জওয়ানদের শেষ শ্রদ্ধায় রাহুলের মোবাইলে টিপাটিপি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:২৮ এএম, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলার পর শোকাচ্ছন্ন ভারত। শাসকবিরোধী দুই শিবিরই নিহত জওয়ানদের শ্রদ্ধা জানাচ্ছে। এ ঘটনার পাল্টা জবাব দেয়ার জন্য সরকার এবং সেনাকে সবরকম সহযোগিতার বার্তা দিয়েছেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীও। সরকারও এই মর্মান্তিক ঘটনা নিয়ে রাজনীতি করা থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দিচ্ছে বিরোধীদের। তবে খোদ সরকারের এ পরামর্শ ঠিক কতটা কার্যকর হচ্ছে তা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ছবি ভাইরাল হয়েছে। তাতে দেখা যাচ্ছে, দিল্লি বিমানবন্দরে জওয়ানদের শেষ শ্রদ্ধা জানাতে গিয়েও একমনে মোবাইলের দিকে তাকিয়ে আছেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। আর এই ছবিকে হাতিয়ার করেই কংগ্রেস সভাপতির মুণ্ডপাত করার চেষ্টা করছে শাসকশিবির।

খোদ বিজেপি সাংসদ পরেশ রাওয়াল এই ছবিটি তুলে ধরে টুইট করেছেন। একা পরেশ রাওয়াল নন, সোশ্যাল মিডিযায় ঝড়ের মতো ছড়িয়ে পড়ছে এই ছবি। সঙ্গে নানা ধরনের ক্যাপশন। কেউ বলছেন, এই ছবিতেই প্রমাণ করে দেয় দেশ তথা সেনার প্রতি কোনো দায়বদ্ধতা নেই কংগ্রেসের। কেউ কেউ আবার এই ঘটনার জন্য কংগ্রেস সভাপতির শাস্তিও দাবি করছে।

তবে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে, ছবিটি আ-দৌ সত্যি কি না, নাকি ফটোশপের কারসাজি? আর যদি সত্যিও হয় তাহলে কী পরিস্থিতিতে ছবিটি তোলা?-এসব যাচাই না করেই মন্তব্য করা কতটা যুক্তিযুক্ত, তা নিয়েও সরক রয়েছেন অনেকে। এর আগে পুলওয়ামার হামলাকারী আদিল আহমেদ দারের সঙ্গে রাহুলের ভুয়া ছবি ভাইরাল হয়েছিল, যা নিয়ে বেশ বিতর্কও সৃষ্টি হয়।

ভারতীয় এক সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়, ভাইরাল ছবিটি ভুয়া নয়। জওয়ানদের শ্রদ্ধা জানানোর মঞ্চে সত্যিই মোবাইলের দিকে একবার তাকিয়ে ছিলেন রাহুল গান্ধী। তবে সেটা কয়েক সেকেন্ডের জন্য। রাহুল এদিন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, প্রতিরক্ষামন্ত্রী নির্মলা সীতারমণের অনেক আগেই বিমানবন্দরে পৌঁছে যান। শ্রদ্ধা জানানোর পরও ঘটনাস্থল ছাড়েননি তিনি। দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়েছিলেন সেনা কর্মকর্তাদের সঙ্গে।

সেসময় শাসক শিবিরের নেতা-মন্ত্রীরা জওয়ানদের শ্রদ্ধা জানাচ্ছিলেন। মাঝখানে হঠাৎ একবার দেখা যায় পকেট থেকে তিনি ফোনটি বার করলেন। ২০ সেকেন্ড মতো সময় ফোনের দিকে তাঁকিয়ে ফের পকেটে ঢুকিয়ে নেন তিনি। সেই মুহূর্তের ছবিই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। আর সেটাই কাজে লাগিয়ে তাকে কোণঠাসা করছে বিজেপি।

এসআর/এমকেএইচ

আপনার মতামত লিখুন :