ঘরবন্দী জীবনে ইনডোর গেমের কদর বেড়েছে

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ১১:৪৯ এএম, ২৬ মে ২০২০

করোনার সংক্রমণের আশঙ্কায় রাজধানীসহ সারাদেশের মানুষ গত দুই মাসেরও বেশি সময় কার্যত ঘরবন্দী।

মাস তিনেক আগেও গ্রাম ও শহর নির্বিশেষে লাখো লাখো মানুষ জীবন ও জীবিকার তাগিদে কাকডাকা ভোর থেকে রাত অবধি দিনভর যারা ব্যস্ত সময় কাটাতেন এখন তাদের অলস সময় কাটছে প্রায় কর্মহীন। সরকারি ও বেসরকারি অফিস-আদালত, ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় বর্তমানে সবার হাতে অফুরন্ত অবসর সময়, সময় কাটতেই যেন চায় না। ঘরবন্দী জীবনে সময় কাটানোর জন্য বহু মানুষের কাছে বিভিন্ন ধরনের ইনডোর গেম সামগ্রী বিশেষ করে ক্যারাম বোর্ডের কদর বেড়েছে। ঘরবন্দী জীবনে অনেকেরই সময় কাটছে ক্যারাম খেলে। রমজানে সীমিত পরিসরে খোলা বঙ্গবন্ধু ন্যাশনাল স্টেডিয়ামসহ রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে খেলনা সামগ্রীর দোকানে ক্যারামের বিক্রি ও চাহিদা বৃদ্ধি পায়।

সম্প্রতি জাগো নিউজের প্রতিবেদক বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম স্পোর্টস মার্কেট সরেজমিন পরিদর্শনকালে দেখেছেন ধনী-দরিদ্র নির্বিশেষে বিভিন্ন সাইজের ও বিভিন্ন দামের ক্যারাম বোর্ড কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। একাধিক ক্রেতার সঙ্গে আলাপকালে তারা জানান, বর্তমান পরিস্থিতিতে সময় কাটানোর সবচেয়ে ভালো উপায় ক্যারাম খেলা। স্বাভাবিক সময়ে পরিবারের সবাই মিলে খেলাধুলা করা সম্ভব হয় না। পরিবারের কর্তা ব্যক্তি দিনের অধিকাংশ সময় বাইরে কাটায়। গৃহিণীরা ব্যস্ত থাকেন রান্না-বান্নাসহ অন্যান্য সাংসারিক কাজে। আর শিশুরা তাদের স্কুলের পড়াশোনা নিয়ে ব্যস্ত সময় কাটায়। কিন্তু এখন সবার হাতে অবসর সময় থাকায় প্রতিদিন ক্যারম খেলে সময় কাটাচ্ছেন।

রাজধানীর কলাবাগানের ‘রমনা এক্সপোর্ট’ নামে একটি স্পোর্ট সামগ্রী বিক্রেতা প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা শরিফ খান বলেন, স্বাভাবিক সময়ের তুলনায় বর্তমানে ক্যারামের চাহিদা অনেক বেড়েছে। বিভিন্ন সাইজের (৩৬, ৩৮, ৪০ ও ৪২ ইঞ্চি) ক্যারাম বোর্ডের মধ্যে ৩৮ ও ৪২ ইঞ্চি সাইজের চাহিদা বেশি। উন্নত মানের এক একটি ক্যারাম বোর্ডের দাম সর্বনিম্ন সাড়ে তিন হাজার থেকে সর্বোচ্চ ১৫ হাজার টাকা।

game

তিনি জানান, চুয়াডাঙ্গার একটি কারখানা থেকে উন্নত মানের ক্যারাম বোর্ড অর্ডার দিয়ে আনা হয়।আগে কারখানা থেকে ক্যারাম বোর্ড সরবরাহের অনুরোধ করতো। কিন্তু বর্তমানে চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ায় সরবরাহ পাওয়া যাচ্ছে না।৫০টির অর্ডার দিলে পাওয়া যাচ্ছে মাত্র ১৫টি।

মাওলানা ভাসানী হকি স্টেডিয়ামের সামনে ছোট্ট একটি ক্যারাম বোর্ড কিনে বাড়ি ফেরার পথে রাজধানীর বংশালের ক্ষুদে ব্যবসায়ী রহমান জানান, গত দুইমাস স্কুল বন্ধ থাকায় ঘরবন্দী শিশুরা হাঁপিয়ে উঠেছে। ওদের জন্যই ক্যারাম কিনে নিয়ে যাচ্ছি বলে জানান তিনি।

এমইউ/এএইচ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]