নীলকমল নদীতে নিখোঁজ ২ শিশুর মরদেহ নিয়ে গেলো বিএসএফ

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি কুড়িগ্রাম
প্রকাশিত: ০৭:৪২ পিএম, ০৩ জুলাই ২০২২

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী সীমান্ত দিয়ে দেশে ফেরার সময় নীলকমল নদীতে নিখোঁজ দুই শিশুর মরদেহ উদ্ধার করেছে বিএসএফ।

রোববার (৩ জুলাই) দুপুরে উপজেলার কাশিপুর ইউনিয়নের পশ্চিম ধর্মপুর এলাকা থেকে মরদেহ উদ্ধারে করে নিয়ে যান।

মৃতরা হলো- পারভীন (৮) ও সাকিবুর (৬)। তারা কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার পশ্চিম সুখাতি গ্রামের রহিজ উদ্দিন ও সামিনা বেগম দম্পতির সন্তান।

স্থানীয়রা জানান, ১৬ বছর আগে রহিজ উদ্দিন ও তার স্ত্রী সামিনা খাতুন ভারতের হরিয়ানা রাজ্যের সুলতানপুরে ইটভাটায় কাজ করতে যান। সেখানেই তাদের দুই সন্তানের জন্ম হয়। বাবা-মা বাংলাদেশি হলেও শিশুদের জন্ম ভারতে হওয়ায় তাদের নাগরিকত্বের কোনো প্রমাণপত্র দেখাতে না পারায় বিএসএফ মরদেহ ভারতে নিয়ে যায়।

শিশুদের চাচা আজিজুল হক জানান, হরিয়ানা রাজ্যের সুলতানপুর এলাকার একটি ইটভাটায় কাজ শেষে দালালের মাধ্যমে বাংলাদেশে প্রবেশের জন্য গভীর রাতে তাদের সীমান্তে আনা হয়। টের পেয়ে বিএসএফ ধাওয়া দিলে দুই সন্তানকে নিয়ে সাঁতরে নদী পার হওয়ার চেষ্টা করেন সামিনা বেগম। তীব্র স্রোতের কারণে হাত ফসকে দুই শিশু নদীতে নিখোঁজ হয়। দুইদিন পর তাদের মরদেহ ভেসে ওঠে।

শিশুদের বাবা রহিজ উদ্দিন জানান, পরিবার নিয়ে নিরাপদে দেশে ফেরার জন্য ভারতীয় দালালদের ২২ হাজার রুপি ও দেশের দালালরা ৪০ হাজার রুপি নিয়েছেন। শুক্রবার রাতে তাদের সীমান্তে কোনো এক বাড়িতে রাখেন দালালরা। সেখানে আরও ২০-২৫ জন নারী-পুরুষ ছিল। গভীর রাতে নদীর পাড়ে এনে ভারতীয় দালাল সিরাজুল ইসলাম, নয়ন মিয়া ও ময়না মিয়া আরও বাংলাদেশি ১০ হাজার টাকা নেন।

তিনি আরও জানান, নীলকমল নদীর পাড়ে আসার কিছুক্ষণ পর বিএসএফ সদস্যরা ধাওয়া দেয়। সামিনা আক্তার দুই সন্তানকে নিয়ে নদীতে নামেন। কিন্তু তারা কেউই সাঁতার জানে না। স্রোতের টানে সন্তানরা নিখোঁজ হয়ে যায়। আজ তাদের মরদেহ খুঁজে পেলেও বিএসএফ তাদের নিয়ে যায়।

এ বিষয়ে লালমনিহাটের ১৫ বিজিবি কাশিপুর ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার সুবেদার কবির হোসেন জানান, পরিবারের পক্ষ থেকে তাদের বাংলাদেশি নাগরিকত্বের প্রমাণপত্র দেখাতে না পারায় বিএসএফ নীলকমল নদী থেকে শিশু দুটির মরদেহ উদ্ধার করে নিয়ে গেছে। এ নিয়ে দুই দেশের কোম্পানি পর্যায়ে পতাকা বৈঠক হয়।

মাসুদ রানা/আরএইচ/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]