ভুরুঙ্গামারীতে এসএসসির প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনায় ফের তদন্ত

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ০৯:০৬ পিএম, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২

কুড়িগ্রামের ভুরুঙ্গামারীতে এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনায় মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিপ্তরের রংপুর অঞ্চলের পরিচালকের নেতৃত্বে একটি তদন্ত টিম পুনরায় সরেজমিনে তদন্তে করেছেন। মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের পক্ষে তারা এ তদন্ত কার্যক্রম পরিচালনা করছেন বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

সূত্র জানায়, বুধবার (২৮ সেপ্টেম্বর ) দুপুরে ভুরুঙ্গামারী নেহাল উদ্দিন পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় পরীক্ষা কেন্দ্রে তদন্ত অনুষ্ঠানে রংপুর অঞ্চলের পরিচালক আব্দুল মতিন, উপ-পরিচালক মো. আখতারুজ্জামান, জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মো. শামছুল আলম উপস্থিত হয়ে বরখাস্ত করা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুর রহমান, সহকারী মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সাজ্জাদ হোসেন, বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি এ কে এম মাহমুদুর রহমান রোজেন, ওই কেন্দ্রের কেন্দ্র সচিব ও ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক খলিলুর রহমান পলাশ, পাশের পরীক্ষা কেন্দ্র ভুরুঙ্গামারী পাইলট সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও ওই কেন্দ্রের কেন্দ্র সচিব মো. শাহজাহান আলী এবং নেহাল উদ্দিন পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের জিজ্ঞাসাবাদ করেন।

এর আগে গত ২২ সেপ্টেম্বর দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ডের গঠিত তিন সদস্যের তদন্ত টিম প্রশ্নপত্র ফাঁসের বিষয়ে তদন্তে এসেছিলেন।

এদিকে, প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনায় প্রশ্নপত্র বাতিল হওয়া দুটি বিষয়ের মধ্যে প্রথম পরীক্ষা (জীব বিজ্ঞান বিষয়ে) বুধবার অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলার চারটি পরীক্ষাকেন্দ্রে ৬৪৯ জন পরীক্ষার্থী এ বিষয়ে পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে।

প্রশ্নপত্র বাতিল হওয়া উচ্চতর গণিত বিষয়ের পরীক্ষা আগামী শনিবার অনুষ্ঠিত হবে। আর স্থগিত হওয়া চারটি বিষয়ের পরীক্ষা পরিবর্তিত রুটিন অনুযায়ী অনুষ্ঠিত হবে।

প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনায় গত ২০ সেপ্টেম্বর ভুরুঙ্গামারী নেহাল উদ্দিন পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও কেন্দ্র সচিব লুৎফর রহমানকে আটক করা হয়। পরে ওই কেন্দ্রের ট্যাগ অফিসার ও উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা আদম মালিক চৌধুরী বাদী হয়ে চারজনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতনামা ১০/১২ জনকে আসামি করে একটি মামলা করেন। এ ঘটনায় ছয় আসামি গ্রেফতার হলেও এজাহারভুক্ত আসামি অফিস সহকারী আবু হানিফ পলাতক আছেন। পুলিশ জানিয়েছে, কেন্দ্র সচিব ও প্রধান শিক্ষকের রিমান্ডের আবেদন জানানো হয়েছে, বৃহস্পতিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) এ বিষয়ে শুনানি রয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে ভুরুঙ্গামারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বিপুল কুমার দেব শর্মার মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

তবে কুড়িগ্রাম জেলা শিক্ষা অফিসার মো. শামছুল আলম বলেন, এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁসের ঘটনায় পুনরায় তদন্ত করতে শিক্ষা বিভাগের কর্মকর্তারা এসেছিলেন। তারা তদন্ত করে চলে গেছেন। যেহেতু এটা শিক্ষা বিভাগের অভ্যন্তরীণ বিষয় এবং আমি তদন্ত বোর্ডের কোনো সদস্য নই তাই এ বিষয়ে কিছু বলতে পারছি না।

এমআরআর/জিকেএস

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।