রাজাকার তালিকা: সংসদীয় কমিটিকে মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের কৃতজ্ঞতা

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০১:২৩ পিএম, ১০ আগস্ট ২০২০

মুক্তিযুদ্ধকালীন রাজাকার-আলবদরদের তালিকা করার দায়িত্ব নেয়ায় মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির প্রতি কৃতজ্ঞতা ও অভিনন্দন জানিয়েছে ‘আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান’ সংগঠন।

সোমবার (১০ আগস্ট) এক বিবৃতিতে সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি মো. সাজ্জাদ হোসেন, প্রেসিডিয়াম সদস্য জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিন ড. কাজী সাইফুদ্দিন, শহীদ নুরুল হক হাওলাদারের মেয়ে জোবায়দা হক অজন্তা, প্রধানমন্ত্রীর সহকারী প্রেস সচিব-১ এম এম ইমরুল কায়েস (রানা), সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ রাশেদুজ্জামান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হারুন-অর রশিদ রনি, আল আমিন মৃদুল, আব্দুল্লাহ আল মামুন, আজহারুল ইসলাম অপু, ইঞ্জিনিয়ার এম এনামুল হক মনির, সৈয়দ দিদারুল ইসলাম কমিটির প্রতি এ কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

নেতৃবৃন্দ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা শাজাহান খানসহ কমিটির সকল সদস্যকে ধন্যবাদ জানান।

তারা বলেন, রাজাকারের একটি সঠিক তালিকা প্রণয়ন মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্যদের দীর্ঘদিনের দাবি। যেন ভবিষ্যৎ প্রজন্ম এসব রাজাকার ও দেশবিরোধীদের চিহ্নিত করে তাদের প্রতি ঘৃণা প্রকাশ করতে পারে। কিন্তু এই তালিকা এতদিন বিলম্বিত হওয়ায় রাজাকাররা তাদের পরিচয় গোপন করে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সাথে ও ক্ষমতাবানদের সাথে মিশে গিয়ে বিত্তবৈভবের মালিক হয়েছে। অনেকে আবার রাজনৈতিক দলের বড় নেতা, এমনকি মন্ত্রী পর্যন্ত হয়েছেন। যা মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অর্জিত বাংলাদেশের জন্য অত্যন্ত লজ্জার।

এসব রাজাকার এবং তাদের বংশধরদের দ্বারা এখনও দেশের বিভিন্ন প্রান্তে মুক্তিযোদ্ধা পরিবার নাজেহাল ও নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। সাম্প্রতিককালে মুক্তিযোদ্ধাদের রাষ্ট্রীয় মর্যাদা ছাড়া দাফন, পতাকার বদলে চাঁটাই মুড়িয়ে দাফনকার্য সম্পাদনের মতো ন্যাক্কারজনক ঘটনা তারই প্রকৃষ্ট উদাহরণ।

বিশ্বের অন্যান্য দেশ বিশেষ করে ভিয়েতনামের মতো আইন করে যুদ্ধাপরাধীদের সন্তান ও প্রজন্মকে সরকারি-বেসরকারি চাকরি দেয়া নিষিদ্ধ করা ও তাদের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার দাবি জানিয়ে নেতৃবৃন্দ বলেন, বিশ্বের অনেক দেশে যুদ্ধাপরাধীদের সন্তানদের সরকারি চাকরি দেয়া হয় না। ভিয়েতনামে তিন প্রজন্ম পর্যন্ত চাকরি দেয়া হয় না। তেমনি বাংলাদেশেও তাদের চাকরিতে নিষিদ্ধ করা উচিত। দেশের স্বাভাবিক উন্নয়নের স্বার্থে রাজাকার প্রজন্ম যারা চাকরিতে আছে তাদের চিহ্নিত করে, চাকরি থেকে অব্যাহতি দিতে হবে।

তালিকা যাতে নির্ভুল হয় সেদিকে বিশেষ সতর্ক দৃষ্টি রাখার জন্য তারা কমিটির সদস্যদের প্রতি অনুরোধ জানান।

প্রসঙ্গত, একবার নাম প্রকাশ করার পর বিতর্ক সৃষ্টি হওয়ায় এবার রাজাকার-আলবদরদের তালিকা করার দায়িত্ব নিয়েছে সংসদীয় কমিটি। এ জন্য একটি উপ-কমিটি গঠন করেছে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটি। এই কমিটি তালিকার কাজে সমন্বয় করবে। রাজাকার-আলবদরদের তথ্য সংগ্রহ করা হবে যুদ্ধকালীন কমান্ডার এবং উপজেলা পর্যায়ে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ড থেকে।

রোববার (৯ আগস্ট) সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত সংসদীয় কমিটির ১২তম বৈঠকে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এছাড়াও মুক্তিযোদ্ধাদের নামের আগে বীর মুক্তিযোদ্ধা লেখার সুপারিশ করে সংসদীয় কমিটি। বৈঠক শেষে কমিটির সভাপতি মো. শাজাহান খান জাগো নিউজকে এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ‘এবার সংসদীয় কমিটি তালিকা তৈরি করবে। এ কাজে একটি উপ-কমিটি গঠন করা হয়েছে। সংসদ সদস্যদের মধ্যে যারা মুক্তিযোদ্ধা এবং মুক্তিযোদ্ধার সন্তান আছেন তাদের আমরা কাজে লাগাব। আর তথ্য নেয়া হবে যুদ্ধকালীন কমান্ডার এবং উপজেলা পর্যায়ে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ড থেকে।’

এইচএস/বিএ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]