বদলি বিধান রেখে কারিগরি ও মাদরাসা এমপিও নীতিমালা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:৪৩ পিএম, ২২ জুলাই ২০১৮
ছবি-ফাইল

বেসরকারি শিক্ষকদের বদলির বিধান রেখে কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের এমপিও নীতিমালা জারি করা হয়েছে। এ দুটি নীতিমালায় শিক্ষক যোগদানের বয়সসীমা ৩৫ বছর নির্ধারণ করা হয়েছে। রোববার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদরাসা বিভাগের সচিব মো. আলমগীরের স্বাক্ষরিত ওয়েবসাইটে এ সংক্রান্ত আলাদা দুটি এমপিও নীতিমালা প্রকাশ করা হয়েছে।

নীতিমালায় দেখা গেছে, ‘বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান (মাদরাসা) জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা, ২০১৮’ এবং ‘বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান (কারিগরি) জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা, ২০১৮’ নামকরণ করা হয়েছে। দু’টি নীতিমালাতেই শিক্ষক-কর্মচারী বদলির ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। তবে নতুন করে বদলি নীতিমালা করে শিক্ষক-কর্মচারী বদলি করবে সরকার।

এর আগে গত ১২ জুন স্কুল ও কলেজকে এমপিও দিতে ‘বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান (স্কুল ও কলেজ) জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা, ২০১৮’ জারি করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ।

কারিগরি ও মাদরাসা নীতিমালায় বলা হয়েছে, এই দুই স্তরের শিক্ষক নিয়োগে প্রবেশের বয়সসীমা ৩৫ নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে ইনডেক্সধারীদের ক্ষেত্রে এ নিয়ম শিথিল করা হয়েছে। সরকারি চাকরি বিধি মোতাবেক ৬০ বছর পর্যন্ত তারা শূন্য আসনে যোগদান করতে পারবেন। এই নীতিমালার আদলেই কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষক নিয়োগের বিধান রেখেই জন্য আলাদা দু’টি নীতিমালা জারি করা হয়েছে। কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষক-কর্মচারীদের বদলি ব্যবস্থা রাখা হয়েছে নীতিমালায়। দুটি নীতিমালাতেই বলা হয়েছে, সরকার এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের প্রয়োজনবোধে নীতিমালা প্রণয়নের মাধ্যমে এক প্রতিষ্ঠান থেকে অন্য প্রতিষ্ঠানে বদলি করতে পারবে।

আরও বলা হয়েছে, কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নিয়োগের ক্ষেত্রে নির্ধারিত কাঙ্ক্ষিত যোগ্যতার ক্ষেত্রে বলা, সমগ্র শিক্ষা জীবনে প্রযোজ্য ক্ষেত্রে একটি তৃতীয় বিভাগ বা শ্রেণি বা সমমান গ্রহণযোগ্য হবে। নারী কোটা মানার বাধ্যবাধকতা আরোপ করা হয়েছে দু’টি নীতিমালাতেই।

মাদরাসা এমপিও নীতিমালায় নতুন পদ সৃষ্টি করা হয়েছে। দাখিল মাদরাসার জন্য সুপারসিনডেন্ট, সরকারি সুপারিনটেডেন্ট, সহকারী মৌলভীসহ বিষয় ভিত্তিক সহকারী শিক্ষক কর্মচারী মিলে মোট ২৬টি পদ সৃষ্টি করা হয়েছে। আলিম মাদরাসার জন্য অধ্যক্ষ, উপাধ্যক্ষ, বিষয়ভিত্তিক প্রভাষক, সহকারী শিক্ষক কর্মকর্তা-কর্মচারী মিলে ৩৪টি এবং ফাজিল স্তরে ৩৫টি এবং কামিল মাদরাসার জন্য ৪৩টি পদ সৃষ্টি করা হয়েছে।

অন্যদিকে, কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে স্বতন্ত্র মাধ্যমিক কারিগরি ও ভোকেশনাল ইনস্টিটিউটে সুপারিনটেনডেন্ট, ট্রেড ইন্সট্রাক্টর, বিষয়ভিত্তিক সহকারী শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ ১৯টি পদ, সংযুক্ত মাধ্যমিক কারিগরি ও ভোকেশনাল ইনস্টিটিউটের জন্য ট্রেড ইন্সট্রাক্টর, বিষয়ভিত্তিক সহকারি শিক্ষক-কর্মচারীসহ নয়জন এবং স্বতন্ত্র উচ্চ মাধ্যমিক কারিগরি ও ভোকেশনাল ইনস্টিটিউটের জন্য অধ্যক্ষ, চিফ ইন্সট্রাক্টর টেক/ননটেক, ইন্সট্রাক্টর (টেক), বিভিন্ন ট্রেডের শিক্ষক-কর্মচারীসহ ২০টি পদ সৃষ্টি করা হয়েছে।

নীতিমালায় দেখা গেছে, কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির জন্য সাধারণ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মতো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তি যোগ্যতা নির্ণয় করা হয়েছে। ইনডেক্স নম্বর বা নিবন্ধন সনদ ছাড়া কাউকে নিয়োগ দেয়া যাবে না। নিয়োগে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ) এ’র মেধাক্রম/মনোনয়ন/নির্বাচন বাধ্যতামূলক করা হয়েছে নীতিমালায়। অনলাইন আবেদনের ভিত্তিতে তথ্য-উপাত্ত যাচাই-বাছাই করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তি করা হবে।

এ বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (মাদরাসা) রওনক মাহমুদ জাগো নিউজকে বলেন, কারিগরি ও মাদরাসা বিভাগে আলাদা দুটি এমপিও নীতিমালা জারি করা হয়েছে। রোববার রাতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে তা প্রকাশ হয়েছে। আগামী সপ্তাহে থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির জন্য অনলাইন আবেদন কার্যক্রম শুরু করা হতে পারে।

তিনি বলেন, বেসরকারি এমপিও নীতিমালার সঙ্গে মাদরাসা ও কারিগরি নীতিমালায় সার্বিক মিল থাকলেও এতে শিক্ষকদের নতুন পদ সৃজন করা হয়েছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির পর সেসব প্রতিষ্ঠানে এসব শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে।

উল্লেখ্য, গত ১২ জুন মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ ‘বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান (স্কুল ও কলেজ) -এর জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা-২০১৮’ জারি করে। ওই নীতিমালায় শিক্ষকদের নিয়োগের ক্ষেত্রে বয়সসীমা নির্ধারণ করা হয় ৩৫ বছর। পাশাপাশি বদলির ব্যবস্থাও রাখা হয়। কিন্তু ‘বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান (কারিগরি ও মাদরাসা)-এর জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা-২০১৮’ চূড়ান্ত করে বয়সসীমা নির্ধারণ না করায় বিতর্ক দেখা দেয়। প্রশ্ন ওঠে দেশের স্কুল কলেজের শিক্ষকদের নিয়োগ পেতে বয়স ৩৫ বছর থাকবে আর কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষকদের নিয়োগে কোনো বাধ্যবাধকতা থাকবে না সমমানের পদে নিয়োগে এই নিয়ম অনৈতিক। বিষয়টি নিয়ে বিতর্ক উঠলে তা পরিবর্তন করে নতুন করে বয়সসীমা ৩৫ আরোপ করে কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষার জন্য আলাদা দুটি নীতিমালা জারি করা হয়েছে।

কারিগরি এমপিও নীতিমালা
মাদরাসা এমপিও নীতিমালা

এমএইচএম/জেএইচ/জেআইএম

আপনার মতামত লিখুন :