নামাজের রুকুতে পড়ার উত্তম দোয়া


প্রকাশিত: ১০:১২ এএম, ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৫

নামাজরে ভিতরে রয়েছে ৬টি ফরজ। এর মধ্যে রুকু একটি। আমরা রুকুতে কি পড়ি? সাধারণ রুকুতে যে তাসবিহ পড়া হয়, তাছাড়াও আরো অনেক তাসবিহ রয়েছে। যা অনেক গুরুত্ব বহন করে। আল্লাহর কাছে অনেক প্রিয় হওয়া যায়। এ তাসবিহগুলো জাগো নিউজে তুলে ধরা হলো-

এক.
«سُبْحَانَ رَبِّيَ الْعَظِيْمِ».

উচ্চারণ : সুবহা-না রব্বিয়াল আ`যিম। (তিরমিজি, আবু দাউদ)
অর্থ : “আমার প্রভু পবিত্র ও মহামহিম।

দুই.
«سُبْحَانَكَ اللَّهُمَّ رَبَّنَا وَبِحَمْدِكَ، اللَّهُمَّ اغْفِرْ لِي».

উচ্চারণ : সুবহা-নাকাল্লা-হুম্মা রব্বানা ওয়া বিহামদিকা আল্লা-হুম্মাগফির লী। (বুখারি ও মুসলিম, মিশকাত, মুসনাদে আহমদ)
অর্থ : “হে আল্লাহ! আমাদের রব্ব! আপনার প্রশংসাসহ আপনার পবিত্রতা ও মহিমা ঘোষণা করছি। হে আল্লাহ! আপনি আমাকে মাফ করে দিন।” হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা বলেন, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এ দোয়াটি বেশি বেশি পড়তেন।

তিন.
«اللَّهُمَّ لَكَ رَكَعْتُ وَبِكَ آمَنْتُ، وَلَكَ أَسْلَمْتُ، خَشَعَ لَكَ سَمْعِيْ وَ بَصَرِيْ وَ مُخِّي وَ عَظْمِيْ وَ عَصَبِيْ -
উচ্চারণ : আল্লা-হুম্মা লাকা রাকাআতু ওয়াবিকা আ-মানতু ওয়া লাকা আসলামতু। খাশাআ লাকা সামঈ, ওয়া বাসারি, ওয়া মুখখি ওয়া আজমি, ওয়া আসাবি।
অর্থ :  “হে আল্লাহ! আমি আপনার জন্যই রুকু করলাম, আপনার উপরই ঈমান এনেছি, আপনার কাছেই নিজেকে সঁপে দিয়েছি। আপনার নিকট অবনত আমার শ্রবণশক্তি, আমার দৃষ্টিশক্তি, আমার মজ্জা, আমার অস্থি ও আমার শিরা-উপশিরা।” (মুসলিম, মিশকাত)

পরিশেষে...
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের শিখানো পদ্ধতির মাধ্যমে রুকু করে আল্লাহর নৈকট্য অর্জনে এগিয়ে আসা প্রত্যেক মুমিনের কাজ। আল্লাহ আমাদের সঠিক পদ্ধতিতে রুকু করার তাওফিক দান করুন। আমিন।
জাগোনিউজ২৪.কমের সঙ্গে থাকুন। গুরুত্বপূর্ণ দুআ ও আমল শিখুন। সুন্দর সুন্দর ইসলামি আলোচনা পড়ুন। কুরআন-হাদিস মোতাবেক আমলি জিন্দেগি যাপন করে আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করুন। আমিন, ছুম্মা আমিন।

এমএমএস/আরআইপি