গৌরবের জয়ে সাকিবই ম্যাচ সেরা

ক্রীড়া প্রতিবেদক ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১২:১৭ এএম, ১৮ জুন ২০১৯

বিশ্বকাপে নিজেদের ইতিহাসে সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ড। ইতিহাস গড়া এই ঐতিহাসিক জয়টা সম্ভব হলো কেবলমাত্র সাকিব আল হাসানের দৃঢ়তাপূর্ণ ব্যাটিংরে ওপর ভর করে।

ক্যারিবীয় ফাস্ট বোলারদের চোখরাঙানি উপেক্ষা করে বাংলাদেশকে অসাধারণ এক জয় এনে দিয়েছেন তিনি। করেছেন ব্যাক টু ব্যাক সেঞ্চুরি। শুধু সেঞ্চুরি করাই নয়, ৯৯ বলে ১২৪ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলে অসাধারণ এক নায়কের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছেন বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডার। ১৬টি বাউন্ডারির মার থাকলেও ছিল না কোনো ছক্কার মার।

বিশ্বকাপ শুরুর আগেই বাংলাদেশ দলের কোচ স্টিভ রোডস বলেছিলেন, সাকিবের সামনে সুযোগ এসেছে, কেন সে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার- এটা বিশ্বকে দেখানোর। সাকিব আল হাসান কোচের সে কথাই যেন অনুধাবন কিংবা ধারণ করেছেন মর্মে মর্মে। সে অনুযায়ী টুর্নামেন্টে পারফর্ম করে যাচ্ছেন তিনি।

আজও ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে প্রথমে বল হাতে ৮ ওভার বোলিং করে ৫৪ রান দিয়ে নিলেন ২ উইকেট। বাংলাদেশের সামনে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দাঁড় করালো ৩২২ রানের লক্ষ্য। এই লক্ষ্য তাড়া করতে নামার পর দলীয় ৫২ রানের মাথায় আউট হয়ে যান সৌম্য সরকার। এরপরই মাঠে নামেন সাকিব।

তামিম ইকবালের সঙ্গে সাকিব গড়েন ৬৯ রানের জুটি। তামিম দুর্ভাগ্যজনকভাবে রানআউট হয়ে গেলে জুটি বাধেন মুশফিকের সঙ্গে। মাত্র ১২ রান টিকেছিল এই জুটি। মাত্র ১ রান করে আউট মুশফিক। এরপরই মাঠে নামেন লিটন দাস। ৫ নম্বরে নামা লিটনের সঙ্গে ম্যাচ শেষ না করা পর্যন্ত জুটি বেধে খেলতে থাকেন সাকিব আল হাসান। গড়েন ১৮৯ রানের অবিচ্ছিন্ন এক জুটি।

শেষ পর্যন্ত ৫১ বল হাতে রেখেই ক্যারিবীয়দের ছুঁড়ে দেয়া ৩২২ রানের পাহাড় টপকে যায় বাংলাদেশ। সেটা শুধুমাত্রই সাকিবের বীরোচিত ব্যাটিংয়ের কারণে। ম্যাচ শেষে অ্যাডজুটিকেটরদের দৃষ্টিতে তাই ম্যাচ সেরার জন্য সাকিব ছাড়া আর কে বিকল্প অপশন থাকতে পারেন?

বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে তিনি খেলেন ৭৫ রানের ইনিংস। দ্বিতীয় ম্যাচে খেলেন ৬৪ রানের ইনিংস। তৃতীয় ম্যাচে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ১২১ রানের অসাধারণ এক ইনিংস খেললেও দলকে জেতাতে পারেননি। অবশেষে আজ ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে খেললেন অপরাজিত ১২৪ রানের ইনিংস।

আইএইচএস/বিএ

আপনার মতামত লিখুন :