মির্জাপুরে আধাঘণ্টার ব্যবধানে ৭ গরুর মৃত্যু

উপজেলা প্রতিনিধি উপজেলা প্রতিনিধি মির্জাপুর (টাঙ্গাইল)
প্রকাশিত: ০৩:০৬ পিএম, ১৪ মে ২০২২
মির্জাপুরে আধাঘণ্টার মধ্যে মারা যায় গরুগুলো

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে আধাঘণ্টার ব্যবধানে প্রায় ১০ লাখ টাকা মূল্যের সাতটি গরুর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার (১৩ মে) রাতে মির্জাপুর পৌর এলাকার ৭নং ওয়ার্ড পাহাড়পুর গ্রামে ঘটনাটি ঘটে।

এ ঘটনায় এলাকার খামারিদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

জানা গেছে, প্রবাসী আমিনুর রহমানের স্ত্রী ইলা বেগম বিভিন্ন এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে পাঁচবছর আগে নিজ বাড়িতে একটি গরুর খামার করেন। তিনি নিজেই ঘাস রোপণ করাসহ কেটে এনে গরুগুলোকে খাওয়াতেন। খামারে দুধের গাভীসহ নয়টি গরু ছিল। প্রতিবছর এই খামার থেকে কোরবানির আগে ৩/৪টি ষাঁড় বিক্রি করেন তিনি। দুই বছর আগে তিন লাখ টাকা দিয়ে ফ্রিজিয়ান জাতের একটি গাভী কেনেন ইলা। ওই গাভী প্রতিদিন ১৫ লিটার দুধ দিতো। এতে তার সংসারের সচ্ছলতা আসে।

শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে হঠাৎ দুধের গাভীটি মারা যায়। এরপর আধাঘণ্টার মধ্যে একে একে একটি গর্ভবতী গাভীসহ আরও পাঁচটি ষাঁড়ের মৃত্যু হয়। একসঙ্গে সাতটি গরুর মৃত্যুতে ইলার প্রায় ১০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে।

৭নং ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর আলী আজম খান বলেন, আধাঘণ্টার মধ্যে ইলা বেগমের সাতটি গরুর মৃত্যুতে ওই গ্রামের অন্য খামারিদের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে।

খামারের মালিক ইলা বেগম বলেন, বিভিন্ন এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে পাঁচ বছর আগে খামারটি শুরু করি। খামারটিতে একটি দুধের গাভীসহ ৯টি গরু ছিল। আমার ছেলেমেয়ের মতো যত্ন নিয়ে গরুগুলো লালনপালন করতাম। আধাঘণ্টার মধ্যে সাতটি গরুর মৃত্যু হওয়ায় আমি সর্বস্বান্ত হয়েছি।

মির্জাপুর উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. সাইফুদ্দিন আহমেদ জানান, বৃষ্টির পরে গজানো ঘাসে নাইট্রিক অ্যাসিড থাকতে পারে। এ ধরনের ঘাস খেয়ে গরুগুলোর মৃত্যু হতে পারে। তবে প্রকৃত কারণ জানার জন্য মৃত গুরুর মাংস ঢাকায় পাঠানো হবে।

এস এম এরশাদ/এমআরআর/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]