ঈদে বিক্রি হয়নি ‘বড় সাহেব’, কেজি দরে বেচতে মাইকিং

উপজেলা প্রতিনিধি উপজেলা প্রতিনিধি ভৈরব (কিশোরগঞ্জ)
প্রকাশিত: ১১:৩১ এএম, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২
কেজি দরে বিক্রি হবে বড় সাহেব

কিশোরগঞ্জের ভৈরবে কোরবানির ঈদে বিক্রি না হওয়া ৩৭ মণ ওজনের ‘বড় সাহেব’কে জবাই করা হবে। তাই এ গরুর মাংস কেজি দরে বিক্রির জন্য প্রতিদিন উপজেলার সাদেকপুর ইউনিয়নের গ্রামগুলোতে মাইকিংও করা হচ্ছে।

ইউনিয়নের রসুলপুর গ্রামের প্রবাসফেরত শরীফুজ্জামান গড়ে তোলেন গরুর খামার। সেই খামারের একটি গাভী থেকে একটি ষাঁড়ের জন্ম হয়। আদর করে যার নাম দেওয়া হয় ‘বড় সাহেব’। তিন বছর ধরে প্রাকৃতিক উপায়ে পালন করা হয়েছে গরুটি। এর ওজন এখন ৩৭ মণ।

গত কোরবানির ঈদে দাম-দরে না মেলায় বিশাল আকৃতির এ গরু বিক্রি করতে পারেননি মালিক। আগামী ২৯ সেপ্টেম্বর সকালে জবাই করে গ্রামবাসীর মাঝে গরুটির মাংস কেজি দরে বিক্রি করা হবে। তাই গ্রামে গ্রামে মাইকিংয়ের মাধ্যমে প্রচার চালানো হচ্ছে। এছাড়া ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও সরব প্রচার চলছে।

goru1

স্থানীয় বাসিন্দা কাউছার আলম বলেন, এত বড় একটি গরুর মাংস খাওয়াও ভাগ্যের ব্যাপার। সর্বসাধারণ যাতে বড় গরুর মাংস কিনতে পারে এর জন্য গরুটি জবাই করা হবে। তাই মাইকিং করে সবাইকে জানানো হচ্ছে। যাদের মাংসের প্রয়োজন তারা মালিকের সঙ্গে যোগাযোগ করে তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হবেন।

খামারি শরীফুজ্জামান বলেন, গত কোরবানির ঈদে ক্রেতাদের সঙ্গে দাম-দরে হয়নি। তাই ঈদের হাটে গরুটি বিক্রি করতে পারিনি। তবে বয়স বেড়ে যাওয়ায় বিশাল গরুটি জবাই করে মাংস বিক্রির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এজন্য বিভিন্ন গ্রামে মাইকিং করা হচ্ছে। তবে বড় সাহেবের মাংস প্রতি কেজি ৭০০ টাকা দরে বিক্রি জন্য দাম নির্ধারণ করা হয়েছে। যদি সম্পূর্ণ গরুর মাংস এ দামে বিক্রি করা যায় তাহলে ১০ লাখ ৩৬ হাজার টাকা পাওয়া যাবে।

রাজীবুল হাসান/এসজে/বিএ/এমএস

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।