দেড় শতাংশ প্রধান সূচক ফিরে পেল ডিএসই

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩:৪৬ পিএম, ২২ জুন ২০১৮

রোজার পর শেয়ারবাজারে মন্দাভাব কিছুটা কেটেছে। ঈদের পর লেনদেন হওয়া চার কার্যদিবসের মধ্যে তিন দিনই ঊর্ধ্বমুখী ছিল বাজার। ফলে গত সপ্তাহে সবকটি মূল্য সূচকের বড় উত্থান হয়েছে।

এতে টানা পতনের পর এক সপ্তাহেই ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান মূল্য সূচক বেড়েছে প্রায় দেড় শতাংশ। মূল্য সূচকের বড় উত্থানের পাশাপাশি বেড়েছে লেনদেনের পরিমাণ। সেই সঙ্গে বেড়েছে বাজার মূলধন।

সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস শেষে ডিএসইর বাজার মূলধন দাঁড়িয়েছে তিন লাখ ৮৭ হাজার ৭৭৫ কোটি টাকা। যা তার আগের সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে ছিল তিন লাখ ৭৯ হাজার ৯০০ কোটি টাকা। অর্থাৎ এক সপ্তাহেই সাত হাজার ৮৭৫ কোটি টাকা বাজার মূলধন ফিরে পেয়েছে ডিএসই।

এদিকে গত সপ্তাহজুড়ে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স বেড়েছে ৭৬ দশমিক ৫৪ পয়েন্ট বা ১ দশমিক ৪৩ শতাংশ। আগের সপ্তাহে এ সূচকটি কমে ১ দশমিক ৪৫ পয়েন্ট বা দশমিক শূন্য ৩ শতাংশে দাঁড়িয়েছিল।

অপর দুটি সূচকের মধ্যে গত সপ্তাহে ডিএসই-৩০ বেড়েছে ২৩ দশমিক ৫৯ পয়েন্ট বা ১ দশমিক ২০ শতাংশ। আগের সপ্তাহে এ সূচকটি কমে ১৯ দশমিক ৮৭ পয়েন্ট বা ১ শতাংশ।

প্রধান সূচক ও বাছাইকৃত সূচকের পাশাপাশি ডিএসই শরিয়াহ্ সূচক গত সপ্তাহে বেড়েছে ২৫ দশমিক ২৭ পয়েন্ট বা ২ দশমিক শূন্য ৪ শতাংশ। আগের সপ্তাহে এই সূচকটি বাড়ে দশমিক ১৪ পয়েন্ট বা দশমিক শূন্য ১ শতাংশ।

গত সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে লেনদেন হওয়া ৩৪২টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের মধ্যে ২০৯টির দাম আগের সপ্তাহের তুলনায় বেড়েছে। কমেছে ১০৫টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৮টির দাম।

বেশি সংখ্যাক কোম্পানির শেয়ার দাম বাড়ার পাশাপাশি গত সপ্তাহে লেনদেনের পরিমাণ বেড়েছে। সপ্তাহের প্রতি কার্যদিবসে ডিএসইতে গড়ে লেনদেন হয়েছে ৬৬৪ কোটি ৩৫ লাখ টাকা। আগের সপ্তাহে প্রতিদিন গড়ে লেনদেন হয় ৪৩৮ কোটি ৫৩ লাখ টাকা। অর্থাৎ প্রতি কার্যদিবসে গড় লেনদেন বেড়েছে ২২৫ কোটি ৮২ লাখ টাকা বা ৫১ দশমিক ৪৯ শতাংশ।

আর গত সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে দুই হাজার ৬৫৭ কোটি ৪১ লাখ টাকা। আগের সপ্তাহে লেনদেন হয় এক হাজার ৩১৫ কোটি ৬০ লাখ টাকা। সে হিসাবে মোট লেনদেন বেড়েছে এক হাজার ৩৪১ কোটি ৮১ লাখ টাকা।

গত সপ্তাহে মোট লেনদেনের ৯১ দশমিক ১৩ শতাংশই ছিল ‘এ’ ক্যাটাগরিভুক্ত কোম্পানির শেয়ারের দখলে। বাকি ৫ দশমিক শূন্য ৬ শতাংশ ‘বি’ ক্যাটাগরিভুক্ত, ২ দশমিক ৮৩ শতাংশ ‘এন’ ক্যাটাগরিভুক্ত কোম্পানির শেয়ারের এবং দশমিক ৯৮ শতাংশ ‘জেড’ ক্যাটাগরিভুক্ত কোম্পানির শেয়ারের।

সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে টাকার অঙ্কে সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে আলিফ ইন্ডাস্ট্রিজের শেয়ার। কোম্পানিটির ১৩৬ কোটি ৮৬ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। যা সপ্তাহজুড়ে হওয়া মোট লেনদেনের ৫ দশমিক ১৫ শতাংশ।

দ্বিতীয় স্থানে থাকা খুলনা পাওয়ার কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ১১১ কোটি ২০ লাখ টাকা, যা সপ্তাহের মোট লেনদেনের ৪ দশমিক ১৮ শতাংশ। ১০৯ কোটি ৮২ টাকার শেয়ার লেনদেনে তৃতীয় স্থানে রয়েছে গ্রামীণ ফোন।

লেনদেনে এরপর রয়েছে- ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন, ফার্মা এইড, প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল, ওয়েস্টার্ণ মেরিন শিপয়ার্ড, বেক্সিমকো, মুন্নু সিরামিক এবং ওসমানিয়া গ্লাস।

এমএএস/এএইচ/পিআর