ঈদযাত্রায় বিশেষ পরিবহন চান শ্রমিকরা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩:৪৪ পিএম, ২৮ মে ২০১৯

>> নৌপথে বিশেষ লঞ্চের দাবি
>> বিশেষ ট্রেনও চান তারা
>> ঈদের আগেই বেতন-বোনাস পরিশোধের দাবি

ঈদের আগেই শ্রমিকদের বেতন-বোনাস পরিশোধের দাবি জানিয়েছে গার্মেন্টস শ্রমিক অধিকার আন্দোলন নামক একটি সংগঠন।

এ ছাড়া নিরাপদ ঈদযাত্রায় গার্মেন্টস শ্রমিকদের জন্য বিশেষ ব্যবস্থার দাবি জানিয়েছে সংগঠনটি।

মঙ্গলবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে এক বিক্ষোভ সমাবেশে এ দাবি জানানো হয়।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, `দেশের সরকারি-বেসরকারি বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানে ইতোমধ্যে ঈদবোনাস দেয়া হয়েছে। কিন্তু গার্মেন্ট শ্রমিকদের বোনাস ও মে মাসের বেতনের বিষয়ে এখন পর্যন্ত মালিক ও সরকারের তরফ থেকে কোনো সাড়াশব্দ পাওয়া যাচ্ছে না। দেশের অন্যতম রফতানিকারক পণ্যের শ্রমিকরা যাতে পরিবার-পরিজন নিয়ে মর্যাদার সঙ্গে ঈদ উৎসব পালন করতে পারে তার জন্য অনতিবিলম্বে সব কারখানায় বোনাস পরিশোধ করতে হবে। এবার যেহেতু পবিত্র ঈদুল ফিতর অনুষ্ঠিত হচ্ছে জুন মাসের প্রথমে ফলে বাড়ি যাওয়ার আগে বাসা ভাড়া, দোকান বাকি সব কিছু পরিশোধ করেই শ্রমিকদের বাড়ি যেতে হবে। তাই ১ জুনের মধ্যে সব কারখানায় মে মাসের সম্পূর্ণ বেতন পরিশোধ করতে হবে।

বক্তারা আরও বলেন, ঈদযাত্রাকে কেন্দ্র করে ইতোমধ্যে পরিবহন সংশ্লিষ্টরা সক্রিয় হয়ে উঠেছে। আন্তঃজেলা বাসগুলোর ভাড়া ইতোমধ্যে বৃদ্ধি পেয়ে দ্বিগুণ হয়ে গেছে। গার্মেন্ট শ্রমিকদের যখন ছুটি হবে তখন তা বেড়ে তিন গুণ হয়ে যাবে। অনলাইনে বিক্রির কথা বলে ট্রেনের অর্ধেক টিকিট হাওয়া হয়ে গেছে ইতোমধ্যে। লঞ্চ ইস্টিমারের ভাড়াও বেড়ে দ্বিগুণ। ফলে গার্মেন্ট শ্রমিকরা যে বোনাস পান তার ৭০ থেকে ৮০ ভাগ খরচ হয়ে যায় পরিবহন ভাড়াবাবদ। এ কারণেই শেষ মুহূর্তে শ্রমিকদের বিকল্প পথ অনুসরণ করতে হয়। খরচ কমানোর জন্য জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চড়ে বসেন বাস বা ট্রেনের ছাদে, লঞ্চের ডেকে কিংবা মালবাহি ট্রাকের মাথায়। সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যান এই সস্তা শ্রমিকরাই।

তারা বলেন, শ্রমিকদের নিরাপদ ঈদ যাত্রা নিশ্চিত করতে কারখানার উদ্যোগে বিশেষ পরিবহনের ব্যবস্থা করতে হবে। রেল ও নৌপথে গার্মেন্ট শ্রমিকদের জন্য বিশেষ ট্রেন ও লঞ্চের ব্যবস্থা করতে হবে। একবারে ছুটি না দিয়ে দফায় দফায় ছুটি দিয়ে হয়রানি কমাতে হবে।

জাতীয় সুয়েটার গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের সভপতি ও গার্মেন্টস শ্রমিক অধিকার আন্দোলনের বর্তমান সমন্বয়ক এএএম ফয়েজ হোসেনের সভাপতিত্বে সমাবেশে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ গার্মেন্ট শ্রমিক সংহতির সাধারণ সম্পাদক জুলহাসনাইন বাবু, ওএসকে গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি মো. ইয়াসিন, বিপ্লবী গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি অরবিন্দু ব্যাপারী বিন্দু, বাংলাদেশ টেক্সটাইল গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের সহ-সভাপতি মোখলেসুর রহমান, বিপ্লবী গার্মেন্টস শ্রমিক সংহতির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম প্রমুখ।

এএস/জেডএ/জেআইএম

আপনার মতামত লিখুন :