শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে স্মারক ডাকটিকিট অবমুক্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১১:৩৩ পিএম, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৪তম জন্মদিন উপলক্ষে ডাক অধিদফতর স্মারক ডাকটিকিট অবমু্ক্ত করেছে। ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার ১০ টাকা মূল্যমানের একটি স্মারক ডাকটিকিট অবমুক্ত করেন।

সোমবার (২৮ সেপ্টেম্বর) ঢাকায় ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের উদ্যোগে আয়োজিত শেখ হাসিনার ৭৪তম জন্মদিন উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে মোস্তাফা জব্বার প্রধান অতিথির বক্তব্যের সময় এই স্মারক ডাকটিকিট অবমুক্ত করেন।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। এছাড়াও প্রধানমন্ত্রীর জন্ম দিবস উপলক্ষে ১০ টাকা মূল্যমানের উদ্বোধনী খাম ও ৫ টাকা মূল্যমানের ডাটাকার্ড প্রকাশ করা হয়। এ উপলক্ষে একটি বিশেষ সিলমোহর ব্যবহার করা হয়।

স্মারক ডাকটিকিট ও উদ্বোধনী খাম ২৮ সেপ্টেম্বর থেকে ঢাকা জিপিও এর ফিলাটেলিক ব্যুরো থেকে বিক্রয় করা হবে। পরবর্তীতে অন্যান্য জিপিও বা প্রধান ডাকঘরসহ দেশের সকল ডাকঘর থেকে এ স্মারক ডাকটিকিট বিক্রয় হবে।

উদ্বোধনী খামে ব্যবহারের জন্য চারটি জিপিওতে বিশেষ সিলমোহরের ব্যবস্থা আছে বলে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ থেকে জানানো হয়েছে।

ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়ে অনুষ্ঠানে বলেন, শেখ হাসিনার হাত ধরে বাংলাদেশ বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলায় রূপান্তর লাভ করছে। শেখ হাসিনা হাজার বছরের বাঙালির ইতিহাসে বাঙালি জাতিসত্ত্বার আলোকবর্তিকা। তিনি জন্মেছিলেন বলেই বাঙালি আজ পৃথিবীর বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে।

তিনি বলেন, ‘তার জীবনযাপন ছিল খুবই সাধারণ। তিনি অনাড়ম্বর অতিসাধারণ জীবন-যাপন করতেন। রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান হিসেবে ছাত্রজীবন থেকেই প্রত্যক্ষ রাজনীতিতে তিনি ছিলেন সিদ্ধহস্ত। দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্রে ৭৫ এর ১৫ আগস্ট গোটা পরিবারকেই হারিয়েছেন তিনি’।

মন্ত্রী ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ কর্মসূচিকে দেশের অভাবনীয় অগ্রগতির মাইলফলক উল্লেখ করে বলেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের যোগ্য উত্তরসুরী হিসেবে শেখ হাসিনা তার সততা, আত্মত্যাগ, দূরদর্শিতা ও দেশপ্রেমের উজ্জ্বল স্বাক্ষর রেখেছেন-এটাই হচ্ছে তার সবচেয়ে বড় কৃতিত্ব’।

কোভিড পরিস্থিতিতে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ ও এর অধীন সংস্থাগুলোর ভূমিকা তুলে ধরে মন্ত্রী বলেন, ‘বৈশ্বিক মহামারি পরিস্থিতিতে জীবন বাজি রেখে আপনারা মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন, চিকিৎসা সামগ্রী পৌঁছে দিয়েছেন, কৃষকের ফল ও ফসল রাজধানীতে বিনা মাশুলে পৌঁছে দিয়েছেন। টেলিযোগাযোগ ও ইন্টারনেট নিরবচ্ছিন্ন রাখতে ঝুঁকি নিয়ে কাজ করেছেন। আপনাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি’।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব মো. নূর-উর-রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিটিআরসি চেয়ারম্যান মো. জহুরুল হক, টেলিকম অধিদফতরের মহাপরিচালক মহসীনুল আলম, ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মো. শাহাদৎ হোসেন ও মো. কামরুজ্জামান, টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. সাহাব উদ্দিন সংযুক্ত ছিলেন।

এছাড়া বাংলাদেশ কমিউনিকেশন্স স্যাটেলাইট কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহরিয়ার আহমেদ, টেশিসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফকরুল হায়দার চৌধুরী, বাংলাদেশ ক্যাবল শিল্প লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জগদীশ চন্দ্র মন্ডলসহ ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ এবং ডাক অধিদফতরসহ ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের অধীন সকল সংস্থার কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা অনলাইনে সংযুক্ত ছিলেন। ডাক অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক হারুন অর রশিদ অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন।

আরএমএম/এমআরএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]