দেরিতে দোয়া কবুল হয় কেন?

ইসলাম ডেস্ক
ইসলাম ডেস্ক ইসলাম ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৩:১৯ পিএম, ১১ মে ২০২২

অনেক সময় আল্লাহ দোয়াকারীর বৃহত্তর স্বার্থে দোয়া দেরিতে কবুল করেন। তিনি যেহেতু সর্বজ্ঞানী, তিনি জানেন যে তার বান্দা যে ছোট বিষয়ে দোয়া করেছে তিনি তাকে বৃহত্তর আরেকটি লক্ষ্য অর্জনের জন্য পিছিয়ে দেন। হতে পারে, বান্দা তখন দোয়া নাও করতে পারে কিংবা বৃহত্তর সেই স্বার্থের কথা চিন্তা করতে পারছে না অথবা পরকালের বৃহত্তর বিপদে রক্ষা করা ও মুত্তির জন্য তার ঐ দোয়াকে দুনিয়ার জন্য কবুল করা হয় না। এর বিনিময়ে পরকালে তাকে উত্তম বিনিময় দেওয়া হবে। এই সকল কারণে আল্লাহ কোনো কোনো সময় দোয়া দেরিতে কবুল করেন। তাই দোয়াকারীর নিরাশ/হতাশ হওয়া চলবে না।

আবার তাড়াহুড়ো করলেও দোয়া দেরিতে কবুল হয়। নবিজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হাদিসে পাকের বর্ণনায় তা এভাবে সুস্পষ্ট করেছেন-

হজরত ফোদালা ইবনে ওবায়েদ রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেছেন, নবিজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এক ব্যক্তিকে নামাজে দোয়ারত অবস্থায় দেখলেন যে, সে আল্লাহর প্রশংসা ও নবিজীর উপর দরূদ পড়েনি। তখন তিনি (নবিজী) বললেন, 'সে তাড়াহুড়ো করেছে।' তারপর তিনি তাকে কাছে ডাকেন এবং তাকে কিংবা অন্য কাউকে বলেন, 'তোমাদের কেউ নাাজ পড়লে সে যেন আল্লাহর প্রশংসা করে ও গুণগান গায়। নবির উপর দরূদ পড়ে এবং তারপর যা ইচ্ছা তা যেন দোয়া করে।' (তিরমিজি)

এ হাদিস থেকে বুঝা গেলো, তাড়াহুড়ো করে দোয়া করলে যেন তা দ্রুত কবুল হয় না। আবার আল্লাহর প্রশংসা ও নবির প্রতি দরূদ না পড়লেও দোয়া দ্রুত কবুল হয় না। তাই দোয়া কবুল হওয়ার আশায় ধীরস্থিরভাবে আল্লাহর তাসবিহ-তাহলিল এবং নবির প্রতি দরূদ পড়ে দোয়া করা জরুরি। 

মনে রাখতে হবে

দোয়া করার পর যদি তা কবুল না হয়; তবে মহান আল্লাহ এই দোয়া সংরক্ষিত রাখবেন। এরচেয়ে বেড় কোনো চাহিদায় এ দোয়া তার জন্য কার্যকরী হবে।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে হাদিসের দিকনির্দেশনা অনুযায়ী দোয়া করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

এমএমএস/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]