অত্যধিক ঝড়ের মুখে নামের ভাণ্ডার ফুরিয়ে গেছে যুক্তরাষ্ট্রের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৬:৫৩ এএম, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০

চারদিনও হয়নি আলাবামা উপকূলে তাণ্ডব চালিয়ে গেছে হারিকেন স্যালি, এর মাসখানেক আগেই মেক্সিকো উপকূলে আঘাত হেনেছিল রেকর্ডভাঙা ঘূর্ণিঝড় লরা। এরমধ্যে আবারও শক্তিশালী ঝড়ের হুমকিতে পড়েছে যুক্তরাষ্ট্র। এবারের ঝড়টি চলতি সপ্তাহের শেষদিকে টেক্সাসে আঘাত হানতে পারে বলে জানিয়েছেন মার্কিন আবহাওয়াবিদরা।

যুক্তরাষ্ট্রে চলতি বছর এত বেশি ঝড় হচ্ছে যে, সেগুলোর জন্য পূর্বনির্ধারিত নামের ভাণ্ডারই ফুরিয়ে গেছে। একারণে ১৯৫০ সালের পর দেশটির ইতিহাসে মাত্র দ্বিতীয়বারের মতো নতুন ঝড়ের নামকরণ করতে ব্যবহার করা হচ্ছে গ্রিক বর্ণমালা। এ সপ্তাহে টেক্সাস উপকূলে যে ঝড় আঘাত হানতে পারে সেটিকে ‘বেটা’ নামে ডাকা হচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল হারিকেন সেন্টার জানিয়েছে, ক্রমাগত শক্তি সঞ্চয় করে হারিকেনে রূপ নিচ্ছে গ্রীষ্মমণ্ডলীয় ঝূর্ণিঝড় বেটা। শনিবার এটি টেক্সাস থেকে ৪৯৫ কিলোমিটার পূর্ব-দক্ষিণে এবং লুইজিয়ানা থেকে ৩৯৫ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থান করছিল।

ঝড়টি শক্তি সঞ্চয় করে রোববারই হারিকেনে রূপ নিতে পারে। এর প্রভাবে ইতোমধ্যেই টেক্সারের আরানসাস বন্দর থেকে লুইজিয়ানার ইন্ট্রাকোস্টাল সিটি পর্যন্ত আগাম সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

লুইজিয়ানার লেক চার্লস এলাকায় হারিকেন লরার আঘাতের পর প্রায় তিন সপ্তাহ ধরে বিদ্যুৎবিচ্ছিন্ন অবস্থায় রয়েছেন বাসিন্দারা। ওই একই এলাকায় আবারও প্রভাব ফেলতে পারে হারিকেন বেটা।

এ ঝড়ের প্রভাবে বেশ কিছু এলাকায় ৫১ সেন্টিমিটার পর্যন্ত বৃষ্টিপাত হতে পারে বলে জানিয়েছেন ন্যাশনাল ওয়েদার সার্ভিসের আবহাওয়াবিদ ডোনাল্ড জোনস।

এছাড়া, বাফিন, করপাস ক্রিস্টি ও গ্যালভেস্টনের মতো টেক্সাসের উপকূলীয় এলাকাগুলোতে চার ফুট উচ্চতার জলোচ্ছ্বাস সৃষ্টি করতে পারে হারিকেন বেটা।

সূত্র: আল জাজিরা
কেএএ/

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]