‘নবায়নযোগ্য জ্বালানির প্রসারে বাংলাদেশ প্রচেষ্টা চালাচ্ছে’

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১২:০১ এএম, ১৬ জানুয়ারি ২০২২
বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ/ ফাইল ছবি

সীমিত সম্পদ নিয়েই বাংলাদেশ নবায়নযোগ্য জ্বালানির প্রসারে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালাচ্ছে বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ।

তিনি বলেন, ছয় মিলিয়নেরও বেশি সোলার হোম সিস্টেম স্থাপনের মাধ্যমে গ্রিড নেটওয়ার্কের বাইরে ২০ মিলিয়নেরও বেশি মানুষকে বিদ্যুতায়নের আওতায় আনা হয়েছে। ২৬টি মিনিগ্রিডের মাধ্যমে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে গ্রিডমানের বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হচ্ছে।

শনিবার (১৫ জানুয়ারি) রাতে ইন্টারন্যাশনাল এনার্জি এজেন্সির (আইআরইএনএ) ১২তম অ্যাসেম্বলিতে বক্তব্যকালে প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন। বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

নসরুল হামিদ বলেন, বৈশ্বিক জ্বালানি চ্যালেঞ্জ নির্ভরযোগ্যভাবে সমাধান করতে আন্তর্জাতিক সহযোগিতা অপরিহার্য। আঞ্চলিক ও উপ-আঞ্চলিক সহযোগিতাও বাড়ানো প্রয়োজন। সাশ্রয়ী মূল্যে আধুনিক ও উদ্ভাবনী প্রযুক্তি সবার জন্য উন্মুক্ত রাখতে একসঙ্গে কাজ করতে হবে।

তিনি বলেন, সীমিত সম্পদ নিয়েই বাংলাদেশ নবায়নযোগ্য জ্বালানির প্রসারে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। ২০০০-এরও বেশি সৌর সেচ ব্যবস্থা এখন কাজ করছে যা উল্লেখযোগ্য পরিমাণে ডিজেল খরচ কমিয়েছে। এখন পর্যন্ত ২৩১ মেগাওয়াট ক্ষমতার ৮টি সোলার পার্ক গ্রিডে বিদ্যুৎ সরবরাহ করছে। দেশে স্থাপিত ক্ষমতার সৌরবিদ্যুৎ প্রায় ৬৫০ মেগাওয়াট।

প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, কৃষি বা অন্যান্য ব্যবহারের জন্য জমির প্রতিযোগিতামূলক চাহিদার কারণে বড় আকারে সৌরবিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন করা বাংলাদেশের জন্য বেশ দুষ্কর। ভাসমান সৌরবিদ্যুৎ প্রযুক্তির সম্ভাবনা এবং ছাদে সৌরবিদ্যুৎ উৎপাদনের মতো বিকল্প ব্যবস্থা অন্বেষণ করা হচ্ছে। বাংলাদেশ সরকার ছাদে সোলারকে উৎসাহিত করার জন্য নেট মিটারিং নির্দেশিকা চালু করেছে। নবায়নযোগ্য বিদ্যুৎ উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা পূরণের জন্য সৌরশক্তির পাশাপাশি বায়ুশক্তি, বর্জ্য হতে বিদ্যুৎ উৎপাদনের পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। এখন পর্যন্ত ২৪৫ মেগাওয়াট বায়ু বিদ্যুৎ প্রকল্প বাস্তবায়নাধীন রয়েছে।

বাংলাদেশ সরকার ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের একটি ডাম্পিং সাইটে ৪২ দশমিক ৫ মেগাওয়াট ‘ওয়েস্ট টু এনার্জি’ প্ল্যান্ট নির্মাণের জন্য একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেছে। বৃহৎ আকারে নবায়নযোগ্য বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য সমুদ্রের দিকে নজর দেওয়ার সময় এসেছে। আইআরইএনএ উন্নয়নশীল দেশগুলির সমুদ্রে বায়ুশক্তির সম্ভাব্যতা মূল্যায়ন করতে সহযোগিতা করলে দৃশ্যমান ফল পাওয়া যাবে বলেও জানান নসরুল হামিদ।

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদের সভাপতিত্বে ‘মেম্বার অব ইনভেন্টর্স’ সেশনে জিম্বাবুয়ে, কলম্বিয়া, ভারত, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, এল সালভাদর, বেলজিয়াম, নরওয়ে, উরুগুয়ে, কানাডা, ইন্দোনেশিয়া, সিঙ্গাপুর, গ্রিস, স্পেন, চীন, জাপান, সুইজারল্যান্ড, ক্রোয়েশিয়া, তুর্কমিনিস্থান, সার্বিয়া, জার্মানি, ফ্রান্স, ইটালি, সান মারিনো ও সৌদি আরবের প্রতিনিধিরা বক্তব্য রাখেন।

আরএমএম/কেএসআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]