লিভার প্রতিস্থাপনকারী সিরাজুলের মৃত্যু : খবর চেপে গেল বিএসএমএমইউ!

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০১:৪১ পিএম, ০৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে সফল অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে লিভার প্রতিস্থাপনকারী সেই সিরাজুল ইসলাম (২০) মারা গেছেন। পবিত্র ঈদুল আজহার সময়ই বিএসএমএমইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

বিএসএমএমইউ উপাচার্য় অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া আজ (রোববার) জাগো নিউজের এ প্রতিবেদককে সিরাজুলের মৃত্যুর খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, লিভার প্রতিস্থাপনের পর সুস্থ হয়ে সিরাজুল ইসলাম নামের ওই রোগী গ্রামের বাড়ি চলে যায়। সেখানে অবস্থানকালে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়। অবস্থার অবনতি হলে আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে ঈদের সময় বিএসএমএমইউতে নিয়ে আসা হয়। হাসপাতালে ভর্তির কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই ছেলেটি মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে।

তিনি বলেন, খুবই দুঃখজনক ঘটনা। মায়ের দান করা লিভারের একাংশ অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে সফল প্রতিস্থাপনের মাধ্যমে ছেলেটি প্রায় সুস্থ হয়ে উঠেছিল। কিন্তু ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে তার মৃত্যু হলো।

liver-bsmmu-2.jpg

গত ২৪ জুন বিএসএমএমইউ’র হেপাটোবিলিয়ারি, প্যানক্রিয়েটিক ও লিভার ট্রান্সপ্ল্যান্ট সার্জারি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মো. জুলফিকার রহমান খানের নেতৃত্বে প্রথমবারের মতো লিভার প্রতিস্থাপনে সফল অস্ত্রোপচার সম্পন্ন হয়। লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত ২০ বছরের যুবক সিরাজুলের দেহে হেপাটোবিলিয়ারি, প্যানক্রিয়েটিক ও লিভার ট্রান্সপ্ল্যান্ট সার্জারি বিভাগে এ সফল অস্ত্রোপচার করা হয়।

লিভার প্রতিস্থাপনে সহযোগিতা করেন ভারতের খ্যাতনামা লিভার ট্রান্সপ্ল্যান্ট সার্জন ড. বালাচন্দ্র মেনন ও তার চিকিৎসকদল। ২৪ জুন ভোর ৬টা থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত অস্ত্রোপচার করা হয়। রোগীকে প্রথমে অ্যানেসথেসিয়া দিয়ে অজ্ঞান করা হয়। মোট ৬০ জনের টিম ঐতিহাসিক অস্ত্রোপচারে অংশ নেন।

অস্ত্রোপচার সফলভাবে সম্পন্ন হওয়ার পর ও হাসপাতাল থেকে রিলিজের সময় বিএসএমএমইউ কর্তৃপক্ষ ঢাকঢোল পিটিয়ে সংবাদ সম্মেলন করে সফলতার কথা জানান। ওই সাংবাদিক সম্মেলনে স্বাস্থ্যমন্ত্রী, সচিব, বিএসএমএমইউ চিকিৎসক ও বিএমএ সভাপতি উপস্থিত ছিলেন। কিন্তু মৃত্যুর খবরটি গণমাধ্যমকে ডেকে না জানিয়ে চেপেই যায় কর্তৃপক্ষ!

এমইউ/বিএ/এমএস