‘শেখের বেটি প্রমাণ করে দিলেন, তিনি পারেন’

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি মুন্সিগঞ্জ
প্রকাশিত: ০৮:৪৪ এএম, ২৬ জুন ২০২২

‘উনি যে শেখের বেটি, তার কাজে সেটা প্রমাণ করে দিলেন। কত ষড়যন্ত্র করেছে, কত বাধা ছিলো কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর দৃঢ়তার কারণেই পদ্মা সেতু হয়েছে। উনি দেখিয়ে দিয়েছেন আমি শেখের বেটি, আমি পারি। আমরা অত্যন্ত গর্ববোধ করি তার জন্য।’

রোববার (২৬ জুন) সকালে যান চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হয় স্বপ্নের পদ্মা সেতু। বহুল প্রত্যাশিত এই মেগাস্ট্রাকচার উন্মুক্ত করে দেওয়ায় এভাবেই অভিব্যক্তি প্রকাশ করেন ঢাকার কেরানীগঞ্জ এলাকার আবুল হাসেম। উন্মুক্তের প্রথমদিনই উচ্ছ্বসিত আবুল হাসেম রোববার ভোরে সেতু দেখতে ছুটে আসেন স্বপরিবারে। সকালে মুন্সিগঞ্জের মাওয়া প্রান্তে টোল প্লাজায় তার সঙ্গে দেখা হয়।

Munsi-(3).jpg

আবুল হাশেম জাগো নিউজকে বলেন,সারারাত ধরেই চিন্তা করেছি কখন যাবো কখন যাবো। এত মানুষ আসবে জানলে আরো আগে রওনা হতাম। ভোরে নামাজ পড়ে রওনা হইছি। পদ্মা সেতু দেখার খুব ইচ্ছা ছিল। কালকেই আসতে চাইছিলাম কিন্তু কালকেতো আর উঠতে পারতাম না, তাই আজকে আসছি। দেখার মতো একটা স্থাপনা বানাইছে। এজন্য অনেক ধন্যবাদ প্রধানমন্ত্রীকে।

শুধু এক আবুল হাশেমই নয় এমনই উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন পদ্মা সেতুতে আসা প্রায় সবাই।

Munsi-(3).jpg

বহুল প্রতীক্ষার পর স্বপ্নের সেতু দিয়ে নদীর পারাপার হওয়ার আনন্দে বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাস দেখা যায় মুন্সিগঞ্জের মাওয়া টোল প্লাজায়। মোটরসাইকেল, ব্যক্তিগত গাড়ি, ট্রাক, প্রাইভেটকার, পিকআপসহ পদ্মা সেতু দেখতে আশা হাজার হাজার মানুষ টোল দিয়ে সেতুতে উঠছে। সবার হাসিমুখ। অনেকের মুখে আবার জয় বাংলা স্লোগান।

উদ্বোধনের প্রায় ১৮ ঘণ্টা পর রোববার (২৬ জুন) ভোর ৫টা ৪০মিনিটে যানবাহন চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয় স্বপ্নের পদ্মা সেতুর দ্বার। এর আগে শনিবার (২৫ জুন) বেলা ১১টা ৫৮ মিনিটে মুন্সিগঞ্জের মাওয়া প্রান্তে এ সেতুর ফলক উন্মোচন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আরাফাত রায়হান সাকিব/এফএ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]