উত্তর-দক্ষিণের বরফ গলছে?

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০১:৫২ পিএম, ০৯ জানুয়ারি ২০১৮

অবশেষে দুই কোরিয়ার মধ্যে সম্পর্কের বরফ গলতে যাচ্ছে। দুই বছরের বেশি সময় পর সকাল ১০টায় উত্তর ও দক্ষিণ কোরিয়ার সীমান্ত এলাকার পানজামুনে দুই পক্ষ বৈঠকে বসে। এর আগেই দক্ষিণ কোরিয়ার তরফ থেকে আলোচনার প্রস্তাবে সম্মতি জানিয়েছিল উত্তর কোরিয়া। খবর বিবিসি।

দু’দেশের আলোচনার পর সিওল জানিয়েছে, উত্তর কোরিয়ার ২০১৮ সালের শীতকালীন পিয়ংচ্যাং অলিম্পিক গেমসে নিজেদের প্রতিনিধি দল পাঠাবে বলে নিশ্চিত করেছে। মঙ্গলবারের বৈঠকে দু’দেশের পাঁচ সদস্যের প্রতিনিধিদল অংশ নিয়েছে। দক্ষিণ কোরিয়ার নেতৃত্ব দিচ্ছেন ছো মিয়ং-গিয়ন এবং উত্তর কোরিয়ার নেতৃত্বে রয়েছেন রাষ্ট্রীয় সংস্থার প্রধান রি সন গোন। আনুষ্ঠানিক বৈঠকের আগে তারা সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়েছেন।

আগামী ফেব্রুয়ারি মাসে দক্ষিণ কোরিয়ায় ওই গেমস অনুষ্ঠিত হবে। কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, শীতকালীন গেমসে অংশ নেবেন যেসব অ্যাথলেট তাদের সমন্বয়েই একটি প্রতিনিধি দল পাঠানো হবে। কোরিয়ান যুদ্ধে যারা তাদের পরিবারের সদস্যদের থেকে আলাদা হয়ে গেছেন তাদের জন্য শীতকালীন গেমসেই একটি পনুর্মিলনির ব্যবস্থা করার প্রস্তাব দিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া।

দুই দেশের জন্য এটি একটি আবেগঘন মুহূর্ত হবে। কারণ বছরের পর বছর দু’দেশের বহু নাগরিকই তাদের পরিবারের সদস্যদের কাছ থেকে বিচ্ছিন্ন রয়েছেন। তাই বেশি বেশি পুনর্মিলন আয়োজন করার প্রতি জোর দিয়ে যাচ্ছে দক্ষিণ কোরিয়া।

২০১৫ সালের পর এই প্রথম দুই কোরিয়ার মধ্যে উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক অনুষ্ঠিত হলো। বৈঠকের আগেই এক বিবৃতিতে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জ্যা ইন বলেছিলেন, তিনি এই শীতকালীন অলিম্পিক গেমসকে দুই কোরিয়ার মধ্যে সম্পর্ক উন্নয়নের ক্ষেত্রে যুগান্তকারী সম্ভাবনা হিসেবে দেখছেন। উত্তর কোরিয়ার পরমাণু কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে দু'দেশের মধ্যে সাম্প্রতিক সময়ে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

অলিম্পিক গেমসের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দু’দেশের অ্যাথলেটদের একসঙ্গে মার্চে অংশ গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছে সিওল। তবে এই প্রস্তাবের জবাবে উত্তর কোরিয়া কি করতে যাচ্ছে তা এখনও জানা যায়নি। ১০ বছরেরও বেশি সময় অর্থাৎ ২০০৬ সালে কোরীয় দ্বীপের পতাকাতলে একত্রে মার্চে অংশ নিয়েছিল দুই কোরিয়া।

চলতি সপ্তাহের শুরুর দিকে, দু’দেশের সীমান্তে টেলিফোন হটলাইন চালু করেছে উত্তর কোরিয়া। এতে করে দু’দেশের মধ্যে যোগাযোগ সম্ভব হবে। ফেব্রুয়ারিতে দক্ষিণ কোরিয়ার পিয়ংচ্যাং শহরে অনুষ্ঠিত হবে শীতকালীন অলিম্পিকের ২৩তম আসরে অংশ নেবার জন্য উত্তর কোরিয়ার দু’জন অ্যাথলেট নির্বাচিত হয়েছিলেন। কিন্তু তাদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার সময়সীমা পার হয়ে যাওয়ায় তাদের অংশগ্রহণের বিষয়টি নিয়ে শঙ্কা তৈরি হয়। তবে দু’দেশের মধ্যে বৈঠকের পর তাদের অংশগ্রহণের বিষয়টি নিশ্চিত হয়েছে।

সাংবাদিকদের কাছে দক্ষিণ কোরিয়ার একীকরণ উপমন্ত্রী চুন হ্যা-সুং বলেন, অলিম্পিক গেমসে ন্যাশনাল অলিম্পিক কমিটির প্রতিনিধি, অ্যাথলেট, সমর্থক, শিল্পী, পর্যবেক্ষক এবং সাংবাদিকদের সমন্বয়ে একটি উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধি দল পাঠানোর প্রস্তাব দিয়েছে উত্তর কোরিয়া। উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে সামরিক বিষয়েও আলোচনা হয়েছে বলে জানিয়েছেন চুন।

টিটিএন/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :