করোনা আক্রান্ত বেড়ে যাওয়ায় কমলো বাজেট অধিবেশনের কার্যদিবস

সিরাজুজ্জামান
সিরাজুজ্জামান সিরাজুজ্জামান , জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:০২ পিএম, ১৫ জুন ২০২০

 

 

সংসদ সচিবালয়ে কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং মন্ত্রী-এমপিদের মধ্যে করোনা আক্রান্ত বেড়ে যাওয়ায় এর আরও প্রভাব পড়ছে চলমান বাজেট ও সংসদের অষ্টম অধিবেশনে। আর এটি পূর্বপরিকল্পিত ১২ দিনের পরিবর্তে ৮/৯ দিন চলতে পারে। পরিবর্তিত পরিকল্পনা অনুযায়ী সাধারণ বাজেটের ওপর আলোচনা হবে মাত্র দুইদিন ২৩ ও ২৪ জুন।

আজ সোমবার (১৫ জুন) পর্যন্ত সংসদে কর্মরত আরো ২৬ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। অন্যদিকে ইতোমধ্যে আওয়ামী লীগের কয়েকজন এমপি-মন্ত্রী করোনায় আক্রান্ত। এর মধ্যে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ মারা গেছেন। এসব কারণে স্বল্প পরিসরের বাজেট অধিবেশন আরও স্বল্প করা হয়েছে।

জানা যায়, এর আগে সংসদে কর্মরত ৪৩ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী করোনায় আক্রান্ত ছিলেন। এর ফলে আজ সোমবার (১৫ জুন) দুপুর পর্যন্ত সেখানে আক্রান্ত কর্মকর্তা-কর্মচারীর সংখ্যা দাড়িয়েছে ৬৯ জনে। এছাড়াও ৮২ আনসার করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সংসদের হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন জাগো নিউজকে বলেন, সংক্রমণ পরিস্থিতির বিবেচনায় স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী হয়তো কার্যদিবস যতদূর সম্ভব কমিয়ে আনছেন।

সংসদ মেডিকেল সেন্টারের চিফ মেডিকেল অফিসার আরিফুল হক আজ সোমবার জাগো নিউজকে বলেন, এখন পর্যন্ত সংসদের ৬৯ কর্মকর্তার শরীরে আমরা করোনা পজিটিভ পেয়েছি। সবাই আমাদের নির্দেশনা নিয়ে বাসাতেই আছেন।

এদিকে, গত রোববার (৭ জুন) আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর উপ-পরিচালক (যোগাযোগ) মেহেনাজ তাবাসসুম রেবিন জানান, আনসার বাহিনীর করোনা আক্রান্তদের মধ্যে ৮২ জন ব্যাটালিয়ন আনসার সংসদ সচিবালয়ে কর্মরত।

প্রতিটি অধিবেশন কতদিন চলবে তা কার্যউপদেষ্টা কমিটির বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়। করোনাভাইরাসের কারণে এবার কার্যউপদেষ্টা কমিটির বৈঠকও হয়নি। কার্যউপদেষ্টা কমিটির প্রধান স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী তার ক্ষমতা বলে কমিটির অন্যতম সদস্য সংসদ নেতা শেখ হাসিনাসহ গুরুত্বপূর্ণ সদস্যদের সঙ্গে আলোচনা করে বৈঠকের সার্বিক বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন।

জানা গেছে, এবার বাজেট অধিবেশন কতদিন চলবে সেটা আনুষ্ঠানিকভাবে না জানানো হলেও অধিবেশন শুরুর আগে সংসদ সচিবালয় থেকে একটি ক্যালেন্ডার প্রকাশ করা হয়েছিল। ওই ক্যালেন্ডার অনুযায়ী অধিবেশন ১২ কার্যদিবস চলার কথা জানানো হয়।

ক্যালেন্ডার অনুযায়ী ১৪ জুন রোববার সম্পূরক বাজেটের ওপর আলোচনা। এদিন থেকে প্রতিটি কার্যদিবস সকাল সাড়ে দশটা থেকে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত চলবে।

১৫ জুন সোমবার সম্পূরক বাজেটের ওপর আলোচনার, নির্দিষ্টকরণ সম্পূরক বিল পাস।

১৬ জুন মঙ্গলবার ও ১৭ জুন বুধবার মূল বাজেটের উপর আলোচনা।

১৮ জুন বৃহস্পতিবার থেকে ২১ জুন রোববার অধিবেশন মুলতবি।

২২ জুন সোমবার, ২৩ জুন মঙ্গলবার ও ২৪ জুন বুধবার বাজেটের উপর আলোচনা।

২৫ জুন বৃহস্পতিবার থেকে ২৮ জুন রোববার অধিবেশন মুলতবি।

২৯ জুন সোমবার বাজেটের উপর সমাপনী আলোচনা এবং অর্থবিল পাস।

৩০ জুন মঙ্গলবার মূল বাজেট ও নির্দিষ্টকরণ বিল পাস।

৮ জুলাই বুধবার অথবা ৯ জুলাই বৃহস্পতিবার অধিবেশন সমাপ্তি।

কিন্তু পরিবর্তিত সিডিউল অনুযায়ী আজ ১৫ জুন থেকে ২৩ জুন সকাল সাড়ে ১০টা পর্যন্ত বৈঠক মুলতবি ঘোষণা করা হয়েছে। এ অনুযায়ী ২৩ ও ২৪ জুন বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে।

এ বিষয়ে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, কতদিন চলবে এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিক কোনো সিদ্ধান্ত তো জানানো হয়নি। বিষয়টি ফ্লেক্সিবল রাখা হয়েছে। আমরা যে কয়দিন নির্ধারণ করবো সেই কয়দিন আলোচনা হবে। ৩০ জুনই অধিবেশন শেষ হবে কী না এমন প্রশ্নের জবাবে স্পিকার জানান, আগে ৩০ জুন বাজেট পাস করি তারপর সিদ্ধান্ত নেব।

সংসদের আইন শাখা জানায়, ২০১৮ সালের বাজেট অধিবেশনের কার্যদিবস ছিল ২৫টি। ওই অধিবেশনে সম্পূরক বাজেটসহ মোট বাজেটের আলোচনায় ২২৩ জন এমপি অংশ নেন। তারা মোট ৫৫ ঘণ্টা ৫৫ মিনিট আলোচনা করেন। বাজেট পাস ছাড়াও এ অধিবেশনে ১৪টি বিল পাস হয়।

আর ২০১৯ সালের বাজেট অধিবেশনে ২১ কার্যদিবস চলে। মোট ২৬৯ জন সংসদ সদস্য বাজেট আলোচনায় অংশ নিয়ে ৫৫ ঘণ্টা ৩৬ মিনিট আলোচনা করেন। এর আগে এতজন এমপি এত সময় ধরে বাজেটের উপর আলোচনা করার সুযোগ পাননি। কিন্তু এবার তা হচ্ছে না। এবার বিলও পাস হবে কম।

এইচএস/এসএইচএস/এমএস

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, কতদিন চলবে এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিক কোনো সিদ্ধান্ত তো জানানো হয়নি। বিষয়টি ফ্লেক্সিবল রাখা হয়েছে। আমরা যে কয়দিন নির্ধারণ করবো সেই কয়দিন আলোচনা হবে।

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]