এবার আর রানার্সআপ হতে চান না সোহান

ক্রীড়া প্রতিবেদক ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:৫০ পিএম, ০৩ মার্চ ২০১৯

চলতি ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন টি-টোয়েন্টি লিগের দুইটি সেমিফাইনাল ম্যাচই ছিল উত্তেজনায় ঠাঁসা। একটিতে প্রাইম দোলেশ্বর জিতেছে ৬ উইকেটে, অন্যটিতে শেখ জামালের জয় ৫ উইকেটের ব্যবধানে। সোমবার টুর্নামেন্টের ফাইনাল ম্যাচে মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে খেলতে নামবে দুই দল।

নিজ দলকে ফাইনালে তুলতে সামনে থেকে অবদান রেখেছেন দুই দলেরই অধিনায়ক। দোলেশ্বর অধিনায়ক ফরহাদ রেজা গ্রুপের শেষ ম্যাচ এবং সেমিফাইনালে রেখেছেন অলরাউন্ডিং অবদান আর শেখ জামাল অধিনায়ক নুরুল হাসান সোহান ঠাণ্ডা মাথায় জিতিয়েছেন শেষ চারের লড়াইটি।

শাইনপুকুর ক্রিকেট ক্লাবের বিপক্ষে ১৮২ রান তাড়া করতে নেমে মাত্র ৬৫ রানেই ৫ উইকেট হারিয়ে ফেলেছিল শেখ জামাল। ১১ ওভার শেষে তাদের সংগ্রহ ছিল ৫ উইকেটে ৭৬ রান। শেষের নয় ওভারে জিততে দরকার আরও ১০৬ রান। মাঠে থাকা অধিনায়ক নুরুল হাসান সোহান এবং জিয়াউর রহমানের পর নেই আর কোনো স্বীকৃত ব্যাটসম্যান।

তখনই শুরু তান্ডব। ১২তম ওভারে ১২, ১৩তম ওভারে ২৪, ১৪তম ওভারে ১৮, ১৫তম ওভারে ১৪, ১৬তম ওভারে ৬, ১৭তম ওভারে ২০ আর ১৮তম ওভারের ৪ বলে ১২ রান নিয়ে ১৪ বল আগেই শেষ ম্যাচ! দুজনের অবিচ্ছিন্ন জুটিতে ৫৪ বলে ১১৭ রান! সোহান ৩ চার ও ১ ছয়ে অপরাজিত ৪৩, ম্যাচসেরা জিয়া ৪ চার ও ৭ ছক্কায় ২৯ বলে অপরাজিত ৭২। মাত্র ২১ বলে পঞ্চাশ করেছিলেন তিনি।

এমন অসাধারণ জয়ের পর শেষ বাঁধা জিতে শিরোপা হাতে তুলতে চান শেখ জামাল অধিনায়ক সোহান। কেননা প্রিমিয়ার লিগের গত আসরে তার অধীনেই রানার্স আপ হয়েছিল শেখ জামাল। এছাড়া সবশেষ বিপিএলে অধিনায়ক হিসেবে না হলেও, খেলোয়াড় হিসেবে রানার্স আপ হতে দেখেছেন নিজ দল ঢাকা ডায়নামাইটসকে। তাই নিজ দলকে চ্যাম্পিয়ন হিসেবে দেখার আকুতি সোহানের মনে।

রোববার মিরপুরের একাডেমি মাঠে ফাইনালের আগে নিজেদের শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি নেয়ার ফাঁকে সংবাদ মাধ্যমের সঙ্গে আলাপে সোহান বলেন, ‘অবশ্যই (চ্যাম্পিয়ন হতে চাই)। যদি এই কথা চিন্তা করেন, বিপিএলও খেলেছি ফাইনাল। তো ওইখানে একটা আক্ষেপ ছিল যে চ্যাম্পিয়ন হতে পারি নি। অবশ্যই লক্ষ্য থাকবে এখানে চ্যাম্পিয়ন হতে পারি। একই ধাঁচের টুর্নামেন্ট। বিপিএলে হয়তো ইন্টারন্যাশনাল প্লেয়ার বেশি থাকে। যদি বাংলাদেশের ক্ষেত্রে হিসেব করেন, এটা হচ্ছে বাংলাদেশের প্রথম সারির টুর্নামেন্ট। আমি ওইভাবেই হিসেব করছি। অবশ্যই চ্যাম্পিয়ন হতে পারলে নিজের কাছে ভালো লাগবে।’

এসময় ফাইনালের আগে পুরো টুর্নামেন্টের উত্তাপ সম্পর্কে সোহান বলেন, ‘অবশ্যই আপনি যে কোনো টুর্নামেন্টই খেলেন না কেন, সবসময়ই একটা অন্যরকম ব্যাপার। এখানে ১২টা টিম ছিল, সব গুলো টিমই ভালো ছিল। আর টি-টোয়েন্টিতে ছোটবড় কোন টিম নেই। যে ভালো খেলবে সেইদিনই চান্স থাকে জেতার। এখন দুইটা টিম ফাইনালে এসেছে, অবশ্যই টুর্নামেন্টটা কমপেটেটিভ হয়েছে। এটা ভালো দিক ওয়ানডে টুর্নামেন্টের আগে ভালো একটা কমপেটেটিভ টুর্নামেন্টে খেলেছি আমরা। পরবর্তীতে এই টুর্নামেন্ট আরও ভালো মত হবে। তবে আমার কাছে মনে হয়েছে যেই টুর্নামেন্টটা হয়েছে সেটার সব কিছু ভালো মতই হয়েছে।’

এসময় প্রতিপক্ষ প্রাইম দোলেশ্বরের ব্যাপারে নিজের মুল্যায়ন জানাতে গিয়ে সোহান বলেন, ‘যেটা বললাম টি-টোয়েন্টিতে বড় দল, ছোট দল নেই। যারা যেদিন ভালো খেলে তাদেরই জেতার চান্স বেশি থাকে। আমার মনে হয় অবশ্যই ওরা ভালো দল। তবে আমরা যেভাবে খেলছি, অবশ্যই আমাদের দল অনেক ব্যাল্যান্স। যদি আমরা সিচুয়েশন অনুযায়ী ভালো করতে পারি তাহলে ভালো রেজাল্ট হবে।’

এসএএস/জেআইএম