ইউটিউবের হুমকিতে ঈদের নাটক, এবার মুক্তি পাচ্ছে সিনেমাও

বিনোদন প্রতিবেদক
বিনোদন প্রতিবেদক বিনোদন প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫:২০ পিএম, ৩০ মে ২০১৯

ঈদ বিনোদনের অন্যতম মাধ্যম হচ্ছে টেলিভিশন। ছুটির দিনগুলোতে পরিবারের সবাইকে নিয়ে আয়োজন করে টিভি দেখতে বসা এই দেশের বিনোদনের একটা চিরচেনা সংস্কৃতি। তাই ঈদকে কেন্দ্র করে দেশের টেলিভিশন চ্যানেলগুলো সাজায় ভিন্ন স্বাদের নানা ঈদ অনুষ্ঠানের পসরা। কিন্তু ঈদ আয়োজনে নানা বর্ণিল অনুষ্ঠান সাজিয়েও বিভিন্ন কারণে দর্শক ও জনপ্রিয়তা ঠিক তেমনভাবে পাচ্ছে না টেলিভিশন চ্যানেলগুলো।

বিজ্ঞাপন বিড়ম্বনা, বাজেট সংক্রান্ত জটিলতা, অনুষ্ঠান ও নাটক-টেলিছবির মানহীনতায় বিরক্ত দর্শক। তারা তাই ঝুঁকছেন ইউটিউবে। সেখানেই খুঁজে নিচ্ছেন আলোচিত বিনোদন। দেখছেন প্রিয় তারকার প্রিয় নাটক ও অনুষ্ঠান।

গেল কয়েক বছরে দেখা গেছে টিভির চেয়ে ইউটিউবেই বেশি জমে উঠছে ঈদ। সেখানেই নাটক-টেলিছবির দর্শক সাড়া বেশি। বিভিন্ন এজেন্সিগুলো ইউটিউবে মনযোগী হচ্ছে। অনেক নির্মাতা ও প্রযোজক ব্যক্তি উদ্যোগে গড়ে তুলছেন ইউটিউব চ্যানেল।

জি-সিরিজ, সিএমভি, ধ্রুব মিউজিক স্টেশনের মতো গান থেকে মিউজিক ভিডিও প্রযোজনায় আসা প্রতিষ্ঠানগুলোও ঈদ উপলক্ষে তাদের ইউটিউব চ্যানেলের জন্য নাটক-টেলিফিল্ম নির্মাণে মজেছে।

ইউটিউব চ্যানেলের এই রাজত্ব দেখে টেলিভিশন চ্যানেলগুলোও ইউটিউবকে প্রাধান্য দিচ্ছে। প্রায় প্রতিটি চ্যানেলেরই নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেল রয়েছে। টিভিতে প্রচারের পর সেগুলোতে আপলোড হচ্ছে নাটক-টেলিছবি বা অনুষ্ঠান।

গেল বছরগুলোর সাফল্যের উৎসাহে আসছে ঈদ উপলক্ষেও ইউটিউবকে ঘিরে ঈদের বিনোদন আয়োজন করা হয়েছে। এরইমধ্যে বিভিন্ন এজেন্সি, সংগীত প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান, নির্মাতা-প্রযোজকরা তাদের চ্যানেলের জন্য শ-খানেক নাটক নির্মাণ করেছেন। বলা চলে টেলিভিশনের তুলনায় এবার ইউটিউবের দখলে থাকবে নাটক।

অনেকে ওয়েব সিরিজও নির্মাণ করছেন সিনেমার আদলে। সেখানে যেমন রয়েছে বাজেটের চমক তেমনি আছে তারকাদের উপস্থিতিও।

অনুসন্ধান করে দেখা গেল নানা কারণেই নির্মাতা, প্রযোজক ও শিল্পীদের কাছে টিভির চেয়ে বর্তমানে ইউটিউবের জনপ্রিয়তা বেশি। কারণ ইউটিউবের নির্মাণের জন্য পরিমাণ মতো বাজেট মিলছে সহজেই। টিভি চ্যানেলের মালিকরা নাটক নির্মাণের চাহিদা অনুযায়ী বাজেট দিতে চান না। সেক্ষেত্রে ইউটিউবের জন্য নির্মাতাদের মোটা অংকের বাজেটে দিচ্ছেন প্রযোজকরা।

অনেক অভিনেতা-অভিনেত্রীও নাটক-টেলিছবির প্রযোজনায় যুক্ত হচ্ছেন গোপনে। তারা প্রিয় নির্মাতাদেরকে দিয়ে ইউটিউবের জন্য কনটেন্ট তৈরি করে তা বিক্রি করে দিচ্ছেন। এতে নির্মাতারা স্বাধীনভাবে কাজ করার সুযোগ পান। পাশাপাশি নাটক বিক্রি করার জন্য এর ওর অফিসে ধর্নাও দিতে হয় না তাদের। ফেসবুক বা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কাজের প্রমো দেখেই ইউটিউব চ্যানেলের মালিকরা সেগুলো কিনে নিয়ে যাচ্ছেন।

এখন পর্যন্ত আসছে ঈদে ইউটিউবে প্রচার হওয়ার তালিকায় আছে অপূর্ব, তানজিন তিশা, সজল, মম, আফরান নিশো, মেহজাবীন চৌধুরী, সাবিলা নূর, আ খ ম হাসান, মোশাররফ করিম, চঞ্চল চৌধুরী, তিশাসহ দেশের জনপ্রিয় তারকাদের অনেক নাটক-টেলিছবি ও ওয়েব সিরিজ।

তবে এবারের ঈদে ইউটিউব নতুন দিগন্ত খুলে দিচ্ছে বাংলাদেশে। এই প্রথমবার জনপ্রিয় এই ডিজিটাল প্লাটফর্মে মুক্তি পেতে যাচ্ছে কোনো নতুন চলচ্চিত্র। আসছে ঈদ উপলক্ষে ইউটিউবে মুক্তি পাবে চিত্রনায়িকা পপির ‘দি ডিরেক্টর’। যেখানে তার বিপরীতে রয়েছেন মারজুক রাসেলকে। সিনেমাটি পরিচালনা করেছেন কামরুজ্জামান কামু।

দিনে দিনে টিভির দর্শক এখন ইউটিউবনির্ভর! টিভির মানুষগুলোও ইউটিউবনির্ভর হয়ে উঠেছেন। এভাবে চলতে থাকলে দেশে টিভি ইন্ডাস্ট্রির অবস্থান নিয়ে হতাশার সুরই বেজে উঠবে। তবে জনপ্রিয় অভিনেতা, নির্মাতা ও প্রযোজক গাজী রাকায়েত মনে করেন, ‘ইউটিউব টিভির চেয়ে বেশি জনপ্রিয় হতেই পারে। কিন্তু টিভির যে একটা পারিবারিক আমেজ, বন্ধনের আবহ সেটা ইউটিউব দিতে পারবে না। টিভি চ্যানেলগুলো একটু সচেতন হলে, ভালো কিছু কৌশল অবলম্বন করতে পারলে দৃশ্যপট বদলাবে।’

এলএ/পিআর

বিনোদন, লাইফস্টাইল, তথ্যপ্রযুক্তি, ভ্রমণ, তারুণ্য, ক্যাম্পাস নিয়ে লিখতে পারেন আপনিও - [email protected]

আপনার মতামত লিখুন :