধি। এতে ঈদ ভেস্তে যেতে পারে সকলেরই। তবে সে কথাটি সবার কাছে উপেক্ষিত রয়ে গেছে। এদিকে প্রশাসনের নেই কোনো তৎপরতা।

আসিফ ইকবাল/এসএমএম/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]