চকবাজারের লাশের প্রকৃত হিসাব জানতে দিচ্ছে না সরকার : মান্না

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:৩৫ পিএম, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯
ফাইল ছবি

চকবাজারের অগ্নিকাণ্ডে সরকারের সমালোচনা করে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছেন, ‘এ ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় মোট কতজন মারা গেছেন বলেন তো? পত্র-পত্রিকা লিখেছে ৭১ জন, ঘটনার পর বলছে ৭৬ জন, প্রথম আলো লিখেছ মৃত্যুর সংখ্যা নিয়ে সংশয়। নিউইয়র্ক টাইমস লিখেছে ১১০ জন।’

তিনি বলেন, ‘এখন পর্যন্ত আমি-আপনি কি জানি আরও কতজন লোক মরেছে? সব লাশের হদিস পাওয়া যাচ্ছে না। অনেকে বলছে, সরকার লাশের প্রকৃত হিসাব জানতে দিচ্ছে না।’

চকবাজারের অগ্নিকাণ্ডে নিহতদের স্মরণে এক নাগরিক শোকসভায় তিনি এসব কথা বলেন। জাতীয় প্রেস ক্লাবে অনুষ্ঠিত এই শোকসভার আয়োজন করে গণফোরাম।

কেমিক্যাল কারখানা ও গোডাউনের মালিকদের কাছ থেকে সাবেক দুই শিল্পমন্ত্রী লক্ষ-কোটি টাকার উৎকোচ গ্রহণ করেছেন অভিযোগ করে মান্না বলেন, এই জন্য কারখানাগুলো সরেনি। বর্তমান শিল্পমন্ত্রী বলেছিলেন, চকবাজারের অগ্নিকাণ্ড সিলিন্ডার বিস্ফোরণে ঘটেছে। কারণ, এটা স্থানীয় ব্যবসায়ীরা বলেছিলেন। এরপর আমি আর সিলিন্ডার মন্ত্রীকে দেখছি না। এ ব্যাপারে তিনি আর কোনো কথা বলছেন না। কারণ, তার কথার কোনো সত্যতা মিলছে না।

সরকারের কাছে টাকাটা বড় মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘নিমতলীর ঘটনার পর ১৭ দফা দাবি ওঠার পর কে না জানে যে, এই প্লাস্টিকের কারখানা কত বিপজ্জনক?’

১০ বছরে কোনো কাজ হয়নি উল্লেখ করে মান্না বলেন, ‘দুই দিন আগে রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ ক্ষমতাধর ব্যক্তি হাসপাতালে গিয়ে বললেন, একটা কোনো ঘটনা ঘটলেই সাংবাদিকরা কথা বলে- এতো কিসের কথা, আগে কাজ করতে দিন। আপনাদেরতো (সরকার) ১০ বছর কাজ করতে দেয়া হয়েছিল, আপনারা কোনো কাজ করতে পারেন নি। এখন কীভাবে বিস্ফোরণ ঘটেছে এর কারণ তো সাংবাদিক জানবে, তাই না?’

চট্টগ্রামের বিমান ছিনতাইয়ের চেষ্টা প্রসঙ্গে মান্না তার বক্তব্যে বলেন, ‘ চট্টগ্রামের বিমান হাইজ্যাক, এটা কী কোনো হাইজ্যাকের ঘটনা? একটা লোক একা কীভাবে বিমান হাইজ্যাক করে? সেই খেলনা পিস্তল আর পাওয়া যাচ্ছে না। এই কমান্ডোরা কী কমান্ডো বলেন তো, তারা নিরস্ত্র একজন ব্যক্তিকে ধরতে পারলো না, তাকে হত্যা করলো। ঘটনা কী? এ ঘটনা চাপা রাখতে পারবে না।’

বঙ্গবন্ধু আমাদের অহঙ্কার মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের সাবেক এই নেতা বলেন, তিনি বিশ্বমানের নেতা, কিন্তু তিনি বাকশাল করেছিলেন, তাকে মানুষ পছন্দ করেনি। এখন তার কন্যা যদি মনে করেন, ভোট দখল করে একদলের শাসন করবেন তাহলে তিনিও ভুল করছেন।’

মান্না বলেন, ‘আজ এই শোকসভায় শুধু কাঁদতে আসিনি কান্নাকে বারুদে পরিণত করতে এসেছি, এই সরকারের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে এসেছি।

গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেনের সভাপতিত্বে সভায় জেএসডি সভাপতি আ স ম আব্দুর রব, গণস্বাস্থ্যকেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান প্রমুখ বক্তৃতা করেন।

কেএইচ/জেডএ/এমএস

টাইমলাইন  

আপনার মতামত লিখুন :