উদ্ধার কাজে গিয়ে দমকল কর্মী দেখলেন আগুনে নিহত সবাই পরিবারের সদস্য

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০২:৫৬ পিএম, ০৬ আগস্ট ২০২২
ছবি: সংগৃহীত

যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভানিয়া অঙ্গরাজ্যের একট বাড়িতে অগ্নিকাণ্ডে তিন শিশু এবং সাত প্রাপ্তবয়স্ক নিহত হয়েছে। সবচেয়ে দুঃখজনক বিষয় হচ্ছে, অগ্নিকাণ্ডের পর ঘটনাস্থলে আসা এক দমকল কর্মী দেখতে পান যে, নিহতরা সবাই তার পরিবারেরই সদস্য। খবর বিবিসির।

ওই অঙ্গরাজ্যের পুলিশ নিহত ছয়জনের পরিচয় নিশ্চিত করেছে। কিন্তু পাঁচ, ছয় এবং সাত বছর বয়সী তিন শিশুর পরিচয় এখনও নিশ্চিত করা হয়নি।

এই ঘটনায় ফৌজদারি তদন্ত শুরু করা হয়েছে বলে পুলিশের পক্ষ থেকে নিশ্চিত করা হয়েছে। স্থানীয় সময় শুক্রবার সকালে ওই বাড়ির বারান্দা থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

নেস্কোপেক ভলান্টিয়ার ফায়ার কোম্পানির কর্মী হ্যারল্ড বেকার জানিয়েছেন, অগ্নিকাণ্ডে তার ছেলে, মেয়ে, শ্বশুর, শ্যালক, শ্যালিকা, তিন নাতি-নাতনি এবং আরও দুই স্বজন নিহত হয়েছে।

USA-2

ওই অঙ্গরাজ্যের পুলিশ নিহতদের মধ্যে যে কয়জনের পরিচয় প্রকাশ করেছে তারা হলেন- ডেল বেকার (১৯), স্টার বেকার (২২), ডেভিড ডাউবার্ট সিনিয়র (৭৯), শ্যানন ডাউবার্ট (৪২), লরা ডাউবার্ট (৪৭) এবং ম্যারিয়ান স্লাসার (৫৪)। হ্যারল্ড বেকার জানিয়েছেন, তার ছেলে ডেল তার পথ অনুসরণ করে ফায়ার সার্ভিসে যোগ দিয়েছিলেন।

পুলিশ জানিয়েছে, প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত কুকুরের সাহায্যে আগুনে ধ্বংস হয়ে যাওয়া বাড়িটি থেকে মরদেহগুলো উদ্ধার করা হয়। তিন প্রাপ্তবয়স্ক বাড়িটি থেকে নিরাপদে বের হয়ে যেতে পেরেছিলেন বলে পুলিশের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

ফিলাডেলফিয়া শহর থেকে দেড়শ কিলোমিটার উত্তরপশ্চিমের নেস্কোপেকের গ্রামীণ এলাকার ওই বাড়িতে স্থানীয় সময় রাত প্রায় আড়াইটায় আগুনের সূত্রপাত ঘটে।

দমকল কর্মীরা পেছন দিক দিয়ে বাড়িটিতে প্রবেশের চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু আগুনের তীব্র শিখা এবং
প্রচণ্ড তাপের কারণে তারা পিছিয়ে যেতে বাধ্য হন বলে জানান পেনসিলভানিয়া স্টেট পুলিশের কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট ডেরেক ফেলসম্যান।

এদিকে ওই অগ্নিকাণ্ডে একাধিক স্বজন হারানো হ্যারল্ড বেকার বলেন, আমরা যখন ঘটনাস্থলের কাছাকাছি পৌঁছাই তখনই আমি ওই বাড়িটি চিনতে পারি। তিনি বলেন, আমার দুই সন্তান তাদের খালা-মামার সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিল। কিন্তু অগ্নিকাণ্ডে সবাই প্রাণ হারিয়েছে।

টিটিএন/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]