কলেজের সামনে থেকে কিশোরীর গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি টাঙ্গাইল
প্রকাশিত: ০১:৩৪ পিএম, ২৭ অক্টোবর ২০২১

টাঙ্গাইলের কালিহাতীর এলেঙ্গায় এক কিশোরীর গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। একই স্থান থেকে গলাকাটা অবস্থায় আহত এক কিশোরকে উদ্ধার করে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

বুধবার (২৭ অক্টোবর) সকালে এলেঙ্গা পৌরসভার শামসুল হক কলেজের সামনে এ ঘটনা ঘটে। নিহত কিশোরীর নাম সুমাইয়া আক্তার (১৬)। সে কালিহাতী উপজেলার পালিমা গ্রামের ফেরদৌসুর রহমানের মেয়ে। সে এলেঙ্গা রানী উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণিতে পড়তো। আহত কিশোরের নাম মনির হোসেন (১৭)। সে এলেঙ্গা পৌর এলাকার মশাজান গ্রামের মেহের আলীর ছেলে। সে পেশায় বাস চালকের সহকারী।

নিহত সুমাইয়ার বাবা ফেরদৌসুর রহমান বলেন, সকাল ৬টায় প্রাইম একাডেমিতে প্রাইভেট পড়ার জন্য সুমাইয়া বাড়ি থেকে বের হয়। সকাল ৮টায় খবর পাই মেয়েকে কে বা কারা জবাই করে হত্যা করে লাশ ফেলে রেখেছে। তবে ঘটনাস্থলে পড়ে থাকা ছেলেকে চিনি না।

Tangail-Murder-pic-2.jpg

আহত মনিরের খালা রোজিনা বেগম বলেন, মঙ্গলবার (২৬ অক্টোবর) রাতে বাড়ি থেকে মনির বের হয়। এরপর থেকে তার খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। সকালে খবর পেয়ে মনিরকে গুরুতর আহত অবস্থায় টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক।

কালিহাতী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোল্লা আজিজুর রহমান জানান, সকালে স্থানীয় লোকজন শামসুল হক কলেজের সামনে গলাকাটা অবস্থায় কিশোর- কিশোরীকে পড়ে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেয়। পরে কিশোরীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এসময় ওই কিশোর জীবিত ছিল। পরে তাকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আহত কিশোরের ঘাড়সহ বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক। প্রেমঘটিত কোনো কারণে এ ঘটনা ঘটানো হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

আরিফ উর রহমান টগর/এএইচ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]