বস্তিবাসীর ওপর শকুনের দৃষ্টি পড়েছে : রিজভী

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:০৯ পিএম, ২৬ আগস্ট ২০১৯

বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার ‘খালি করার নীতিতে’ দেশ চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেন, ‘মিরপুরের চলন্তিকা, আরামবাগসহ একের পর এক বস্তিতে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটছে। এসব বস্তিতে বসবাসকারী অসহায় বস্তিবাসীর ওপর শকুনের দৃষ্টি পড়েছে। ক্ষমতাসীনদের কারও ওই জায়গাটা দখল করতে হবে -এ জন্য খালি করতেই আগুন লাগিয়ে দিয়েছে।’

সোমবার (২৬ আগস্ট) দুপুরে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ঢাকা মহানগর উত্তরের পক্ষ থেকে মিরপুরের চলন্তিকা বস্তিতে অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের মাঝে আর্থিক অনুদান প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

গত ১৬ আগস্ট দিনগত রাতে রাজধানীর মিরপুরের চলন্তিকা বস্তিতে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এতে ওই বস্তির প্রায় ৩ হাজার ঘর পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। তাদের মধ্যে কিছু মানুষের হাতে আর্থিক অনুদান তুলে দেন রিজভী।

চলন্তিকা বস্তিকে অত্যন্ত পরিকল্পিতভাবে পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে অভিযোগ করে রিজভী বলেন, ‘আজকে মিডনাইট সরকার খালি করার নীতিতে দেশ চালাচ্ছে। সারা বাংলাদেশ থেকে বিরোধী দল খালি করে দাও, বিএনপিকে খালি করে দাও, এজন্য তারা গুম, ক্রসফায়ার, মামলা, গ্রেফতার এবং আটক করে রেখে দেশ থেকে বিরোধী দল খালি করতে চায়। অন্যদিকে বস্তির অসহায় মানুষের ওপর শকুনের দৃষ্টি পড়েছে।’

তিনি বলেন, ‘ক্ষমতাসীনদের কারও বস্তির জায়গা প্রয়োজন, দখল করতে হবে, অতএব ওই জায়গাটা খালি করো। কীভাবে করবে? এজন্য তারা আগুন লগিয়ে দিয়েছে। কয়েকটি জায়গায় এ ধরনের পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে। প্রথমে আগুন লাগিয়ে অসহায় মানুষদের মাটির সাথে মিশিয়ে দিয়েছে। এরপর ওই জায়গাগুলো তারা দখল করছে। এটা হচ্ছে আওয়ামী সরকারের খালি করার নীতি।’

লড়াই করতে না পারলে কারও অস্তিত্ব থাকবে না মন্তব্য করে রিজভী বলেন, ‘আজকে পরিবার, বস্তি, জনপদ থেকে শুরু করে দেশের গণতন্ত্রে বিরোধী দলের অস্তিত্বকে খালি করে দেয়ার চেষ্টা করছে আওয়ামী লীগ সরকার। এখান থেকে বেরিয়ে আসতে হলে আমাদের একযোগে লড়াই করতে হবে। না করলে কারও অস্তিত্ব থাকবে না। কারও গৃহ থাকবে না, বাড়ি থাকবে না, সন্তান-সন্ততি থাকবে না।’

তথাকথিত উন্নয়নের নামে সরকার মানুষের সাথে উপহাস, হাসি-ঠাট্টা করছে অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘সরকারের লোকেরা গর্ব করে বলে দেশ উন্নত হলে সেখানে ডেঙ্গু হয়। মানুষকে নিয়ে কীভাবে তারা হাসি-ঠাট্টা করে? অথচ এটা একটা মহামারি, প্রতিদিন মানুষের মৃত্যু হচ্ছে। এটাকে তারা তাদের তথাকথিত উন্নয়নের সাথে মিলিয়ে বলছে, উন্নয়ন হচ্ছে বলেই এডিস মশার প্রাদুর্ভাব হচ্ছে।’

আওয়ামী লীগের ইচ্ছায়ই ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় তারেক রহমানের নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে অভিযোগ করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, ‘২১ আগস্ট বোমা হামলা মামলায় ওনাদেরই (আওয়ামী লীগ) লোকেরা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের নামে চার্জশিট দিতে পারেনি। কিন্তু আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে সম্পূরক চার্জশিটে তারেক রহমানের নাম অন্তর্ভুক্ত করে। অথচ তার আগের দুটি চার্জশিটের কোনটিতেই তারেক রহমানের নাম ছিল না।’

মহানগর উত্তর বিএনপির দফতর সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাকের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে উত্তরের সাধারণ সম্পাদক আহসান উল্লাহ হাসান, মো. ইয়াছিন আলী, সাজ্জাদ হোসেন, মোয়াজ্জেম হোসেন মতিন, মো. আউয়াল, ইঞ্জিনিয়ার মজিবর রহমান, হাজি মো. তৈমুর, রেজাউল কবীর, মো. আলাউদ্দীন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

কেএইচ/আরএস/জেআইএম