ফরিদপুর মেডিকেলে আইসিইউতে নেই জনবল, করোনা রোগীর চিকিৎসা ব্যাহত

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ফরিদপুর
প্রকাশিত: ০৮:৫০ পিএম, ০১ আগস্ট ২০২১

ফরিদপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ (বিএসএমএমসি) হাসপাতালের ১৬ শয্যার আইসিইউর প্রথম শ্রেণির সবকটি পদই শূন্য। ২০১৬ সালে নির্মাণ হওয়া এই আইসিইউতে আজ অবধি কোনো জনবল নিয়োগ দেয়া হয়নি।

jagonews24

বর্তমানে ওই হাসপাতালের একজন সহকারী অধ্যাপক ও একজন স্টাফ রোস্টারের মাধ্যমে করোনা রোগীদের জন্য ইউনিটটি চালু রাখা হয়েছে। জনবল না থাকায় এখানে চিকিৎসা কার্যক্রম মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে।

jagonews24

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় ৫০০ শয্যার এই হাসপাতালটি পুরোটাই করোনা ডেডিকেটেড। প্রতিদিন এখানে কমপক্ষে ৫০০ করোনা রোগীকে চিকিৎসা দেয়া হয়। এদের মধ্যে গুরুতর অসুস্থদের আইসিইউতে স্থানান্তর করা হয়। একটি বেড খালি হতে না হতেই সেখানে নতুন রোগীকে নিয়ে যাওয়া হয়।

jagonews24

নিয়মানুযায়ী হাসপাতালের আইসিইউতে একজন সহকারী অধ্যাপক, দুজন জুনিয়র কনসালটেন্ট, দুজন সহকারী রেজিস্ট্রার ও দুজন মেডিকেল কর্মকর্তা থাকার কথা থাকলেও শুরু থেকেই পদগুলো খালি রয়েছে। বর্তমানে বিএসএমএমসি হাসপাতালের অ্যানেসথেসিয়া বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. অনন্ত কুমার বিশ্বাস অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসেবে আইসিইউ বিভাগের ইনচার্জের ভূমিকা পালন করছেন।

jagonews24

তিনি জানান, সারাদেশে ৬ হাজার মেডিকেল কর্মকর্তা নিয়োগ হলেও সরকার সম্প্রতি মাত্র চারজন মেডিকেল কর্মকর্তাকে এই হাসপাতালে নিয়োগ দিয়েছে। আর সিভিল সার্জনের কার্যালয় থেকে উপজেলা পর্যায়ের চারজন মেডিকেল কর্মকর্তা এখানে কাজ করেন। নির্দিষ্ট সময় দায়িত্ব পালনের পরপরই কোয়ারেন্টাইনে যেতে হয় এসব চিকিৎসকদের। তাই ইনচার্জ ছাড়া একজন মাত্র মেডিকেল কর্মকর্তা দিয়েই কাজ চালাতে হয়। ফলে অনেক সমস্যায় পড়তে হয় রোগী ও চিকিৎসকদের।

jagonews24

বিএসএমএমসি হাসপাতালের পরিচালক ডা. মো. সাইফুর রহমান বলেন, ‘রোগীদের কথা বিবেচনা করে জনবল না থাকা সত্ত্বেও রোগীদের সর্বোচ্চ সেবা দেয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। তবে করোনার এই সময়ে প্রয়োজন অতিরিক্ত জনবল। দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের বৃহত্তর জনগোষ্ঠীর তুলনায় এই আইসিইউ শয্যার সংখ্যাও অপ্রতুল। এ ব্যাপারে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান জানাচ্ছি।

এন কে বি নয়ন/এসজে/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]