ভ্রাম্যমাণ আদালতকে ‘বোকা’ বানানোর চেষ্টা, ভুয়া কনের কারাদণ্ড

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি টাঙ্গাইল
প্রকাশিত: ১০:১০ পিএম, ০৯ অক্টোবর ২০২১
ফাইল ছবি

বাল্যবিয়ের খবর পেয়ে অভিযানে গিয়েছিলেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। তাদের দেখে কনের বাবা চালাকির আশ্রয় নেন। নিকটাত্মীয় এক তালাকপ্রাপ্ত তরুণীকে হাজির করেন কনে সাজিয়ে। তার কাগজপত্র দেখে ভ্রাম্যমাণ আদালত ফিরে আসার সিদ্ধান্ত নেন। কিন্তু পরে আবার সুনির্দিষ্ট তথ্য পেয়ে আদালত ফিরে যান বিয়ে বাড়িতে। তখন ধরা পড়ে কনের বাবার প্রতারণা। এই প্রতারণা ধরা পড়ার পর কনের বাবাকে সাতদিনের কারাদণ্ড এবং ভুয়া কনেকে পাঁচদিনের কারাদণ্ড দেন আদালত।

ঘটনাটি ঘটেছে টাঙ্গাইলে। শুক্রবার (৮ অক্টোবর) রাতে টাঙ্গাইল পৌরসভার কাগমারা এলাকার ওই বিয়ে বাড়িতে অভিযান চালিয়ে এ দণ্ডাদেশ দেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রানুয়ারা খাতুন।

দণ্ডিত কনের বাবার নাম আব্দুস ছাত্তার। আর ভুয়া কনের নাম এনি আক্তার। বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পাওয়া মেয়েটি টাঙ্গাইল সদর উপজেলার ধরেরবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী।

ওই প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম বলেন, শুক্রবার ইউএনও ওই ছাত্রীর বয়স সম্পর্কে তথ্য চেয়েছিলেন। পরে বিদ্যালয়ের ভর্তি রেজিস্টার অনুযায়ী ছাত্রীর তথ্য দেওয়া হয়।

ইউএনও এবং নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রানুয়ারা খাতুন বলেন, পৌরসভার কাগমারা এলাকার গাড়িচালক আব্দুস ছাত্তারের মেয়ে ধরেরবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির ওই শিক্ষার্থীর বিয়ে ঠিক হওয়ার খবর পেয়ে শুক্রবার সন্ধ্যায় সেই বাড়িতে উপস্থিত হই। তখন প্রতারণার আশ্রয় নেন মেয়ের বাবা। কনে সাজিয়ে তালাকপ্রাপ্ত আত্মীয় এনি আক্তারকে সামনে হাজির করেন। এসময় এনি আক্তার তার বিয়ে হচ্ছে বলে দাবি করেন। এনি আক্তারের কাগজপত্র যাচাই-বাছাই শেষে তার বয়স দেখা যায় ২১ বছর। বিয়ে বাড়ি থেকে চলে আসার পর আবার বিয়ের আয়োজন শুরু হয়।

‘পরে একটি মাধ্যমে নিশ্চিত হই যে, তারা প্রতারণা করেছে। ফের বিয়ে বাড়িতে গিয়ে মেয়েকে বাল্যবিয়ে দেবে না মর্মে মুচলেকা নিয়ে আব্দুস ছাত্তারকে সাতদিন ও ভুয়া কনে এনি আক্তারকে পাঁচ দিনের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। এরপর তাদের কারাগারে পাঠানো হয়’—যোগ করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

আরিফ উর রহমান টগর/আরএইচ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]