বিশ্বের বিভিন্ন জায়গায় ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১০:০১ পিএম, ১৭ এপ্রিল ২০২১

বিশ্বের বিভিন্ন জায়গায় ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত হয়েছে। সৌদি আরবের জেদ্দা, মরিশাসের রাজধানী পোর্ট লুইসে, দক্ষিণ আফ্রিকার প্রিটোরিয়ায়, জার্মানির বার্লিন, তুরস্কের ইস্তাম্বুলে, ভারতের মুম্বাই, জাপানের টোকিওস্থসহ বিভিন্ন দেশে দিবসটি পালিত হয়।

রোববার (১৭ এপ্রিল ) তথ্য অধিদফতর থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, দিবসটি উপলক্ষে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের সকল শহিদ সদস্য, জাতীয় চার নেতা, একাত্তরে শহিদ মুক্তিযোদ্ধাসহ সকল বীর মুক্তিযোদ্ধার বিদেহী আত্মার মাগফেরাত এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করে বিশেষ দোয়া ও মোনাজাত করা হয়। এছাড়া রাষ্ট্রপতি মো। আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বাণী পাঠ করা হয়।

তথ্য বিবরণীতে উল্লেখ করা হয়, সৌদি আরবের জেদ্দায় বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেলের উদ্যোগে শনিবার ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করা হয়। জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সূচনা হয়।

এ উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় কনসাল জেনারেল মোহাম্মদ নাজমুল হক দিবসটির গুরুত্ব, বাংলাদেশের স্বাধীনতা লাভে বঙ্গবন্ধুর অসামান্য অবদান এবং বর্তমান বাংলাদেশের অভাবনীয় উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অসাধারণ নেতৃত্ব প্রসঙ্গে আলোচনা করেন।

অপরদিকে মরিশাসের রাজধানী পোর্ট লুইসে বাংলাদেশ হাইকমিশন ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালন করে। এ উপলক্ষে হাইকমিশন প্রাঙ্গণে সংক্ষিপ্ত অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। দিবসটি উপলক্ষে হাইকমিশনের সকল কর্মকর্তা এবং মরিশাস, সিশেলস ও মাদাগাস্কারের প্রবাসী বাংলাদেশিদের অংশগ্রহণে একটি অনলাইন মিটিংয়ের আয়োজন করা হয়।

অনলাইন মিটিংয়ে হাইকমিশনার রেজিনা আহমেদ ঐতিহাসিক এ দিবসের প্রেক্ষাপট ও ইতিহাস তুলে ধরেন। তিনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জাতীয় চার নেতা, মুক্তিযুদ্ধে ৩০ লাখ শহিদ এবং নির্যাতিত ২ লাখ মা-বোনের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন।

দক্ষিণ আফ্রিকার প্রিটোরিয়ায় বাংলাদেশ হাইকমিশন যথাযোগ্য মর্যাদায় ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালন করেছে। এ উপলক্ষে হাইকমিশনার নুরে হেলাল সাইফুর রহমান মিশনের কর্মকর্তা ও কর্মচারী, স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ ও প্রবাসী বাংলাদেশিদের নিয়ে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যে পুষ্পার্ঘ প্রদান করেন।

জার্মানির বার্লিনে বাংলাদেশ দূতাবাসে যথাযথ মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের সঙ্গে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালন হয়। জার্মানিতে কোভিড-১৯ জনিত পরিস্থিতি বিবেচনা করে সংক্ষিপ্ত পরিসরে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

আলোচনা অনুষ্ঠানে দূতাবাসের মিনিস্টার এম. মুর্শীদুল হক খান এবং কমার্শিয়াল কাউন্সিলর মো. সাইফুল ইসলাম বক্তৃতা করেন। আলোচনায় ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবসের প্রেক্ষিত, স্বাধীনতার লক্ষ্য অর্জনে বাংলাদেশের প্রথম অস্থায়ী সরকারের ভূমিকা, গ্রহণযোগ্যতা, আন্তর্জাতিকতা ও বর্তমান সময়ে মুজিবনগর দিবসের চেতনার প্রাসঙ্গিকতা বিষয়ে আলোকপাত করা হয়।

এছাড়া ভারতের মুম্বাইয়ে যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের সঙ্গে মুজিবনগর দিবস উদযাপন করে বাংলাদেশ উপ-হাইকমিশন। দিবসটি উপলক্ষে উপ-হাইকমিশন প্রাঙ্গণে জাতীয় পতাকা আনুষ্ঠানিকভাবে উত্তোলন, রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বাণী পাঠ, আলোচনা সভা এবং বিশেষ মোনাজাত করা হয়।

আলোচনা সভায় উপ-হাইকমিশনার মো. লুৎফর রহমান বাংলাদেশের ইতিহাসে মুজিবনগর দিবসের গুরুত্ব তুলে ধরেন। তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বাধীন বাংলাদেশের ঘোষণা বাস্তবায়নে মুজিবনগর সরকার গঠন ঐতিহাসিক ভূমিকা পালন করে। এই সরকারের শপথ গ্রহণের মাধ্যমেই বাংলাদেশ একটি স্বাধীন ও সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে বিশ্বে তার অভিযাত্রা শুরু করে এবং অসাধারণ দক্ষতা, সাংগঠনিক ক্ষমতা, সুযোগ্য নেতৃত্ব ও সার্বিক দিকনির্দেশনার মাধ্যমেই বাংলাদেশ মহান মুক্তিযুদ্ধে চূড়ান্ত বিজয় অর্জন করে।

তুরস্কের ইস্তাম্বুলে বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল দিবসটি পালন করে। বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণের মধ্য দিয়ে কর্মসূচির সূচনা হয়। দিবসটি উপলক্ষে কনস্যুলেট ইস্তাম্বুলে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের সঙ্গে ভার্চুয়াল মাধ্যমে দিবসটির ঐতিহাসিক পটভূমি ও তাৎপর্যের ওপর একটি আলোচনা সভার আয়োজন করে।

অনুষ্ঠানে কনসাল জেনারেল ড. মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম তার বক্তব্যে স্বাধীনতার স্থপতি, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন। তিনি পরম শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করেন জাতীয় চার নেতা ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের অবদানের কথা।

অপরদিকে জাপানের টোকিওস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস যথাযথ মর্যাদায় ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালন করে। দূতাবাসের বঙ্গবন্ধু মিলনায়তনে দিবসটির উপর এক আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
আলোচনার শুরুতে জাপানে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত শাহাবুদ্দিন আহমদ স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন। করোনা বিপদসংকুল সময়েও স্বাস্থ্যবিধি মেনে রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব পালন ও অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করার জন্য রাষ্ট্রদূত সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

এইচএস/জেডএইচ/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]