মোদির কাছে আশ্রয় চাইলেন পাক নেতা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ১২:১৬ পিএম, ১৮ নভেম্বর ২০১৯

যুক্তরাজ্যে নির্বাসিত পাকিস্তানের মুত্তাহিদা কওমী মুভমেন্টের (এমকিউএম) প্রতিষ্ঠাতা আলতাফ হুসেইন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কাছে আশ্রয় চেয়েছেন। তিনি মোদিকে আহ্বান জানিয়েছেন যে, তাকে এবং তার সহকর্মীদের যেন ভারতে আশ্রয় দেয়া হয় অথবা তার মামলা আন্তর্জাতিক আদালতে তুলতে তাকে সামান্য কিছু হলেও আর্থিক সহায়তা করা হয়।

ভারতে আশ্রয় দেয়া হলে তিনি কোনো ধরনের রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়বেন না বলেও প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন এই নেতা। গত সপ্তাহে সামাজিক মাধ্যমে নিজের বক্তব্য প্রচার করেছেন তিনি। সেখানে আলতাফ হুসেইন অযোধ্যা মামলায় সুপ্রিম কোর্টের রায়কে স্বাগত জানিয়েছেন।

সম্প্রতি ৬৭ বছর বয়সী এই পাক নেতাকে যুক্তরাজ্যে বিচারের মুখোমুখি হতে হবে। কয়েক বছর আগে নিজের সমর্থকদের উদ্দেশে দেয়া এক ভাষণে সন্ত্রাসবাদে উৎসাহ দেয়ার অপরাধে তাকে এই বিচারের মুখোমুখি হতে হচ্ছে।

গত ৯ নভেম্বর এক বিবৃতিতে আলতাফ হুসেইন বলেন, যদি ভারত এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি আমাকে ভারতে আসার অনুমতি দেন এবং আমাকে আর আমার সহকর্মীদের আশ্রয় দেন তবে আমি আমার সহকর্মীদের নিয়ে সেখানে যেতে প্রস্তুত আছি। সেখানে আমার দাদা-দাদিকে সমাহিত করা হয়েছে। আমার অনেক আত্মীয়-স্বজনের কবর রয়েছে সেখানে। আমি সেখানে যেতে চাই, তাদের কবরে যেয়ে দোয়া করতে চাই।

তিনি আরও বলেন, আমি একজন শান্তিপ্রিয় মানুষ। আমি প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি যে, আমি সেখানকার রাজনীতিতে কোনো ধরনের হস্তক্ষেপ করব না। কিন্তু অনুরোধ করছি যেন আমাকে এবং আমার সহকর্মীদের ভারতের কোথাও থাকার অনুমতি দেয়া হয়।

ভারতের কাছে আবেদন জানিয়ে এই পাক নেতা জানিয়েছেন, তার বাড়ি এবং অফিস জব্দ করা হয়েছে। ফলে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে বিচার চাওয়ার আর্থিক অবস্থা তার নেই। আলতাফ হুসেইন বলেন, যদি আপনারা আমাদের আশ্রয় না দেন তবে কিছু প্রভাবশালী লোকজনকে বলুন এগিয়ে আসতে যেন আমরা আন্তর্জাতিক আদালতে যেতে পারি।

তিনি বলেন, আমার কাছে কোনো টাকা নেই, তাই আপনার লোকদের বলুন যেন আদালতের ফি দিয়ে আমাদের সাহায্য করেন। আমি একাই বেলুচ, সিন্দু, মুহািজির এবং অন্যান্য জাতিগত ধর্মীয় সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠীর জন্য লড়াই করব।

টিটিএন/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]