‘আমার ওপর দায়িত্ব ও দেশ ত্যাগের চাপ ছিল’

সালাহ উদ্দিন জসিম
সালাহ উদ্দিন জসিম সালাহ উদ্দিন জসিম , জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:১৯ পিএম, ২৪ জুন ২০২২

আর মাত্র কয়েক ঘণ্টা পরই উদ্বোধন হতে যাচ্ছে বাংলাদেশের স্বপ্নের পদ্মা সেতু। এ নিয়ে দুর্নীতির প্রশ্ন উঠেছিল বড় করেই। সেসময়ে দায়িত্বে থাকা মন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন, সচিব মোশাররফ হোসাইন ভূইয়াকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছিল। যদিও পরে সেই অভিযোগ আদালতে খারিজ হয়। কিন্তু এ নিয়ে কারো আগ্রহের কমতি নেই। কী হয়েছিল আসলে? সবাই জানতে চায়।

সরকারের সাবেক সচিব ও পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের ইন্টিগ্রিটি অ্যাডভাইজর, বর্তমানে প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমানের মুখে উঠে এসেছে এই প্রকল্পের নানা জানা অজানা গল্প। পদ্মা সেতুর পেছনের এই গল্প জাগো নিউজের পাঠকদের জন্য সেটি তুলে ধরা হলো-

গল্পটা যেখান থেকে শুরু
পদ্মা সেতুর নির্মাণ প্রক্রিয়া শুরুর গল্প বলতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমান বলেন, পদ্মা সেতু করার সিদ্ধান্ত যখন নেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তখন (৯৬ এর আমলে) আমরা বিশ্ব ব্যাংক এবং এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংককে প্রথমে অনুরোধ করি। এরা তাদের অনিচ্ছা জানায়। এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক মৌখিক ও বিশ্ব ব্যাংক চিঠি দিয়ে জানায়, তারা এর সঙ্গে সম্পৃক্ত হতে পারবে না। তখন আমরা একটা পুরোনো দৃষ্টান্ত অনুসরণ করি। যেটা বঙ্গবন্ধু যমুনা সেতুর সময় করেছিলেন। বিশ্ব ব্যাংক ও এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক যখন না করলো, তখন প্রধানমন্ত্রী জাপানে গেছেন। জাপানের প্রধানমন্ত্রীকে দু’একটা প্রকল্প সম্পর্কে অনুরোধ করলেন। তার মধ্যে পদ্মা সেতুও ছিল। বছরের শেষ দিকে আমি তখন ইআরডি সচিব, জাপানের জাইকার যারা বাংলাদেশে আছেন, তারা এসে আমাকে বললেন আগামী দু’একদিনের মধ্যে সরকারকে জানাতে হবে- আমরা কোন প্রকল্পটি চাই।

আমি তখন প্রধানমন্ত্রীকে জানালাম। তিনি খুব সহজে বললেন, পদ্মা সেতু করলে তো বোধহয় ভালো হয়। পদ্মা সেতু করলে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সঙ্গে রাজধানীর যোগাযোগ কেমন হবে? আমি বললাম, পশ্চিমাঞ্চল বলতে যদি পটুয়াখালী, বরিশাল ও খুলনার কথা বলেন, আমি তো এসব এলাকায় দীর্ঘদিন বসবাস করে আসছি। আমার বাড়িও খুলনায়। খুলনা যেতে ৬ ঘণ্টা লাগবে। বরিশাল পটুয়াখালী যেতেও ছয়/সাড়ে ছয় ঘণ্টা লাগবে। সে সময় প্রধানমন্ত্রীর উক্তি হলো-, ‘তাহলে তো রাজধানী মানুষের সবার কাছে যেতে পারবে।’ এই অনুভূতিটা আমি সব সময় বলি। এজন্য বলি যে, আমাদের চারদিকের বাইরে দৃষ্টি যায় না। দেশের নেতৃত্ব যারা দেবেন, তাদের দৃষ্টি আরও প্রসারিত হতে হবে।

আমরা জাপানের কাছে যখন জানালাম আমরা ‘পদ্মা সেতু’ প্রকল্পে টাকা চাই। তখন বিশ্ব ব্যাংক ও এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক ফিরে এলো। তারা জানালো, তারা এই উদ্যোগের সঙ্গে সম্পৃক্ত হতে চায়। এরপর এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক প্রথমে এটা ফিজিবিলিটি করে। বিশ্ব ব্যাংকও আসে। প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য অর্থ সহায়তা দেয় বিশ্ব ব্যাংক, জাইকা এবং তার পরে এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক। ইসলামিক ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকেরও কিছুটা অংশগ্রহণ ছিল।

পদ্মা সেতু নিয়ে যেভাবে দুর্নীতির প্রশ্ন এলো
ড. মসিউর রহমান বলেন, এখানে দুর্নীতির যে প্রশ্ন এলো, দুর্নীতির সম্পর্কে বিশ্ব ব্যাংক আগ থেকেই অনুসন্ধান করেছে, ওদের সাধারণ নীতি হিসেবে। প্রথমে তারা একটি কমিটি করলো, ওই কমিটি সুপারিশও করেছে। পরে আরেকটা কমিটি করেছে, তারাও পর্যালোচনা করে সুপারিশ করেছে। তাতে দেখা গেলো যে, ওদের প্রধান প্রতিবন্ধকতা হলো- কোনো জায়গায় ওরা সরকারি দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তা বা অন্য কারো বিরুদ্ধে আইনের মাধ্যমে বা কোর্টের মাধ্যমে কোনো ব্যবস্থা নিতে পারে না। ওদের সেই কমিটিগুলো সুপারিশ করেছিল- তোমরা তাহলে যে দেশকে ঋণ দিচ্ছ, সেদেশের সরকারের সহায়তায় এই দুর্নীতির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নাও।

তখন বিশ্ব ব্যাংকের স্থানীয় অফিস আমাকে এসে বললো- তাদের নিয়ম অনুসারে একজন ইন্টিগ্রিটি অ্যাডভাইজর নিয়োগ করতে হয়। তারা আমাকে নিয়োগ দিতে চায়। আমি বললাম দেখো, আমি তো সরকারের সঙ্গে আছি। অতএব, সরকারের সম্মতি লাগবে। তোমরা এটা প্রধানমন্ত্রীকে জানাও। যদি প্রধানমন্ত্রী রাজি হন, তাহলে আমি এ দায়িত্ব নিতে পারবো। ইন্টিগ্রিটি অ্যাডভাইজরের নিয়োগ কিন্তু বাংলাদেশ সরকার ও প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদনক্রমে, সেই অনুমোদনে বিশ্ব ব্যাংকের কোনো কিছু নেই।

ওদের প্রথম নালিশ ছিল- এখানে দুর্নীতির আশঙ্কা আছে এবং দুর্নীতি হচ্ছে। বিভিন্নভাবে বিভিন্ন রকম কথা বলে। আমার দায়িত্ব গ্রহণ পরবর্তীসময়ে আমার ধারণা ও বিশ্ব ব্যাংকের ধারণার মতপার্থক্য ছিল। ওরা বারবার আমাকে বলছে যে, তুমি এটা তদন্ত করো। এই নালিশ হয়েছে, এটা দেখো। তখন যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন সম্পর্কে তাদের অনেক রকম নালিশ। আমি তাদের বললাম, আমি মনে করি আমার দায়িত্ব হলো- তোমরা যদি কোনো নালিশ পাও অথবা সরকার যদি কোনো নালিশ পায়, তাহলে উভয়পক্ষকে পরামর্শ দেওয়া। নালিশগুলোর মূল্য কী হতে পারে এবং কীভাবে সেগুলো নিষ্পত্তি হতে পারে। বিশ্ব ব্যাংক ও সরকারের নিজ নিজ তদন্তের ক্ষমতা আছে। আমি আরেকটি তদন্ত সংস্থা হওয়াটা যুক্তিসঙ্গত মনে করি না।

এরপর আমাদের দুর্নীতি দমন কমিশন তদন্ত করলো। তখন ওরাও (বিশ্ব ব্যাংক) একটা সামারি হিসেবে মতামত দেয়। সেখানে আবুল হোসেন সম্পর্কে তাদের মন্তব্য- কোনো একটি লোক তাদের বলেছে যে, ‘আবুল হোসেনের কোম্পানিকে রাখলে তারা এই কনট্রাক্ট পাবে।’ আমাকে যখন তারা এটা দিলো- আমি জিজ্ঞাস করেছি, কোনো একটি লোক বললো- সে লোকটি আবুল হোসেনের ফার্মে কাজ করে কি না এবং আবুল হোসেন সাহেবের পরামর্শে সেখানে গেছেন কি না, সেটা তোমাদের নিশ্চিত হতে হবে। এর ভিতরে দুর্নীতি দমন কমিশন নদীশাসনে যারা বিট করেছে, তাদের বক্তব্য চায়। তারা বলেছে, নদীশাসনের কাজের জন্য কেউ তাদের কাছে কোনো টাকা-পয়সা কেউ চায়নি।

আমি ওদের জানালাম, এই প্রকল্পে নদীশাসনের অংশে সবচেয়ে বেশি খরচ। এরপরে সেতু নির্মোণের খরচ আসবে। বড় বড় ব্যয় যেখানে, সেখানে কেউ কোনো দুর্নীতির গন্ধ পাচ্ছে না। সুপারভিশনের মতো ছোট ছোট বিষয়ে দুর্নীতির সম্পর্ক। এটা বিশ্বাসের অযোগ্য। আমি তাদের বললাম, তোমাদের যে জুরিপ্রুডেন্স আছে, সেটা হয়তো দুর্বল। তোমরা যাদের থেকে খবর পাচ্ছো, তাদের তথ্য গোপন রাখতে হবে। কখনো কোনো মামলায় কোর্টে সামনে হাজির করতে পারো না। অতএব এই মামলা তোমরা কখনো প্রমাণও করতে পারবে না।

তাদের (বিশ্ব ব্যাংক) যে পদ্ধতি, তারা ঠিকাদারদের ‘স্যাংশন’ করে। তখন আমাদের দেশের পত্রপত্রিকায় লেখা হচ্ছে। আমি এ বিষয়ে তাদের বললাম- তোমরা যেসব বিষয়গুলো প্রমাণ বলছো- এগুলো পত্রিকায় প্রকাশিত এবং এই পত্রিকাগুলোর কিছু আছে- যারা সাম্প্রদায়িক ও জঙ্গিবাদের সঙ্গে সম্পৃক্ত, আর কিছু আছে সরাসরি আওয়ামী বিদ্বেষী বলে পরিচিত। তোমরা নিজেদের এদের সঙ্গে জড়ালে একটা বিভ্রান্তিকর ও অপ্রীতিকর পরিস্থিতি তৈরি হবে। এটা তোমাদের খেয়াল রাখা উচিত।

যেভাবে দুর্নীতির অভিযোগ গেছে বিশ্ব ব্যাংকের হাতে
ড. মসিউর রহমান বলেন, মোশাররফ ছিল আমাদের সেতু সচিব (এখন জার্নানিতে রাষ্ট্রদূত); সে আমাকে কতগুলো ইমেইল দেখালো। সেখানে দেখা যায়- পদ্মা সেতু নামে ইমেইল ঠিকানায় কন্ট্রাক্টে জড়িতদের কাছ হতে খোঁজ-খবর নিচ্ছে। মোশাররফ আমাকে যে ইমেলগুলো দেখিয়েছিল, অত্যন্ত কুরুচিপূর্ণ, বিচার-বিবেচনা বর্জিত। আমার মনে হয় না, বিশ্ব ব্যাংকের মতো প্রতিষ্ঠান এসব বক্তব্যের ওপর আস্থা রাখবে। মূল কনসালট্যান্ট ছিলেন বিশ্বব্যাংক হতে অবসরপ্রাপ্ত একজন প্রকৌশলী, তার সহযোগী স্থানীয় বা বাংলাদেশি কনসালট্যান্ট ছিলেন একজন নারী। তারা এক কক্ষে বসতেন। ১৯৭১ সালে পাকিস্তানি হামলাকারীদের আচরণ উল্লেখ করে নারী কনসালট্যান্ট সম্পর্কে অশালীন উক্তি করেছিল। ওয়াশিংটন থেকে বাংলাদেশে তদন্তকারী এসেছিল। গোপন তথ্য সরবরাহকারী তাদের জানায় অনেকেই তাদের দুর্নীতি সম্পর্কে জানাতে চায়, কিন্তু ঢাকায় বসে সাহস পায় না। দু’একজনকে ওয়াশিংটনে নিয়ে গেছে। তাদের কেউ ইমেইলে জানায় বিশ্বব্যাংক দুর্নীতি বন্ধ করতে পারবে কি না সে বিষয়ে সে সন্দিহান। কিন্তু ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরায় বিশ্বব্যাংক প্রেসিডেন্টের বক্তব্য শুনে সে আশান্বিত। স্পষ্ট যে বিশ্ব্যাংকের আতিথ্য বা আশ্রয়ে সে ছিল। তারা আবার লিখলো, বিশ্বব্যাংক দুর্নীতি দমন করতে পারবে না, আমেরিকান কোম্পানিকে কন্ট্রাক্ট দিলে, তারা ব্যবস্থা নেবে। কন্ট্রাক্টরের দায়িত্ব প্রকল্প বাস্তবায়নে যুক্ত হওয়া, সরকার সম্পর্কে গোপন খবর বা সরকারকে নিয়ন্ত্রণ করা নয়।

যেভাবে প্রমাণ হলো ‘দুর্নীতি’র অভিযোগ সত্য নয়
ড. মসিউর রহমান বলেন, সেময় কানাডার সরকারের সঙ্গে আলোচনা করে তাদের মাউন্টেইন পুলিশ দিয়ে এসএনসি লাভলিন যে ফার্ম, তার অফিসে তল্লাশি করে তাদের কম্পিটারসহ সমস্ত কাগজপত্র নিয়ে যায়। এ নিয়ে আমাদের এখানেও খবর প্রকাশ হয়; সেখানে রমেশ নামে এক কর্মকর্তা ছিল, তার ডায়েরিতে কিছু পেয়েছে। কানাডার কোর্টে যখন বিচার গেলো, প্রাথমিক সাক্ষ্য প্রমাণ দেখলো এবং বিশ্ব ব্যাংক তো সরাসরি পক্ষ নয়; কিন্তু বিশ্ব ব্যাংকের যেসব সাক্ষ্য-প্রমাণ ছিল, মাউন্টেইন পুলিশের যেসব সাক্ষ্য-প্রমাণ পেয়েছে সেগুলো তারা কোর্টে উপস্থিত করে। কোর্ট এই শুনানির প্রথমেই বলে- যদি প্রাথমিক শুনানিতে দেখা যায়, তোমাদের সাক্ষ্যপ্রমাণের ভিত্তি নেই ও এগুলোর উপর নির্ভর করে কোনো রায় দেওয়া সম্ভব নয় তাহলে তোমরা প্রসিড করতে চাও কি না? ওরা একটা চুক্তিতে আসে যে, যদি প্রাথমিক সাক্ষ্য-প্রমাণ গ্রহণযোগ্য না হয়, তাহলে ওরা আর এই মোকাদ্দমা পারসু করবে না। প্রাথমিক শুনানির পর কানাডার আদালত সেটি খারিজ করে দেয়।

এসএনসি লাভলিনের ওয়েবসাইটে এবং এটার সঙ্গে সম্পৃক্তদেরও ওয়েবসাইটে রায় প্রকাশ করে। আইনের একটা নীতি আছে, যদি দুই পক্ষ মনে করে তাদের কোনো সাক্ষ্য-প্রমাণের ভিত্তি নেই, তাহলে তারা প্রসিড করে না। এটাই ছিল রায়। এসএনসি লাভলিন তাদের ওয়েবসাইটে বললো, তাদের এক বছরের জন্য অযোগ্য ঘোষণা করেছে। এক বছরে তারা বিশ্ব ব্যাংকের কাজ করতে পারবে না। এমন কিছু উপস্থাপন করেনি, যেটা সরকারি গেজেটে উপস্থাপিত নয়। অর্থাৎ, কোনো সাক্ষ্য-প্রমাণ নেই।

বিদেশি চাপ ছাড়াও আরও অনেক চাপ ছিল
ড. মসিউর রহমান বলেন, প্রধানমন্ত্রী দূরদৃষ্টি ও সৎ সাহস যদি না থকতো তাহলে পদ্মা সেতুর কাজ শুরু হতো না। ওই সময় বিদেশি চাপ ছাড়াও আরও অনেক চাপ ছিল। যেটা নেত্রী অনুভব করেছেন, আমরাও করেছি। যেটা বাইরে অতটা প্রকাশ পায়নি।

পদ্মা সেতুর দুর্নীতির অভিযোগ তেলার আগে ঋণ দেওয়ায় প্রত্যেকে তার নিজের নিজের নিয়ম অনুসরণ করতো। কো-ফাইন্যান্সিং করলে যেহেতু অন্য কেউ না এলে টাকার ঘাটতি হবে এজন্য চুপ থাকতো। কিন্তু পদ্মা সেতুর ক্ষেত্রে বিশ্ব ব্যাংক- জাইকা, এডিবিসহ অনেকে উপর চাপ সৃষ্টি করলো যে, বিশ্ব ব্যাংক কোথাও দুর্নীতির কারণে অর্থায়ন বন্ধ করলে তারা করবে। এরকম চাপ তারা সৃষ্টি করলো। আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলের এই চাপ সৃষ্টির বিরুদ্ধে একটা অবস্থান নেওয়া কিন্তু সাহসী না হলে সম্ভব হতো না।

‘আমার ওপর দায়িত্ব ও দেশ ত্যাগের চাপ ছিল’
ড. মসিউর রহমান বলেন, আমার ওপর যে চাপ ছিল, আইডিবি বাদে অন্য যারা অর্থায়ন করেছে- এডিবি, বিশ্ব ব্যাংক ও জাইকা- এরা সময় নির্ধারণ করে আমার সঙ্গে দেখা করতে চাইলো। প্রথমে তারা বললো- জাপানি অ্যাম্বাসেডর অফিসে। আমি বললাম- আমি সেখানে যাবো না। কারণ আমার মনের ভেতর যুক্তি ছিল- আমি সেখানে গেলে মানুষ ভাববে আমি বোধহয় তাদের কাছে নতজানু হয়ে সুবিধা চাচ্ছি। জাপানি অ্যাম্বেসেডরকে বললাম, তুমি আমার এখানে এসো। জাপানি অ্যাম্বাসেডর বললো, তোমার ওখানে গেলে সাংবাদিকদের ফেস করতে হবে। আমি সেটা পারবো না। পরে আমি বললাম, সাংবাদিকদের আমি ফেস করবো। তোমরা এসো। পরে ওরা এসে আমাকে বললো- আমাকে দায়িত্ব ত্যাগ করতে হবে, দেশও ত্যাগ করতে হবে। তারা আমাকে বিদেশে বা বিশ্ব ব্যাংকে বা এডিবিতে একটা কনসালটেন্সি যোগাড় করে দেবে এবং আমি যে বেতন চাই- সে বেতনই তারা ব্যবস্থা করবে। তারা কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে আমার কিছু কাজ ঠিক করে দেবে, তারা টাকা দেওয়ার বন্দোবস্ত করে দেবে। আমি বললাম, আমার যদি টাকা নেওয়ার ইচ্ছা থাকতো, তাহলে তোমরা যে বিষয়ে দোষারোপ করছো, এখানেই তো টাকা আয় করতে পারতাম। ওদের প্রস্তাবটা সামঞ্জস্যহীন ছিল। যে দোষ করেছে, তাকেই পুরস্কৃত করার অফার করছে। এর পেছনে তাদের বুদ্ধি থাকতে পারে- কারণ আমি এই ষড়যন্ত্র সম্পর্কে শক্ত অবস্থান নিয়েছিলাম। অবশ্য, আমার এই শক্ত অবস্থানের কারণ ছিল।

বিশ্ব ব্যাংকের পাশাপাশি আমার এ দেশীয় বন্ধুও বলেছে, তোমার নামে এগুলো ছড়াচ্ছে। পত্রপত্রিকায় লেখালেখি হচ্ছে। তুমি দেশ ছাড় না কেনো? আমি বললাম, আমি দেশ ছাড়বো না এজন্য যে, দেশ ছেড়ে গেলে আমার পায়ের তলায় মাটি থাকবে না। আমার ক্ষমতা ততদিন, যতদিন আমি দেশের মধ্যে আছি। আরেকটি হলো- প্রধানমন্ত্রী আমাকে সাহস যুগিয়েছেন। আমি যেটা বলি- আমার উপরে একটা বড় ছায়া আছে। সে ছায়া বঙ্গবন্ধুর ছায়া। ওই ছায়া যতদিন থাকবে, ততদিন আমি নিরাপদ। ওই ছায়া যখন থাকবে না, ওই ছায়া থেকে যেদিন আমি সরে যাবো, সেদিন আমি সহায়হীন হয়ে যাবো।

দুটো বড় কাজের গৌরব আওয়ামী লীগের
ড. মসিউর রহমান বলেন, বঙ্গবন্ধু ১৯৭৪ সালে জাপান সফর করেছিলেন। তখন উনি যেসব প্রকল্পের কথা জাপানের বিনিয়োগের কথা বলেছেন, সেটার মধ্যে যমুনা সেতু ছিল। যমুনা সেতুর কিছু কাজ হয়েছিল বঙ্গবন্ধুর জীবদ্দশায়। ওনার নিষ্ঠুর হত্যাকাণ্ডের পর এটি বন্ধ হয়ে যায়।

৯৬ সরকারে এসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাপান সফরে গিয়ে পদ্মা সেতুসহ কয়েকটি প্রকল্পে অর্থায়নের কথা বলেন। আজ যেগুলো বাস্তবায়ন হয়েছে।

বাংলাদেশের বড় দুটো নদী দিয়ে দেশটা বিভক্ত। দুটো সেতু দিয়ে আবার দেশকে সংযুক্ত করা হয়েছে। এর একটি উদ্যোগ নিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু, আরেকটির উদ্যোগ নিয়েছেন বঙ্গবন্ধুর মেয়ে শেখ হাসিনা। এই দুটো বড় কাজের গৌরব আওয়ামী লীগের।

এই এক পদ্মা সেতু বাংলাদেশের যাতায়াত ও অর্থনীতির চিত্র পাল্টে দেবে। যদি এখন পদ্মা সেতু পার হয়ে গোপালগঞ্জের মধ্য দিয়ে খুলনা বা বরিশালের দিকে যান, তাহেল দেখবেন মাঝে যে জায়গাগুলো আছে, বেশ কিছু জায়গায় রাস্তার পাশে সাইনবোর্ড- এখানে এই ইন্ডাস্ট্রি হবে, সেই ইন্ডাস্ট্রি হবে। এই যে উন্নয়নের গতি ও মানুষের মধ্যে উন্মাদনা সৃষ্টি হয়েছে, সেটা বড় জিনিস। উন্নয়নের উন্মাদনা-স্পৃহা। জনগণের এই স্পৃহার উৎস শেখ হাসিনা। তার আগে ছিল বঙ্গবন্ধু। শেখ হাসিনার সাহসিকতার ফলেই পদ্মা সেতু হয়েছে।

এশিয়ান হাইওয়েসহ নানা কারণে বাংলাদেশ বিশ্ব অর্থনীতির কেন্দ্রে এসে গেলো। এজন্য আমাদের কিছু কাজ করতে হবে। কাজের জন্য উৎসাহ ও স্পৃহা আমাদের নেতৃত্বের কাছে আমরা পেয়েছি।

আলো যারা দেখতে পারে, তারা জাতিকে লিড দেবে
সমালোচকদের সমালোচনার জবাবে ড. মসিউর রহমান বলেন, কারো চোখে যদি ছানি পড়ে, যতেই সূর্যের আলো আসুক, দেখতে পাবে না। ছানি নিয়ে যারা দেখে তারা তো কখনো আলো দেখতে পাবে না। তাদের কাছে মনে হয়, এই পৃথিবীটা অন্ধাকারাচ্ছন্ন। অন্ধকারে যারা আছে, ওরা জাতিকে কখনো অন্ধকার থেকে বের করতে পারবে না। এটা তাদরে মানসিক অন্ধত্বের পরিচয়। যারা আলো দেখতে পারে, আলো দেখাতে পারে, তারা জাতিকে লিড দেবে।

(বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ আয়োজিত অনলাইন টকশো থেকে সংকলিত)

এসইউজে/এএসএ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]