মির্জাপুরে স্ত্রীকে শ্বাসরোধে হত্যার অভিযোগ, স্বামী আত্মগোপনে

উপজেলা প্রতিনিধি উপজেলা প্রতিনিধি মির্জাপুর (টাঙ্গাইল)
প্রকাশিত: ০৯:০৪ এএম, ১৪ অক্টোবর ২০২১

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে পারিবারিক কলহের জেরে শ্বাসরোধে স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে গোলাম মোস্তফা বাপ্পী (২৩) নামের এক যুবকের বিরুদ্ধে। ঘটনার পর থেকেই বাপ্পী আত্মগোপনে রয়েছেন।

মঙ্গলবার রাতে উপজেলার গোড়াই টেকিপাড়া এলাকার একটি ভাড়া বাসায় এই ঘটনা ঘটে। বুধবার (১৩ অক্টোবর) পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করেছে।

নিহতের নাম লাবনী আক্তার (১৮)। তিনি গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার ছোটনারিচাগারি গ্রামের লাল মিয়ার মেয়ে।

পুলিশ জানায়, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার আখিরাপাড়া গ্রামের নাজিম উদ্দিনের ছেলে গোলাম মোস্তফা বাপ্পী প্রেমের সম্পর্ক করে গত চার মাস আগে লাবনীকে বিয়ে করেন। বিয়ের পর কিছুদিন তারা বাপ্পীর বড় ভাইয়ের বাড়িতে থাকেন। এরপর চাকরির উদ্দেশ্যে মির্জাপুরে আসেন তারা। পরে এক আত্মীয়ের মাধ্যমে বাপ্পী গোড়াই এলাকায় একটি কারখানায় চাকরি নেন। চাকরির পর গোড়াই টেকিপাড়া এলাকায় বাসা ভাড়া নিয়ে বসবাস শুরু করেন। এরমধ্যে শুরু হয় তাদের পারিবারিক কলহ।

পুলিশ আরও জানায়, মঙ্গলবার রাতে পানি আনতে দেরি হওয়ায় বাপ্পী লাবনীকে মারধর করেন। এরপর রাতের কোন এক সময় বাপ্পী লাবনীকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেন বলে দাবি করেন নিহতের আত্মীয়রা। তাদের দাবি, মঙ্গলবার দিবাগত রাত পৌনে চারটার দিকে বাপ্পী লাবনীর বড় ভাইকে ফোন করে জানান, লাবনী আত্মহত্যা করেছে। এরপর থেকেই বাপ্পী ফোন বন্ধ করে আত্মগোপনে রয়েছেন।

বিয়ের পর থেকে লাবনী ও বাপ্পীর মধ্যে ঝগড়া লেগেই থাকতো বলে পুলিশকে জানিয়েছেন লাবনীর বড় ভাই রায়হান মিয়া। তিনি বাদী হয়ে বাপ্পীকে আসামি করে হত্যা মামলা করেছেন।

দেওহাটা ফাঁড়ির উপপরিদর্শক (এসআই) আইয়ুব আলী জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে গলায় ওড়না পেঁচানো অবস্থায় লাবনীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। সুরতহাল রিপোর্ট ও ময়নাতদন্ত শেষে মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলার একমাত্র আসামি বাপ্পীকে গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

এস এম এরশাদ/কেএসআর/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]