ভূমধ্যসাগরের বুকে দ্বীপরাষ্ট্র মাল্টা

প্রবাস ডেস্ক প্রবাস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:১৭ পিএম, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১

ভূমধ্যসাগরের বুকে ক্ষুদ্র একটি দেশ মাল্টা। সরকারি নাম মাল্টা প্রজাতন্ত্র। ছোট ও সুন্দর এ দুটি বিশেষণ পুরোপুরি এ দেশটির জন্য প্রযোজ্য। ভূমধ্যসাগরের আরামদায়ক আবহাওয়া, পরিকল্পিত ও পরিবেশবান্ধব গোছানো শহর, মানুষের পর্যটকবান্ধব মন, অভ্যন্তরীণ অবকাঠামো এবং আকাশ ও সমুদ্রপথে যোগাযোগব্যবস্থা দেশটিকে পর্যটকদের জন্য স্বর্গরাজ্যে পরিণত করেছে।

মাল্টা ইতালির সিসিলি দ্বীপের প্রায় ১০০ কিমি দক্ষিণে এবং আফ্রিকা মহাদেশের প্রায় ৩০০ কিলোমিটার উত্তরে প্রবাল দ্বীপ নিয়ে গঠিত। এর মধ্যে কেবল মাল্টা, গোজো ও কোমিনো দ্বীপে মনুষ্যবসতি আছে। দ্বীপগুলোর তটরেখা অনিয়মিত, ফলে অনেক প্রাকৃতিক পোতাশ্রয় আছে।

মাল্টার মাথাপিছু আয় প্রায় ৪৫ হাজার ৬০৬ ডলার। অর্থনীতির মূল চালিকা শক্তি হলো বৈদেশিক বাণিজ্য। দেশটি পৃথিবীর অন্যান্য দেশের নৌবাণিজ্যের শিপমেন্ট পয়েন্ট হিসেবে কাজ করে। এছাড়া বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম ও টেক্সটাইল শিল্প এবং পর্যটন শিল্প এর অর্থিনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে

Malta1.jpg

মাল্টায় পর্যটকদের আনাগোনা সারাবছরই লেগে থাকে। ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানগুলো পর্যটকদের উপরে নির্ভরশীল। পর্যটকদের সেবা দিতে বিভিন্ন হোটেল-মোটেল, রেস্টুরেন্টসহ নতুন নতুন পর্যটক কেন্দ্র হচ্ছে দেশটিতে।

বার্ষিক এক মিলিয়নেরও বেশি পর্যটক মাল্টায় আসেন, মূলত যুক্তরাজ্য, জার্মানি, ইতালি এবং রাশিয়া থেকে। বিদেশি অতিথিরা সাধারণত বহু সৈকত, ঐতিহাসিক শহরগুলো পরিদর্শন করেন। সর্বাধিক জনপ্রিয় পর্যটন আকর্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে ‘ব্লু গ্রোত্তো’, ‘ডিঙ্গলি ক্লিফস’, ভ্যালাটাটার পুরানো শহর এবং মোদিনার দুর্গ শহর।

দেশটি ইইউ সবচেয়ে ছোট রাজধানী হিসেবে পরিচিত। সংস্কৃতিগত কারণে, এটি ১৯৮০ সালে ইউনেস্কোর ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট হিসেবে নিবন্ধিত হয়েছিল এবং ২০১৮ সালে ইউরোপের সংস্কৃতি রাজধানী ছিল।

Malta1.jpg

ভ্যালেটার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দর্শনীয় স্থানগুলোর মধ্যে রয়েছে গ্র্যান্ড মাস্টার্স প্রাসাদ, সেন্ট জনস কো-ক্যাথেড্রাল, ফোর্ট সেন্ট এলমো, বেশ কয়েকটি মধ্যযুগীয় হোস্টেল, বিভিন্ন জাদুঘর, গীর্জা, স্কোয়ার এবং অন্যান্য অনেক প্রাসাদ। বিশেষত আকর্ষণীয় বিল্ডিংগুলো হলো সিটি গেট, ক্যাসটেলানিয়া, ট্রাইটন ঝর্ণা বা অবরোধের ঘণ্টা।

ভ্যালিটটার মনোরম পুরোনো শহর সবচেয়ে সুন্দর পুরোনোগুলোর একটি। একটি দর্শন অবশ্যই সার্থক এবং প্রতিটি পেইন্টিং ছুটির নির্মাতাদের জন্য এটি একটি চূড়ান্ত আবশ্যক। খাড়া দীর্ঘ সিঁড়ি, আবদ্ধ রাস্তায় বা নিখুঁতভাবে স্থাপন করা হয়েছে।

ভূমধ্যসাগরীয় দ্বীপটি গ্রেট ব্রিটেনের অংশের মতো দেখায়। অনেকগুলো বার এবং রেস্তোঁরা বেশিরভাগই ব্রিটিশ স্টাইলে সজ্জিত। মাল্টা দ্বীপটি একটি চমৎকার ছুটির গন্তব্য এবং এর মনোরম উপসাগরসহ ভূমধ্যসাগর একটি সংক্ষিপ্ত ভ্রমণের জন্য সবসময় ভালো লাগবে।

Malta1.jpg

মাল্টা দেশটি ছোট হলে কী হবে? দেশটিতে দেখার আছে অনেক কিছুই। মানোয়েল দ্বীপের পাশে গ্র্যান্ডমাস্টার মানোয়েল দে ভিলহেনার দুর্গ, বাগানের সৌন্দর্য দেখে কিছু সময় কাটাতে চাইলে আপার বারাক্কা গার্ডেনস কিংবা মাল্টার ইতিহাস সমৃদ্ধ প্রত্নতাত্ত্বিক জাদুঘরে একবার ঢুঁ মেরে আসা যায়। আর নিরিবিলিতে শপিং করা আর রাস্তায় প্রিয়জনকে নিয়ে নিরিবিলি হেঁটে বেড়ানোর জন্য শহর তো রয়েছেই।

ইউরোপে গ্রীষ্মকাল এলেই পর্যটকেরা ভিড় করেন মাল্টার বন্দরে। ভূমধ্যসাগরের পানি আছড়ে পড়ে মাল্টার সমুদ্রতটে। সৈকতে চলতে থাকে নানান দেশের মানুষের আনন্দ–উৎসব মেলা। সূর্য ডুবে গেলে এই পর্যটকেরা ভিড় জমান রেস্তোরাঁয়। সূত্র: এসভেনলুকাওয়ালর্ড।

এমআরএম/এমএস

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]