ঢাকার দুই মেয়র মন্ত্রীর পদমর্যাদা পাবেন কবে?

মুসা আহমেদ
মুসা আহমেদ মুসা আহমেদ
প্রকাশিত: ০৮:৫৭ এএম, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১
আতিকুল ইসলাম ও শেখ ফজলে নূর তাপস

এক বছর আগে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের সমর্থন নিয়ে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) নির্বাচনে আতিকুল ইসলাম এবং ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) নির্বাচনে শেখ ফজলে নূর তাপস মেয়র নির্বাচিত হন। তাদের আগে দায়িত্ব পালন করা মেয়ররা মন্ত্রীর পদমর্যাদা পেলেও আতিকুল-তাপস এখন পর্যন্ত তা পাননি। কবে পাবেন বা আদৌ তাদের মন্ত্রীর পদমর্যাদা দেয়া হবে কি-না, তার নিশ্চিত তথ্য মেলেনি।

ডিএনসিসি ও ডিএসসিসির সচিবের দফতর সূত্র জানায়, আতিকুল ইসলাম ও শেখ ফজলে নূর তাপস সংস্থা দুটির মেয়র হিসেবেই নিজেদের দাফতরিক কাজ এবং বিভিন্ন সভা-সেমিনারে অংশগ্রহণ করছেন। মন্ত্রিত্ব (বিশেষ মর্যাদা) নিয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ বা স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে তাদের কিছু জানানো হয়নি। যদিও ঢাকার মেয়রদের বিশেষ মর্যাদা থাকলে সংস্থার কাজের গতি বাড়ে বলে মনে করেন ডিএসসিসি এবং ডিএনসিসির সংশ্লিষ্টরা।

জানতে চাইলে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের একজন পদস্থ কর্মকর্তা জাগো নিউজকে বলেন, সরকারি কর্মবিভাজন (রুলস অব বিজনেস) অনুযায়ী এই ধরনের মর্যাদা দেয়ার অধিকার ও ক্ষমতা প্রধানমন্ত্রীর। তবে আগের মেয়রদের যে পদমর্যাদা দেয়া হয়েছিল তা মেয়র পদকে দেয়া হয়নি, দেয়া হয়েছিল নির্দিষ্ট ব্যক্তিকে। তাই ব্যক্তিটি কেমন, সেটি একটি গুরুত্বপূর্ণ বিবেচনার বিষয় হয়ে দাঁড়ায়।

২০১৫ সালে ২৮ এপ্রিল ডিএনসিসিতে আনিসুল হক এবং ডিএসসিসিতে মোহাম্মদ সাঈদ খোকন মেয়র নির্বাচিত হয়েছিলেন। ২০১৬ সালের ২২ জুন এক প্রজ্ঞাপনে এই দুই জনপ্রতিনিধিকে মন্ত্রীর পদমর্যাদা দেয় সরকার। তখন তারা মন্ত্রী পদমর্যাদার আনুষঙ্গিক সব সুযোগ-সুবিধা ভোগ করেছিলেন।

এর মধ্যে আনিসুল হক মারা যাওয়ার পর ২০১৯ সালে উপ-নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে নয় মাস ডিএনসিসির মেয়রের দায়িত্ব পালন করেন আতিকুল ইসলাম। তখন তিনি মন্ত্রী পদমর্যাদার সুযোগ-সুবিধা ভোগ করেছিলেন। এছাড়া এর আগে অবিভক্ত ঢাকা সিটি করপোরশনের প্রয়াত মেয়র সাদেক হোসেন খোকা মন্ত্রী এবং দেশের অন্যান্য সিটি করপোরশনের মেয়রেরা প্রতিমন্ত্রীর মর্যাদা পেয়েছিলেন।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, মেয়রদের মন্ত্রীর পদমর্যাদা দেয়ার বিষয়ে সরকারের স্থায়ী কোনো নীতিমালা নেই। তবে যখন দেয়া হয়, তখন কিছু নীতিমালার ভিত্তিতে দেয়া হয়।

২০২০ সালের ১ ফেব্রুয়ারি ডিএনসিসিতে আতিকুল ইসলামডিএসসিসিতে শেখ ফজলে নূর তাপস মেয়র নির্বাচিত হন। ২৭ ফেব্রুয়ারি তাদের শপথ বাক্য পাঠ করান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরে ১৩ মে দ্বিতীয় মেয়াদে মেয়র হিসেবে দায়িত্ব নেন আতিকুল। তিন দিন পর নগর ভবনের দায়িত্ব নেন তাপস।

সম্প্রতি ডিএনসিসি এবং ডিএসসিসি মেয়রদের গাড়িতে ফ্ল্যাগ ব্যবহার করতে দেখা যায়নি। তারা নিজ নিজ প্রটোকলে চলাফেরা করছেন। এরমধ্যে বঙ্গবন্ধু পরিবারের সদস্য হিসেবে শেখ ফজলে নূর তাপস সরকারের বিশেষ প্রটোকল পাচ্ছেন বলেন জানিয়েছে ডিএসসিসির মেয়র দফতর সংশ্লিষ্টরা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ডিএসসিসির সচিবের দফতরের এক কর্মকর্তা বলেন, মেয়রদের কাজ হচ্ছে নিজ নিজ সিটি করপোরেশনের কাজকর্ম সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা করা। এই জন্য নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি হিসেবে যে ক্ষমতা ও পদমর্যাদা রয়েছে সেটাই যথেষ্ট। মেয়রকে মন্ত্রীর পদমর্যাদা দেয়া হলো কি-না, তা নগরবাসীর কিছু যায় আসে না। তবে পদমর্যাদা দেয়া হয় প্রধানত রাজনৈতিক বিবেচনায়। এটা এক ধরনের রাজনৈতিক পৃষ্ঠপোষকতা। করোনা মহামারির কারণে এবার এই বিষয়টি এখনো আলোচনায় আসেনি।

এ বিষয়ে জানতে ডিএসসিসি মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস এবং ডিএনসিসি মেয়র আতিকুল ইসলামের মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল দেয়া হলেও তাদের সাড়া মেলেনি।

তবে মন্ত্রীর পদমর্যাদা দেয়ার বিষয়ে এখন পর্যন্ত কোনো আভাস পাওয়া যায়নি বলে জানান ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এ বি এম আমিন উল্লাহ নুরী। তিনি বলেন, ডিএসসিসি মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস মেয়র হিসেবেই করপোরেশনের দায়িত্ব পালন করছেন।

জানতে চাইলে স্থানীয় সরকারমন্ত্রী তাজুল ইসলাম জাগো নিউজকে বলেন, ‘মেয়রদের মর্যাদা দেয়ার অধিকার ও ক্ষমতা প্রধানমন্ত্রীর। তার নির্দেশনা অনুযায়ী এই বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। তবে এখন পর্যন্ত এমন কোনো নির্দেশনা খবর পাওয়া যায়নি।’

এমএমএ/এইচএ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]