ভারতে ঘুরতে যেতে চাইলে যা করবেন

আরিফুল ইসলাম আরমান
আরিফুল ইসলাম আরমান আরিফুল ইসলাম আরমান
প্রকাশিত: ১২:৫৮ পিএম, ১২ নভেম্বর ২০১৮

এক দেশে একই সময়ে শীত, গ্রীষ্ম, বর্ষা। উত্তরে যখন বরফ পড়ে; দক্ষিণে তখন গরম। একপাশে দীর্ঘ সমুদ্র সৈকত। অন্যপাশে পাহাড় আর মরুভূমি। পাশের দেশ ভারতের দৃশ্য এমনই।

সময় পেলে অনেকেই ঘুরে আসতে পারেন ভারত থেকে। কিভাবে যাবেন? কোথায় যাবেন? কী দেখবেন? এসব চিন্তায় আর যাওয়া হয়ে ওঠে না। তাদের জন্যই এই লেখা-

পাসপোর্ট চাই
বিদেশে যেতে চাইলে প্রথমে প্রয়োজন হয় পাসপোর্ট। আপনার কাছের আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস থেকে এখন খুব সহজেই পাসপোর্ট করতে পারেন। পড়ুন - নতুন পাসপোর্ট করতে চান?

ডলার এনডোর্সমেন্ট
দেশের বাইরে যেতে হলে সঙ্গে নিতে হবে আন্তর্জাতিক মুদ্রা বা মার্কিন ডলার। ভারতে যেতে চাইলে অবশ্যই আপনার পাসপোর্টে ২০০ ডলার এনডোর্স করতে হবে। যে কোন ব্যাংক থেকে ২০০ মার্কিন ডলার সমপরিমাণ টাকার বিনিময়ে ও নির্ধারিত ফি দিয়ে পাসপোর্ট ডলার এনডোর্স করতে পারেন।

যেভাবে ভিসা করবেন
ভারতীয় ভিসার জন্য অনলাইনে এই ওয়েবসাইট থেকে আবেদন করতে হবে। প্রয়োজনীয় তথ্য ও ছবি দিয়ে আবেদনপত্র পূরণ করুন। সঠিকভাবে পূরণ করার পর ফরমের পিডিএফ কপি ডাউনলোড করে প্রিন্ট করুন। এবার ফরমের উপরে নির্ধারিত জায়গায় ২/২ ইঞ্চি সাইজের ছবি আঠা দিয়ে যুক্ত করুন। ছবি অবশ্যই সবশেষ ৩ মাসের মধ্যে তোলা হতে হবে।

এরপর এই ওয়েবসাইটে গিয়ে ভিসা ফি পরিশোধ করুন। ফরম ও ভিসা ফি পরিশোধের প্রিন্ট কপি, জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি, পেশার সার্টিফিকেট বা এনওসি, বর্তমান ঠিকানার যে কোন বিলের ফটোকপি, পাসপোর্টে ডলার এনডোর্সমেন্টের কপি ও পাসপোর্ট আপনার কাছের ভারতীয় ভিসার সেন্টারে গিয়ে জমা দিন।

জমার দেওয়ার পর ভিসা সেন্টার থেকে স্লিপ বুঝে নিন। যেখানে আপনার পাসপোর্ট ডেলিভারির সময় উল্লেখ থাকবে। এরপর নির্ধারিত দিনে গিয়ে পাসপোর্ট সংগ্রহ করুন। ভিসা আবেদনের জন্য পাসপোর্টে ডলার এনডোর্সমেন্টের পরিবর্তে আপনার সবশেষ ৬ মাসের ব্যাংকিং লেনদেনের বিবরণও দিতে পারেন।

ভারতে গেলে আগ্রার তাজমহল দেখতে ভুলবেন না। গতিমান এক্সপ্রেসে সহজেই দিল্লি থেকে আগ্রার তাজমহল ঘুরে আসতে পারেন। পড়ুন - গতিমান এক্সপ্রেসে তাজমহলের পথে

ট্রাভেল প্ল্যান
যে কোন কাজেই প্রয়োজন সঠিক পরিকল্পনা। তাই ঘুরতে যাওয়ার আগে ট্রাভেল প্ল্যান করে ফেলুন। কোথায় কোথায় ঘুরবেন? কিভাবে যাবেন? কোথায় থাকবেন? সঙ্গে কী নেবেন? এমন সবকিছু লিখে ফেলুন। ঘোরার সময় পরিকল্পনার ব্যতিক্রম হতেই পারে। কিন্তু আগে থেকেই যদি সবকিছু পরিকল্পনায় থাকে তবে আপনার ভ্রমণ হবে ঝামেলাহীন ও স্বাচ্ছন্দ্যময়।

Coffee House

কলকাতায় যাবেন কফি হাউজে যাবেন না তা কি করে হয়। পড়ুন - কফি হাউসের সেই আড্ডা এখনো আছে

হোটেল বুকিং
ইন্টারনেটের এই সময়ে ঘরে বসেই দিতে পারেন হোটেল বুকিং। কোন ধরনের চার্জ বা অগ্রিম টাকা পরিশোধ না করে বাংলাদেশ থেকে ভারতের অনেক জায়গার হোটেল বুকিং দেওয়া যায়। হোটেল বুকিংয়ের জন্য জনপ্রিয় ওয়েবসাইটগুলো হচ্ছে- www.agoda.com, www.oyorooms.com, www.booking.com, www.makemytrip.com, www.trivago.in, www.yatra.com প্রভৃতি।

এয়ার টিকিট
এয়ারে ভারতে যাওয়ার জন্য দেশি-বিদেশি অনেকগুলো এয়ারলাইন্স রয়েছে। আপনার যাওয়ার দিন থেকে যত আগে এয়ার টিকিট সংগ্রহ করবেন টিকিটের দাম তত কম লাগবে। যে কোন ট্রাভেল এজেন্সি বা অনলাইন থেকে এয়ার টিকিট সংগ্রহ করতে পারেন।

এয়ারলাইন্স অনুযায়ী ঢাকা থেকে ভারতের কলকাতায় যাওয়া আসায় গড়ে ১০ হাজার টাকা খরচ হতে পারে।

ট্রেনের টিকিট
ট্রেনে ভারত যাওয়ার জন্য ঢাকার কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন থেকে মৈত্রী ট্রেনের টিকিট সংগ্রহ করতে হবে। টিকিট সংগ্রহের সময় পাসপোর্ট ও ভিসার কপি প্রয়োজন হবে।

মৈত্রী ট্রেন ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট স্টেশন থেকে সকাল আটটা পনেরো মিনিটে ভারতের কলকাতার উদ্দেশে ছাড়ে। এই ট্রেনে এসি সিটে ভ্রমণে লাগবে ৩৪০০ টাকা এবং এসি চেয়ারে লাগবে ২৫০০ টাকা।

এছাড়া খুলনা থেকে বন্ধন এক্সপ্রেস ট্রেনে ভারত যাওয়া যায়। এই ট্রেনে এসি সিট ২০০০ এবং এসি চেয়ার ১৫০০ টাকা। খুলনা রেলওয়ে স্টেশন থেকে দুপুর ১টা ৩০ মিনিটে বন্ধন এক্সপ্রেস ভারতের কলকাতার উদ্দেশে ছেড়ে যায়।

India Gate

দিল্লিতে যাবেন? কি দেখবেন? পড়ুন - ঘুরে দেখা দিল্লি : কুতুব মিনার থেকে লাল কেল্লা

বাস টিকিট
ঢাকার কমলাপুর, আরামবাগ, ফকিরাপুল, কল্যাণপুর, কলাবাগান বাসস্ট্যান্ড থেকে ভারতে কলকাতা, শিলং, শিলিগুড়িতে সরাসরি যাওয়ার বাস টিকিট পাওয়া যায়। এছাড়া ঢাকা থেকে আপনার পছন্দের ভারতীয় সীমান্ত পর্যন্ত বাসে যেতে পারেন।

ট্রাভেল ট্যাক্স
ভারত যেতে চাইলে দিতে হবে ৫০০ টাকা ভ্রমণ কর বা ট্রাভেল ট্যাক্স। ঢাকার মতিঝিলে সোনালী ব্যাংকের লোকাল ব্রাঞ্চসহ জেলা শহরের সোনালী ব্যাংকে ট্রাভেল ট্যাক্স দেওয়া যায়। এছাড়াও বাংলাদেশের যে কোন ইমিগ্রেশনের কাস্টমসে ট্রাভেল ট্যাক্স দেওয়া যায়। ঝামেলা ও ভিড় এড়াতে ভ্রমণের আগেই ট্রাভেল ট্যাক্স পরিশোধ করে রশিদ সংরক্ষণ করুন। কারণ বাংলাদেশ ও ভারতে ইমিগ্রেশনে এই রশিদ দেখাতে হবে। তবে এয়ার বা ট্রেনে যেতে চাইলে টিকিটের মূল্যের সঙ্গেই ট্রাভেল ট্যাক্স যুক্ত থাকে।

ইমিগ্রেশন ফরম
বাংলাদেশ ছাড়ার সময় ইমিগ্রেশনে যাওয়ার আগে পূরণ করতে হবে ইমিগ্রেশন ফরম। যেখানে আপনার ব্যক্তিগত ও পাসপোর্টের তথ্য, ভ্রমণের উদ্দেশ্যসহ কিছু তথ্য দিতে হবে। এছাড়া ভারতের ইমিগ্রেশনেও সে দেশের ইমিগ্রেশন ফরম পূরণ করে জমা দিতে হবে।

মানি এক্সচেঞ্জ
ভারতের যে কোন মানি এক্সচেঞ্জ থেকে আপনার সঙ্গে থাকা মার্কিন ডলারের বিনিময়ে রুপি সংগ্রহ করতে পারেন।

এএ/এসইউ

বিনোদন, লাইফস্টাইল, তথ্যপ্রযুক্তি, ভ্রমণ, তারুণ্য, ক্যাম্পাস নিয়ে লিখতে পারেন আপনিও - [email protected]

আপনার মতামত লিখুন :