‘গতকাল ৮০ হাজার, আজ ৬০’

আবু সালেহ সায়াদাত
আবু সালেহ সায়াদাত আবু সালেহ সায়াদাত , নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৬:৪২ পিএম, ২১ আগস্ট ২০১৮

ঈদুল আজহা উপলক্ষে রাজধানীর ছোট বড় হাটগুলোতে পশুর সমাহার লক্ষ্য করা গেছে। ঈদের তিন বা চারদিন আগে থেকেই বেচাকেনার ভিড় জমে ওঠে। তবে শেষ মুহূর্তেও হাটে কমতি নেই পশুর। ব্যস্ততার কারণে যারা এখনও কোরবানির গরু কিনতে পারেনি তারা আজ শেষ সময়ে ভিড় করছেন পশু হাটে। গতকাল যে গরুর দাম ছিল ৮০ হাজার, আজ সেটা ৬০ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

সকাল থেকে কমলাপুর পশুর হাট ঘুরে দেখা গেছে, পর্যাপ্ত গরু থাকলেও ক্রেতাদের খুব একটা ভিড় দেখা যায়নি। এছাড়া বিগত কয়েক দিনের চেয়ে শেষ মুহূর্তে এসে গরুর দাম খুবই কম বলে জানা গেছে।

cow

পাবনা থেকে ৭টি গরু নিয়ে কমলাপুরে এসেছিলেন গরু ব্যবসায়ী জিল্লুর রহমান। বিগত তিনদিনে ৫টি বিক্রি হলেও রয়ে গেছে বাকি দুইটি।

তিনি বলেন, দুইটির মধ্যে একটি গরুর দাম গতকাল ৮০ হাজার টাকা একজন বললেও বিক্রি করিনি। কিন্তু আজকে দাম বলছে ৬০-৭০ হাজার টাকা। বাজার পড়ে গেছে। বেশিরভাগ মানুষই গরু কিনে ফেলেছে। শেষদিনে মনে হয় কম দামেই বিক্রি করে বাড়ি ফিরতে হবে।

আরেক বিক্রেতা হাফিজুল ইসলাম, ওরা পাঁচজন মিলে মোট ৪২টি গরু কুষ্টিয়া থেকে কমলাপুর হাটে এনেছিলেন। যার মধ্যে এখনও ৭টি বিক্রি হয়নি।

cow

তিনি বলেন, গতকাল পর্যন্ত হাটে ভালোই দাম ছিল আজ সকাল থেকে ক্রেতা নেই। যেসব ক্রেতা আসছেন তারা দাম বলছেন কম। এছাড়া গতকাল মাঝারি সাইজের গরু ৭০ হাজার দাম উঠলেও লস হবে এ কারণে বিক্রি করিনি। আজ সেই গরুর দাম সর্বোচ্চ বলেছে ৫৫ হাজার টাকা। লস হলেও আজ গরুগুলো বিক্রি করেই বাড়ি যেতে হবে, তা না হলে ট্রাক ভাড়া করে গরু ফিরিয়ে নিতে আরও অনেক বেশি লস হয়ে যাবে।

রাজধানীর সেগুনবাগিচা থেকে কমলাপুর হাটে গরু কিনতে এসেছেন মকিদুর রহমান নামের একজন কাপড় ব্যবসায়ী। বলেন, এই হাটে গতকাল দুই বন্ধু এসেছিলাম গরু কিনতে, তবে গতকাল কিছুটা দাম বেশি ছিল।

cow

তিনি আরও বলেন, আজ যখন আবার আসলাম তখন দেখতে পাচ্ছি হাটে পর্যাপ্ত গরু আছে, কিন্ত তেমন একটা ক্রেতার ভিড় নেই। গরুর দামও তুলনামূলক কম। গতকালের ১ লাখ টাকা দামের গরু আজ ৭০/৮০ হাজার টাকায় ক্রেতারা কিনতে পারছেন।

কমলাপুর হাট ইজারাদারদের হাসিল আদায়কারীদের একজন সুজন আহমেদ। জানান, হাটে পর্যাপ্ত গরু আছে, শেষ মুহূর্তে এসে ক্রেতার উপস্থিতি অন্য সময়ের চেয়ে একটু কম কারণ প্রায় সবারই গরু কেনা শেষ তারপরও মোটামুটি ভালোই ক্রেতা আছেন বাজারে।

শতকরা ৫ টাকা হিসেবে হাসিল নেয়া হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, আজ মাঝারি আকারের গরু ৬০-৭৫ হাজার টাকায় বেশি কিনতে দেখা গেছে ক্রেতাদের। আর ছোট আকারের গরু বিক্রি হচ্ছে ৪০-৫৫ হাজারের মধ্যে। লাখ টাকার ওপরে গরু কম বিক্রি হচ্ছে। তবে মনে হচ্ছে বিগত দিনগুলোর তুলনায় শেষ মুহূর্তে তুলনামূলক গরুর দাম কম।

এএস/এমআরএম/এমএস

আপনার মতামত লিখুন :