গ্যাসের দাম না কমালে কঠিন আন্দোলনের হুমকি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫:৫৪ পিএম, ১৪ জুলাই ২০১৯

গ্যাসের দাম কমানোর দাবিতে জ্বালানি মন্ত্রণালয় ঘেরাও করার চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হয়েছে বামপন্থী দলগুলো। পরে আগামী পাঁচদিনের মধ্যে গ্যাসের দাম না কমালে কঠিন আন্দোলন গড়ে তোলার হুমকি দেন বামপন্থী দলগুলোর নেতারা।

রোববার (১৪ জুলাই) জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে রাস্তা অবরোধ করে পাঁচটি বাম দল মানববন্ধন ও প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন শেষে জ্বালানি মন্ত্রণালয় ঘেরাও করতে গেলে পুলিশি বাধার সম্মুখিন হয়। এ সময় সচিবালয়ের পশ্চিম পাশে প্রেস ক্লাব সংলগ্ন রাস্তায় পুলিশের সঙ্গে ধস্তাধস্তির ঘটনাও ঘটে। পরে সেখানে অবস্থান নিয়ে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।

সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বাম গণতান্ত্রিক জোটের সমন্বয়ক মোশাররফ হোসেন নান্নু বলেন, সরকার গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি করে জনজীবনকে অস্থির করে তুলেছে। গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির কারণে দেশে দ্রব্যমূল্যের দাম বেড়ে যাবে। কারখানার উৎপাদন খরচ বেড়ে যাবে, এর প্রভাব পড়বে সাধারণ জনগণের ওপর। আমরা সরকারের এ সিদ্ধান্ত থেকে আবারও সরে আসার আহ্বান জানাই।

তিনি বলেন, সরকার গণতন্ত্রকে নির্বাসনে পাঠিয়ে এখন সম্পদের অপব্যবহার করতে চায়। গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির সিদ্ধান্ত থেকে সরকারকে সরে জন্য ৭২ ঘণ্টার সময় বেঁধে দিয়েছিলাম। তারা আমাদের কথা শোনেনি।

তিনি আরও বলেন, সরকার অবৈধভাবে গ্যাস ব্যবহার ও গ্যাসের অপচয় রোধ করতে ব্যর্থ হচ্ছে। গ্যাসের দাম বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সব পণ্যের দাম বাড়বে। এরপরও সরকার নিজের অবস্থান পরিবর্তন না করলে ১৯ জুলাই ঢাকায় প্রতিনিধি সম্মেলন করে সারাদেশ অচাল করে দেওয়া হবে।

কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) সম্পাদক রুহিন হোসেন প্রিন্স বলেন, সরকার সম্পূর্ণ অযৌক্তিকভাবে গ্যাসের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এর মাধ্যমে তারা লুটপাটের মহোৎসব করতে চায়। আমরা এটা হতে দেব না। আমরা জনগণের দাবি আদায়ে সব সময় রাজপথে থাকব, গণমানুষের দাবি আদায় করব। সরকারের কাছে বিনীত অনুরোধ আপনাদের অবস্থান পরিবর্তন করুন, না হলে দুর্বার আন্দোলনের মাধ্যমে দাবি আদায় করা হবে।

গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি বলেন, সরকার সম্পূর্ণ অযৌক্তিকভাবে গ্যাসের দাম বাড়ানোর কথা বলছে। বাসা-বাড়িতে কোনো সময়ই ৪৫ থেকে ৫০ ইউনিটের বেশি গ্যাস খরচ হয় না। বিদ্যুতে সিস্টেম লসের সম্ভাবনা না থাকলেও ক্ষমতাবানরা, আমলারা ১২ শতাংশ পর্যন্ত সিস্টেম লস দেখায়। আমাদের আজ শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে বাধা দেওয়া হলো। আমরা সরকারকে আবারও তাদের অবস্থান থেকে সরে আসার আহ্বান জানাই।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বাসদ নেতা বজলুর রশিদ ফিরোজ, বিপ্লবী কমিউনিস্ট পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, সিপিবির প্রেসিডিয়াম সদস্য কাফি রতন প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

আরএস/এমএস

আপনার মতামত লিখুন :