২৫ বছর পর খালাস পেলেন কারাবন্দি বাবুল


প্রকাশিত: ০২:৫২ পিএম, ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৭

২৫ বছর কারাগারে থাকার পর বাবুল নামে এক আসামিকে মুক্তি দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। বুধবার ডাকাতি মামলায় ঢাকার ৫ নং বিশেষ জজ আদালতে বিচারক মো. আখতারুজ্জামান পাঁচ আসামিকে খালাস প্রদান করেন। অন্য কোনো মামলা না থাকায় আটক একমাত্র আসামি বাবুলকে তৎক্ষণাৎ মুক্তি দেয়ার নির্দেশ দেন আদালত।

খালাস পাওয়ার পর বাবুল বলেন, ‘২৫ বছর ধরে এ মামলায় আমি কারাগারে আটক আছি। এখন খালাস পাওয়ায় খুশি। আমার অন্য কোনো চাওয়া-পাওয়া নেই।’ রায় ঘোষণার আগে বাবুলকে আদালতে হাজির করা হয়।

মামলার রায় থেকে জানা যায়, ১৯৯২ সালের ২১ আগস্ট আসামিরা সায়েদাবাদ বাসস্ট্যান্ড হতে যাত্রাবাড়ী যাওয়ার পথে পিপলস ট্রান্সপোর্টে ওঠে। তারা ঢাকা-চিটাগাং মহাসড়কের সানারপাড় নামক স্থানে ডাকাতির উদ্দেশ্যে যাত্রীদের ওপর আক্রমণ করে। হেলপার ও যাত্রীদের ভয়ভীতি এবং আঘাত করে টাকা-পয়সা এবং মালামাল লুণ্ঠন করে নেমে যায়। এ ঘটনায় ওইদিনই রাজধানীর ডেমরা থানায় নজরুল ইসলাম বাদী হয়ে একটি মামলা করেন।

১৯৯২ সালের ১৫ ডিসেম্বর মামলার তদন্তকারী অফিসার পাঁচজনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। পাঁচ আসামি হলেন দুলাল ওরফে আবুল হাশেম (পলাতক), রমজান আলী (পলাতক), বাবুল, হযরত আলী (পলাতক) ও সিরাজুল ইসলাম (পলাতক)।

অভিযোগ গঠনের পর থেকে এ পর্যন্ত মামলার চারজন সাক্ষী আদালতে উপস্থাপন করে রাষ্ট্রপক্ষ। সাক্ষীরা হলেন পুলিশের উপ-পরিদর্শক ভজ গোবিন্দ, কনস্টেবল সগির, জাফর মল্লিক ও রতন মিয়া। মামলায় বাদী, ম্যাজিস্ট্রেট ও তদন্তকারী কর্মকর্তাও সাক্ষ্য দিতে আদালতে উপস্থিত হন।

সব দিক বিবেচনা করে ঢাকার ৫ নং বিশেষ জজ আদালতের বিচারক মো. আখতারুজ্জামান আসামিদের খালাস দেন এবং কারাগারে থাকা আসামি বাবুলের অন্য মামলা না থাকলে তাকে তাৎক্ষণিক মুক্তির নির্দেশ দেন।

জেএ/এসএইচএস/ওআর/জেআইএম