অবশেষে দাফন হচ্ছে মিনু মমতাজের, পাশে ছিলো শিল্পী সংঘ

বিনোদন প্রতিবেদক
বিনোদন প্রতিবেদক বিনোদন প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০১:২৫ পিএম, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০

অনেক দিন থেকে কিডনি এবং চোখের সমস্যায় ভুগছিলেন অভিনেত্রী মিনু মমতাজ। অবশেষে না ফেরার দেশে পাড়ি জমিয়েছেন তিনি। আজ মঙ্গলবার (২২ সেপ্টেম্বর) দুপুর ১টায় রাজধানীর গ্রীন লাইফ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি।

গ্রীন লাইফ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জাগো নিউজকে নিশ্চিত করে জানিয়েছে, ৬৬ বছর বয়সী এই অভিনেত্রী করোনায় আক্রান্ত ছিলেন।

এদিকে অভিনেত্রীর মৃত্যুর ২৪ ঘণ্টা পর আজ বুধবার (২৩ সেপ্টেম্বর) দুপুর ১টায় খোঁজ নিতে গিয়ে দেখা গেল এখনো মর্গে পড়ে আছে এই অভিনেত্রীর মরদেহ। জানা যায় করোনায় আক্রান্ত মিনু মমতাজকে ৪ সেপ্টেম্বর থেকে ২২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। করোনায় আক্রান্ত হবার পর তাকে প্রায় ১০ দিন আইসিইউতে রেখে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। এ বাবদ হাসপাতালের বিল বকেয়া ছিলো ৩ লাখ ৪০ হাজার টাকা। সে টাকা শোধ করে গতকাল তার মরদেহ নিতে যাননি অভিনেত্রীর পরিবারের কেউ।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, অভিনেত্রীর দুই পুত্রের একজন থাকেন আমেরিকায়। আরেকজন মানসিক ভারসাম্যহীন। তার পক্ষে এত টাকা বিল মিটিয়ে মায়ের মরদেহ হাসপাতাল থেকে নেয়ার সামর্থ্য নেই। যার ফলে মৃত্যুর পরও ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে অভাব-অনটনে শেষ জীবন কাটানো মিনু মমতাজকে।

তবে আজ বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) অভিনেত্রীর ভাগ্নি রওশনের পুত্র সৌরভের তত্ত্বাবধানে তার সৎকার হতে চলেছে। সৌরভ জাগো নিউজকে দুপুর ১টা ৫ মিনিটে বলেন, ‘নানুকে কিছুক্ষণের মধ্যেই হাসপাতাল থেকে বের করা হবে। এখানেই তার গোসল ও জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। যেহেতু তিনি করোনায় আক্রান্ত ছিলেন তাই কিছু বিধি নিষেধ মানতে হচ্ছে। নানুর দাফনের দায়িত্ব নিয়েছে স্বেচ্ছ্বাসেবী সংগঠন আল রশিদ ফাউন্ডেশন।

আসলে নানুর দুই ছেলের একজন থাকেন বিদেশে আরেকজন দেশে থাকলেও তিনি মানসিকভাবে অসুস্থ। তার পক্ষে এত বড় বিল পরিশোধ করা সম্ভব ছিলো না। সেজন্য এই ভোগান্তিটা হলো। তিনি তার মায়ের পাশেই রয়েছেন।’

হাসপাতালের বকেয়া বিলের প্রসঙ্গে সৌরভ বলেন, ‘হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এখানে মানবিকতা দেখিয়েছেন। তারা বিলে কিছু ছাড় দিয়েছেন। বাকি যেটা ছিলো সেটা আমরা ও অভিনয় শিল্পী সংঘ মিলে বহন করেছি। আমি গ্রিন লাইফ হাসপাতাল ও শিল্পী সংঘের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই তারা আমার নানুর পাশে দাঁড়িয়েছেন। সেইসঙ্গে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে কৃতজ্ঞতা জানাই তিনি জীবদ্দশায় আমার নানুর পাশে ছিলেন, তার চিকিৎসার জন্য ৫ লাখ টাকার অনুদান দিয়েছিলেন। খুব ভালো একজন মানুষ ছিলেন নানু। সবার কাছে তার জন্য দোয়া চাইছি আমরা।’

তিনি জানিয়েছেন, আজ বুধবার বাদ আসর মিনু মমতাজককে মিরপুরের বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে দাফন করা হবে।

এলএ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]