আনুগত্য সম্পর্কে কুরআনের নির্দেশনা

ধর্ম ডেস্ক
ধর্ম ডেস্ক ধর্ম ডেস্ক
প্রকাশিত: ১২:১৫ পিএম, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০

আল্লাহ ও তার রাসুলের আনুগত্যই বিশ্ব মানবতার মুক্তির একমাত্র পথ । আবার বিশ্বনবির অনুসরণকে আল্লাহ তাআলার ভালোবাসা লাভের পূর্বশত বলে ঘোষণা করা হয়েছে। কুরআনুল কারিমে এমনই ঘোষণা দিয়েছেন স্বয়ং আল্লাহ তাআলা।

পরের আয়াতেই আল্লাহ তাআলা তার রাসুলের প্রতি আনুগত্যের নির্দেশ দিয়েছেন। আনুগত্যের বাইরে গেলে পরিণতি কী হবে তাও সুস্পষ্ট ঘোষণা এসেছে এ আয়াতে।

বিশ্ববাসীকে জানিয়ে দেয়া হয়েছে যে, আল্লাহ ও তার রাসুলের অনুসরণ ও অনুকরণ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিলেই তা হবে কুফরি। কুফরের সঙ্গে জড়িত কাউকে আল্লাহ তাআলা ভালোবাসেন না। আল্লাহ তাআলার ঘোষণা-
قُلْ أَطِيعُواْ اللّهَ وَالرَّسُولَ فإِن تَوَلَّوْاْ فَإِنَّ اللّهَ لاَ يُحِبُّ الْكَافِرِينَ
অনুবাদ : ‘(হে রাসুল!) আপনি বলে দিন, আল্লাহ ও রাসুলের আনুগত্য প্রকাশ কর। আর যদি তারা বিমুখতা অবলম্বন করে, তাহলে আল্লাহ কাফেরদের ভালোবাসেন না।’ (সুরা ইমরান : আয়াত ৩২)

আয়াত নাজিলের কারণ
সুরা আল-ইমরানের ৩২ নং আয়াতটি শুধু রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে সম্বোধন করেই ঘোষণা করা হয়নি বরং রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের মাধ্যমে সাধারণ মানুষকেও সম্বোধন করা হয়েছে।

কেননা আগের আয়াতেই আল্লাহ তাআলা মানুষকে প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের আনুগত্যের বিষয়টি এভাবে তুলে ধরেছেন-
‘(হে রাসুল! আপনি) বলুন, যদি তোমরা আল্লাহকে ভালোবাসতে চাও, তবে আমার অনুসরণ কর; তাহলেই আল্লাহ তোমাদের ভালোবাসবেন এবং তোমাদের গোনাহসমূহ ক্ষমা করে দেবেন। আর আল্লাহ হলেন ক্ষমাশীল দয়ালু।’ (সুরা আল-ইমরান : আয়াত ৩১)

আয়াত দুটিতে রয়েছে গভীর সামঞ্জস্য। বিশ্বনবির আনুসরণ ও আনুগত্যের মধ্যেই আল্লাহর আনুগত্য শামিল। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের আনুগত্যের মাধ্যমেই মহান আল্লাহর আনুগত্য করা যায়। কেননা তিনি আল্লাহর পক্ষ থেকে মহাগ্রন্থ আল-কুরআন নিয়ে বিশ্ব মানবতার সামনে উপস্থিত হয়েছেন।

তাই যারা আল্লাহর বিধান কুরআন ও রাসুলের আনুগত্যকে অস্বীকার করে কিংবা অবাধ্যতা প্রকাশ করে আল্লাহ ও তার রাসুলের মহব্বতে মুখে খই ফুটায়, কুরআন-সুন্নাহর নির্দেশ বাস্তবায়ন করে না, তাদের উদ্দেশ্যেই এ আয়াত নাজিল করা হয়েছে।

আল্লাহর ভালোবাসা বা রাসুলের অনুসরণ সম্পর্কে মুখে যত খুই ফুটানো হোক না কেন, আল্লাহর বিধানের অনুসরণ ছাড়া তা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য হবে না। মূলত তারা আল্লাহ ও তার রাসুলকে অস্বীকারকারী। আর তাদেরকে আল্লাহ তাআলা ভালোবাসেন না।

উল্লেখিত আয়াতের আলোকে এ কথা সুস্পষ্ট যে, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের ভালোবাসার দাবিদার হলেই চলবে না বরং আল্লাহ ঘোষিত সব বিধান পালন করতে হবে।

মুখের ভালোবাসায়, বক্তব্যের মাধ্যমে গুণ বর্ণনা করে আল্লাহ ও তার রাসুলকে সিক্ত করলেই চলবে না, কুরআন ও সুন্নাহর বিধান বাস্তবায়নপূর্বক এর পরিপূর্ণতা বিধান করতে হবে। এ আয়াতে সে বিষয়টিই তুলে ধরা হয়েছে।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে আল্লাহ ও তার রাসুলের বিধানের অনুসরণ ও অনুকরণ করে প্রকৃত মুমিন হওয়ার তাওফিক দান করুন। আমিন।

এমএমএস/এমএস